কলকাতার মানুষের প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন মমতা, মুখ্যমন্ত্রীর মাস্টারস্ট্রোকের কটাক্ষ শোভনের

কলকাতার মানুষের প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন মমতা, মুখ্যমন্ত্রীর মাস্টারস্ট্রোকের কটাক্ষ শোভনের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ কলকাতার মানুষের প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন মমতা, বাংলায় চলছে নবান্ন দখলের লড়াই। ২১ এর বিধানসভা নির্বাচন জিতে কে বসবেন বাংলার মসনদে সেই নিয়ে হিসেব কষছে সব রাজনৈতিক দলই। শুরু হয়ে গিয়েছে ২৯৪ টি বিধানসভার প্রার্থী নির্বাচন। আর এই মুহুর্তে সবথেকে বেশি চমক দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাইভোল্টেজ সভা থেকে রীতিমতো হাইভোল্টেজ ঘোষণা করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

আরও পড়ুন: আজ শুভেন্দুর গড়ে মমতা, দিদির গড়ে মিছিল শুভেন্দুর

৫ বছর পর আজ হাইভোল্টেজ সভা করতে নন্দীগ্রামে  পা রেখেছিলেন মুখমন্ত্রী। এবং সেখানে গিয়ে কার্যত তাঁর বক্তব্যে ধরা পড়ে আবেগ। ২০১১ তে ক্ষমতায় আসেন যখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তখন সবথেকে বেশি ভুমিকা নিয়েছিল এই নন্দীগ্রাম, ২০১৬ তেও নন্দীগ্রাম থেকেই ভোটের ঘোষণা করেছিলেন মাননীয়া। ২০২১ এও নন্দীগ্রামে তৃণমূল জিতবে বলে আশাবাদী মমতা। আর সেখানে দাঁড়িয়েই ঘোষণা করলেন ‘লাকি নন্দীগ্রাম’ থেকেই এবার বিধান্ সভার প্রার্থী হবেন তিনি।

নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়ে মমতার এই মাস্টারস্টোকের পর স্বাভাবিক ভাবেই শুরু হয়েগেছে মতপ্রদান। মমতার এই বক্তব্যের পর বিশ্নুপুরের সভার আগে পাল্টা কটাক্ষ করেছেন দীর্ঘদিনের সঙ্গী এখন বিজেপির নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়। মমতার একসাথে নন্দীগ্রাম এবং ভবানীপুরে দাঁড়ানো নিয়ে শোভন বলছেন মমতা আস্থা রাখতে পারছেন না খাস কলকাতার ওপর, তাই হঠাত এই বিক্ষিপ্ত সিদ্ধান্ত। মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। মানুষকে অসত্য বঝাচ্ছেন বারবার। এবং দিদির এই বিক্ষিপ্ত সিধান্তের জন্যই মানুষ আস্থা হারাচ্ছে তৃণমূলের ওপর থেকে।

 কলকাতার মানুষের প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন মমতা, সভায় মমতার নন্দূগ্রাম আবেগ কেও কটাক্ষ করে বলেছেন ১০ বছর আগে আনদলনের মমতা আর এই মমতার মধ্যে পার্থক্য অনেক। মানুষ এই পার্থক্য বুঝছেন। যদিও শোভন চট্টোপাধ্যায়, সুজন চক্রবর্তী  যাই বলুন না কেন বাংলার রাজনীতি মহলে এই মুহূর্তে রীতিমত সরগোল পড়ে গেছে মমতার মাস্টারস্ট্রোকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x