আসছে তৃতীয় ভ্যাকসিন, দ্বিতীয় ভ্যাকসিনের কথা ঘোষণা পুতিনের।

আসছে তৃতীয় ভ্যাকসিন, দ্বিতীয় ভ্যাকসিনের কথা ঘোষণা পুতিনের।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আসছে তৃতীয় ভ্যাকসিন, দ্বিতীয় ভ্যাকসিন এনে ঘোষণা রাশিয়া প্রধান পুতিনের ।চিনের উহান প্রদেশ থেকে ছড়ানো করোনা ভাইরাস আজ গোটা পৃথিবীর আতঙ্কের কারন।প্রায় সমস্ত দেশ এখন এই অতিমারির ধাক্কায় প্রবল বিপর্যস্ত।সকলের মুখে একটাই কথা কবে পাওয়া যাবে ভ্যাক্সিন।কবে মুক্তি মিলবে সময় কে থামিয়ে দেওয়া এই অতিমারির থেকে। গত আগস্টে রাশিয়া প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বিশ্বকে স্বস্তি দিয়ে রাশিয়ার প্রথম ভ্যাকসিন আবিস্কারের কথা ঘোষণা করেছহিলেন।এবং দ্রুত তা সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছিলেন।

আরও পড়ুনঃঅসুস্থ স্বেচ্ছাসেবক, ফের করোনা ট্রায়ালে ধাক্কা প্রথম সারির সংস্থার

তারপর কিছুদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল, এবার দ্বিতীয় ভ্যাকসিনও আসতে চলেছে। অবশেষে সেই জল্পনাই সত্যি হল। ‘স্পুটনিক ৫’-র পরে বুধবার রাশিয়া ছাড়পত্র দিল ‘এপিভ্যাককরোনা’ ভ্যাকসিনকেও । এদিন পুতিন ঘোষণা করেন, ”আমি একটা দারুণ খবর দিচ্ছি। নভোসিবিরস্কের ভেক্টর সেন্টার আবিষ্কার করেছে দ্বিতীয় করোনা ভ্যাকসিন। এর নাম এপিভ্যাককরোনা।”

সাইবেরিয়ায় তৈরি হওয়া এই ভ্যাকসিন গত সেপ্টেম্বরেই প্রাথমিক ভাবে হিউম্যান ট্রায়াল বা মানব শরীরে প্রয়োগের ধাপ পার করেছে। সেই ট্রায়ালের ফল তারা শিগগিরি প্রকাশ করবে। সেই সঙ্গে শুরু হবে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালও। পুতিন জানাচ্ছেন, ”প্রথম ও দ্বিতীয় ভ্যাকসিনের উত্‍পাদন আমাদের বাড়াতে হবে। এই ব্যাপারে অন্য সঙ্গী দেশের সঙ্গে সহযোগিতা আমরা চালিয়ে যাব। বিদেশেও আমাদের ভ্যাকসিনের পৌঁছে দেব।”

‘Sputnik V’-র কার্যকারিতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন অনেকেই। এই ভ্যাকসিনকে নিয়ে বিতর্কও হয়েছে। বর্তমানে এই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। এই পরিস্থিতিতে রাশিয়ার উপ প্রধানমন্ত্রী তাতায়ানা গোলিকাভা দাবি করেছেন ‘এপিভ্যাককরোনা’-র কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সময় এটি ৪০ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের উপরে প্রয়োগ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে ষাটোর্ধ্ব ১৫০ জনের উপরেও এটি প্রয়োগ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। অদূর ভবিষ্যতে এই ভ্যাকসিনের ৬০ হাজার ডোজ উত্‍পন্ন করা হবে প্রাথমিক ভাবে।

আসছে তৃতীয় ভ্যাকসিন, দ্বিতীয় ভ্যাকসিন এনে ঘোষণা রাশিয়া প্রধান পুতিনের ।এদিক পুতিন আরও জানিয়েছেন, অদূর ভবিষ্যতে করোনার তৃতীয় ভ্যাকসিনটিও আনতে চলেছেন তাঁরা। এই ভ্যাকসিনটি নিয়ে কাজ করছে চুমাকভ সেন্টার। কিছুদিনের মধ্যে সেটিও নথিভুক্ত করা হবে।সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ চলছে। ভারতে তিনটি সংস্থা ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ করছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন আগামী বছরের গোড়াতেই দেশে আসতে পারে করোনা ভ্যাকসিন। সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন, একটি নয়, একাধিক ভ্যাকসিন আসতে পারে সেই সময়।আগামী বছর বিভিন্ন দেশের ভ্যাকসিনের সাহায্যে এই অতিমারিকে হারিয়ে ওঠার অপেক্ষায় এখন দিন গুনছে বিশ্ববাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x