বাংলায় সিওপিডি আক্রান্ত মানুষ ৫০ লক্ষেরও বেশি! ধূমপান ছাড়তে নির্দেশ ফুসফুসরোগ বিশেষজ্ঞদের

বাংলায় সিওপিডি আক্রান্ত মানুষ ৫০ লক্ষেরও বেশি! ধূমপান ছাড়তে নির্দেশ ফুসফুসরোগ বিশেষজ্ঞদের
বাংলায় সিওপিডি আক্রান্ত মানুষ ৫০ লক্ষেরও বেশি! ধূমপান ছাড়তে নির্দেশ ফুসফুসরোগ বিশেষজ্ঞদের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ রাজ্যে সিওপিডি (COPD)তে আক্রান্ত ৫০ লক্ষ।পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরিস্থিতি ক্রমশ উদ্বেগজনক। এই রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ১৫ হাজারেরও বেশি মানুষ।

আরও পড়ুনঃ নতুন করে ৫ করোনা সংক্রামিতের খোঁজ, তাতেই লকডাউন জারি করল চিন!

এই মৃত মানুষের মধ্যে যাঁর মধ্যে কো-মর্বিডিটি বা অন্যান্য শারীরিক অসুখ ছিল ১১ হাজারের। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, এটি অন্যান্য অসুখের মধ্যেই একটা সিওপিডি বা ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ। শরীরে করোনা প্রবেশ করলে ফুসফুসের এই মারণ অসুখ আরও ভয়ংকর হয়ে ওঠে।

সম্প্রতি পরিসংখ্যান থেকে জানা গিয়েছে, রাজ্যে বাংলায় সিওপিডি আক্রান্ত মানুষ ৫০ লক্ষেরও বেশি। এই সংখ্যাটা থেকে বোঝাই যাচ্ছে বেশি মানুষের ফুসফুস স্বাভাবিক ভাবে কাজ করে না। বায়ুস্ফীতিজনিত সমস্যার কারণে এঁদের ফুসফুসে স্বাভাবিক বায়ুপ্রবাহ হয় না। চিকিৎসকরা প্রশ্ন তুলছেন, এমন ব্যক্তিদের ফুসফুসে করোনা আঘাত করলে কী হবে?।

একটি সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফুসফুসরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মিতা রায় সেনগুপ্ত জানিয়েছেন,”ধূমপায়ীদের মধ্যে এ অসুখ গা সওয়া। দীর্ঘদিন সিগারেটের ধোঁয়া ইনহেল করার ফলে প্রথমে শ্বাসনালী, পরে ফুসফুস ক্রমশ অকেজো হতে শুরু করে। অবিলম্বে সিগারেট বর্জন করা উচিত। সে কারণে ৩১ মে বিশ্ব তামাক বর্জন দিবসকেই হাতিয়ার করতে বলছেন চিকিৎসকরা।”

প্রসঙ্গত,পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও ফুসফুসের এই অসুখে সারা পৃথিবীতে প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ মারা যান। মাত্র ৬ বছর আগে ২০১৫ সালে সেই সংখ্যাটা ছিল ৩১ লক্ষ। এমনকি পশ্চিমবঙ্গ সারা দেশের মধ্যে সিওপিডিতে ভুগে মৃত্যুতে পঞ্চম স্থানে। চিকিৎসকেরাও ভয়ংকর এই পরিসংখ্যান দেখে রীতিমতো আতঙ্কিত ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here