BSF নিয়ে সমস্যা এবার উত্তরবঙ্গেও, সরব হলো আধিকারিকরা

BSF নিয়ে সমস্যা এবার উত্তরবঙ্গেও, সরব হলো আধিকারিকরা

নজরবন্দি, শিলিগুড়িঃ বিধানসভায় বি এস এফ নিয়ে বাক বিতন্ডা নিয়ে দক্ষিণবঙ্গের পর আজ উত্তরবঙ্গেও সরব হলো বি এস এফ এর আধিকারিকরা। ক্ষমতা বাড়েনি বেড়েছে কাজের পরিধি জানালেন উত্তরবঙ্গ ফ্রন্টইয়ারের বি এস এফ আই জি রবি গান্ধী।

আরও পড়ুনঃ গৃহিত হল না কমিশনের হলফনামা, বেজায় ক্ষুব্ধ বিচারপতি 

এক্তিয়ার বাড়লেও বাড়েনি ক্ষমতা। বেড়েছে শুধু কাজের পরিধি। তাই পুলিশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই কাজ করবে বিএসএফ। পুলিশের সঙ্গে মিলেই অভিযান চালাবে বিএএসএফ।শিলিগুরিতে সাংবাদিক বৈঠক করে এমনই কথা জানালেন বিএসএফের উত্তরবঙ্গ ফ্রন্টিয়ারের আইজি রবি গান্ধী। একই সঙ্গে এদিন তিনি বলেন কোথাও মহিলাদের সঙ্গেও দুর্ব্যবহার করেনা বিএসএফ। যদি কোথাও এমন ঘটনা ঘটে তবে পুলিশে জানানোর কথা বলেন আই জি।

 BSF নিয়ে সমস্যা এবার উত্তরবঙ্গেও, সরব হলো আধিকারিকরা

পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের বেশ কিছু রাজ্যে বিএসএফ এক্তিয়ার বাড়ানো হয়েছে। যা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সহ অন্যান্য রাজ্য গুলিও প্রতিবাদ জানিয়েছে। এর বিরোধিতা করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠিও পাঠিয়েছে। আগে সীমান্ত থেকে বিএসএফের ক্ষমতা ১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত থাকলেও এখন তা বাড়িয়ে ৫০ কিলোমিটার করা হয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে বিএসএফ এর উত্তরবঙ্গ ফ্রন্টিয়ারের আইজি রবি গান্ধী জানান, বিএসএফ খুব নিয়ম মেনে ও পেশাগতভাবে কাজ করে। আমাদের এলাকা বাড়ানো হলেও ক্ষমতা আগের মতোই আছে।

3 7

ইতিমধ্যেই বিএসএফের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। পুরুষ বিএসএফ জওয়ানেরা সীমান্তবর্তী গ্রামের মহিলাদের তল্লাশি করেন বলে অভিযোগ ওঠে। যদিও তা নিয়ে আইজি জানান, কোথাও এমন হয়নি। উত্তরবঙ্গ ফ্রন্টিয়ার ৮০০ জন মহিলা বিএফএফ কর্মী রয়েছেন। কোনও সময় মহিলাদের তল্লাশি করতে হলে তাঁরাই করেন।

সীমান্তবর্তী এলাকার মানুষদের জন্য বিএসএফ প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। বিভিন্ন জায়গায় ছাত্র-ছাত্রীদের কম্পিউটার প্রদান করা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো, বিভিন্ন জায়গায় বাসিন্দাদের সেলাই মেশিন তুলে দেওয়া থেকে শুরু করে নানা ধরনের সাহায্যের হাত বিএসএফ সর্বদাই করে এসেছ।

সি আর পি সি ১৯৭৩, পাসপোর্ট ধারা ১৯২০, ১৯৬৭ এবং এন ডি পি এস আর্মস বা কাষ্টম অ্যাক্ট আগে যেমন ছিল এখনো তাই আছে। কোনো ধারা সংযুক্ত হয় নি। এই ধারার মাধ্যমে বিএসএফ আগে যেমন বিভিন্ন জায়গায় সার্চ করতে পারত বা কোন কিছু অবৈধ জিনিস বাজেয়াপ্ত করতে পারতো এবং গ্রেপ্তার করতে পারতো এখনো তাই করতে পারবে। সি আর পি সি ১৯২০ ও ১৯৬৭ আইনে অনুপ্রবেশ ক্ষেত্রে গ্রেফতার করার ক্ষমতা বি এস এফ এর হাতেই আছে।

BSF নিয়ে সমস্যা এবার উত্তরবঙ্গেও, সরব হলো আধিকারিকরা

উত্তরবঙ্গ ফ্রন্টইয়ার বি এস এফের হাতে ৯৩৬ কিলোমিটার বাংলাদেশের সীমান্ত। যার মধ্যে অনেকটাই এখনও কাঁটাতারের বেড়া নেই। বিশেষ করে অনেকাংশ নদী পড়ে যাওয়ায় এবং ভৌগোলিক কিছু অসুবিধার জন্য এখনও কিছু অঞ্চলে বেড়া দিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। তবে সেসব অঞ্চলে দিনে রাতে বি এস এফ পুরুষ জওয়ানদের সাথে মহিলা জওয়ানরাও প্রতিনিয়ত টহলদারি করে যাচ্ছে।