বাহক হয়ে ভারতে করোনা ছড়াচ্ছে আইএস জঙ্গিরা! চাঞ্চল্যকর তথ্য।

বাহক হয়ে ভারতে করোনা ছড়াচ্ছে আইএস জঙ্গিরা! চাঞ্চল্যকর তথ্য।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ বাহক হয়ে ভারতে করোনা ছড়াচ্ছে আইএস জঙ্গিরা! ইসলামিক জঙ্গি সংগঠনের বার্তা, ভারতবর্ষে করোনাভাইরাস ছড়ানোর। সমর্থকদের এমনই নির্দেশ দিয়েছে আইএস। সম্প্রতি একটি বই অনলাইনে প্রকাশিত করে ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন আইএস। ১৭ পাতার এই বইটির নাম দেওয়া হয়েছে লকডাউন স্পেশ্যাল। এই বইটির দ্বারাই সমর্থকদের সমস্ত নির্দেশ দিয়েছে এই জঙ্গি সংগঠন। এই বিষয়টি সামনে আসার পর এর বিরোধিতা ও সমালোচনা করতে দেখা যায় রাজ্যের মুসলিম সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতা ত্বহা সিদ্দিকি-কে।

আরও পড়ুনঃ মহারাজ হীন হল ভারতীও ক্রিকেট। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট পদের মেয়াদ শেষ সৌরভের।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে আইএস একটি মাসিক অনলাইন ম্যাগাজিন প্রকাশিত করে। ম্যাগাজিনটির নাম ‘সোয়াট উল হিন্দ’। ভারতের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেই ধর্মীয় এই ম্যাগাজিনটি প্রকাশিত করা হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ এখানে বলা হয়েছে, কিভাবে করোনা নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নিজামুদ্দিনে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। যার ফলে গোটা দিল্লিতে এই মহামারী ছড়িয়ে পরে। এই পুস্তকে বলা হয়েছে এটা শত্রু পক্ষকে দূর্বল করার সঠিক উপায়।

বাহক হয়ে ভারতে করোনা ছড়াচ্ছে আইএস জঙ্গিরা! ভারতে প্রকাশিত করা এই পুস্তকের মাধ্যমে ধর্মীয় সমর্থকদের জন্য নানা উস্কানিমূলক কথা বলা হয়েছে। ভারত সরকারের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন লাঘু হওয়ার পর দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের কথা উল্লেখ করে প্রতিশোধ নিতেও বলা হয়েছে। এই মাসিক ম্যাগাজিনের তৃতীয় এবং চতুর্থ সংখ্যাতে বলা হয়েছিল, আইএস এর বলা জিহাদের পথে যে বা যারা বাধা হয়ে দাড়াবে এবং মুসলিম সম্প্রদায়ের বাইরের মানুষদের উপর হামলা চালাতে। এবং সম্প্রতি প্রকাশিত ১৭ পাতার অনলাইন পুস্তকে দ্বারা জঙ্গি সংগঠন আইএস বলেছে, যারা জিহাদে বিশ্বাসী নয় তাদের উপর হামলা করার কথা।

কি ভাবে হামলা করা যাবে তাও বলে দেওয়া হয়েছে। এই পুস্তকের দ্বিতীয় পাতায় বলা হয়েছে, কাচের টুকরো এবং হাতের কাছে পাওয়া যায় এমন অনেক কিছুকে ও করোনাভাইরাসকে অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করার কথা। জিহাদে অবিশ্বাসীদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ইসলামিক সমর্থকদের। সংক্রমণের বাহক হয়ে পুলিশবাহিনীর মধ্যে বেশি মাত্রায় সংক্রমন ছড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইসলামিক জঙ্গি সংগঠনের প্রকাশিত এই পুস্তকের বার্তাকে নিয়ে চিন্তিত গোয়েন্দারা। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের মতে, ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে একাধিক আইএস সমর্থক ও সংগঠন যথেষ্ট সক্রিয়। তাই তাঁরা এই বিষয়টিকে হালকা ভাবে নিচ্ছেন না।

সম্প্রতি দেশের দুই প্রান্তে কেরল এবং কর্নাটকে আইএস সংগঠনের সক্রিয়তার ঘটনা রাষ্ট্রপুঞ্জের একটি রিপোর্টের তুলে ধরা হয়েছে। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বিভাগের এক আধিকারিক জানান, টেলিগ্রাম, স্ন্যাপ চ্যাটের মতো মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে সংগঠন বৃদ্ধি করছে এই জঙ্গি সংগঠন। কেরল এবং কর্নাটক থেকে যে সমস্ত যুবকরা পশ্চিম এশিয়ার দিকে যাচ্ছে তাদের নিয়ে আইএস তৈরি করছে নতুন মডিউল। গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, শুধু কেরল ও কর্নাটক নয় কাশ্মীর এবং পশ্চিমবঙ্গেও সংগঠন তৈরী চেষ্টা দীর্ঘদিন যাবৎ জারি রয়েছে।জেএমবি গোষ্ঠীর দ্বারা আইএস তাঁদের সংগঠন বৃদ্ধি করার চেষ্টা করছে।

এই বিষয়টি সামনে আসার পর এর তীব্র সমালোচনা করারেন ফুরফুরা শরিফের অন্যতম প্রধান ত্বহা সিদ্দিকি। তাঁর কাছে এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস একটা মহামারী। আর মহামারী কোন জাতি বা ধর্ম দেখে ছড়ায় না। গোটা বিশ্ব এই মহামারীর কবলে। যাদের ধারণা করোনা ভাইরাস কেবল মাত্র একটা নির্দিষ্ট ধর্মের মানুষের মধ্যেই সীমাবদ্ধ তারা মুর্খের স্বর্গে বাস করছেন। তিনি বলেন, ইসলাম ধর্ম কখনো কোন মানুষের ক্ষতি চায়না এবং এমন বিষয়কে সমর্থনও করে না। তিনি আরও বলেন, এই আমার বিশ্বাস ভারতের এবং রাজ্যের কোন মুসলিম ভাইরা আইএস-এর এই নির্দেশের পালন করবে না। এটা মহামারী। যেখানে ছড়াতে শুরু করতে সেখান থেকে কেউ রক্ষা পাবেনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x