Visva Bharati University: ধুন্ধুমার কাণ্ড বিশ্বভারতীতে, ১০ ঘণ্টা পর ঘেরাওমুক্ত উপাচার্য

ধুন্ধুমার কাণ্ড বিশ্বভারতীতে, ১০ ঘণ্টা পর ঘেরাওমুক্ত উপাচার্য
student protest against vicechancellor visva bharati

নজরবন্দি ব্যুরোঃ বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ধুন্ধুমার পরিস্থিতি। উপাচার্য ঘেরাও করে চলল বিক্ষোভ। প্রায় ১০ ঘণ্টা  আটকের পর মুক্ত করা গেল উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে। ছাত্র ছাত্রীদের অভিযোগ এইদিন উপাচার্য পড়ুয়াদের ওপর গুলি চালানোর নির্দেশ দেন। যদিও বিশ্ব বিদ্যালয়ের তরফে এ বিষয়ে কোন উত্তর মেলেনি। তবে পড়ুয়াদের বক্তব্য অনুযায়ী,  তারা কিছু দাবিদাওয়া নিয়ে উপাচার্যের কাছে উপস্থিত হলে সেদিন ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন তিনি। প্রাণ নাশের জন্য গুলি চালানোর কথাও বলেন তাঁর নিরাপত্তা রক্ষীদের দিয়ে। ফলত এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই কার্যত অগ্নিময় হয়ে ওঠে বিশ্ব ভারতী ক্যাম্পাস।

 আরও পড়ুনঃ জেলে বসে ১০ লক্ষ টাকা তোলা আদায়ে হুমকি, দুষ্কৃতীর নজরে প্রাক্তন তৃণমূল নেতা

বিক্ষোভরত পড়ুয়ারা দাবি তোলেন, বিদ্যুৎ চক্রবর্তী পদত্যাগ না করা পর্যন্ত তারা আন্দোলনে অনড় থাকবেন। ফলে প্রায় ১০ ঘন্টা ঘেরাও করে রাখা হয় তাঁকে। এক ছাত্র বলেন. “যদি উনি এখান থেকে চলে যান, তাহলেই এখানকার মঙ্গল হবে।” আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা অনিয়ম হচ্ছে। আরেক ছাত্রর অভিযোগ, “কোর্টের অর্ডারে কোনও কিছুর নিষ্পত্তি হচ্ছে। তার পরক্ষণই অন্য কিছু বেনিয়ম শুরু করছেন”।

ধুন্ধুমার কাণ্ড বিশ্বভারতীতে, ১০ ঘণ্টা পর ঘেরাওমুক্ত উপাচার্য
ধুন্ধুমার কাণ্ড বিশ্বভারতীতে, ১০ ঘণ্টা পর ঘেরাওমুক্ত উপাচার্য

নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে পড়ুয়াদের বিস্তর ধস্তাধস্তি চলে রাতভর। উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে বাধার মুখে পড়েন অন্যান্য অধ্যাপক অধ্যাপিকারাও। জানা যাচ্ছে, রাত দুটো পর্যন্ত উপাচার্য নিজের অফিসেই ছিলেন। ছাত্রদের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ চালিয়ে রীতিমত উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় উপাচার্যকে। এখনও শান্ত হয়নি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর। পড়ুয়ারা দ্রুত এই ঘটনার প্রতিকার চাইছেন। এদিকে উপাচার্য বিষয় টিকে অস্বীকার করেছেন বলে জানা যাচ্ছে। সংবাদ মাধ্যম বা অন্য কোথাও এখনও কোন লিখিত বা মৌখিক বিবৃতি দেননি।

ধুন্ধুমার কাণ্ড বিশ্বভারতীতে, ১০ ঘণ্টা পর ঘেরাওমুক্ত উপাচার্য

vbu123

পড়ুয়াদের তরফে আরোও অভিযোগ, বিক্ষোভের মুখে নিরাপত্তারক্ষীরা শাবল, গাইতি নিয়ে ঢুকেছিলেন। বিক্ষোভ কারীদের ওপর মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ। ইতিমধ্যেই অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে  বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে। পরিস্থিতি যাতে নতুন করে উত্তপ্ত না হয়, তার দিকে কড়া নজর রাখা হচ্ছে বলে খবর। এখনও বিশ্ব বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে কোন রকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।