উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন।

উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন।
উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছে দেশ। তবে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে তৃতীয় ঢেউয়ের চোখরাঙানী। বিশেসজ্ঞ থেকে চিকিৎসকরা বার বার বলছেন যে কোন সময়ে থাবা হানতে পারে তৃতীয় ঢেউ। সতর্ক না থাকলে দ্বিতীয় ঢেউয়ের কয়েকগুন ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে। তাঁদের আরও আশঙ্কা তৃতীয় ঢেউ মারাত্মক আকার নেওয়ার জন্য অনুঘটক হিসেবে কাজ করতে পারে নয়া ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট।

আরও পড়ুনঃ জোড়া সাংসদ বাবুল ও সৌমিত্রর বাক্যবাণে বিদ্ধ দিলীপ, অস্বস্তিতে রাজ্য বিজেপি।

যার সংক্রমণ ক্ষমতা আগের প্রকারগুলির কয়েকগুন। গত কয়েকদিন ধরে দেশের উত্তরে এই প্রকারের প্রাদুর্ভাব দেখা যাচ্ছিল। এবার তার খোঁজ মিলল উত্তর পূর্ব প্রান্তেও। ত্রিপুরাতে প্রথম মিলল এই প্রকারের খোঁজ। রাজ্যের ১৩৮ জনের দেহে এই ভ্যারিয়ান্ট রয়েছে। জানিয়েছেন সে রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকারিক ডাঃ দীপক কুমার দেববর্মা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ‘হু’ ইতিমধ্যেই করোনার এই রূপকে ‘ভ্যারিয়ান্ট অব কনসার্ন’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন। অন্যান্য রাজ্যেও ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

উত্তরপূর্ব ভারতে থাবা বসাচ্ছে ডেল্টা প্লাস, ত্রিপুরায় নয়া ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ১৩৮ জন। স্বাভাবিকভাবেই উদ্বেগ বেড়েছে ত্রিপুরা সহ গোটা উত্তর-পূর্ব ভারতেই। দীপকবাবু জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের কল্যাণীতে ১৫১ নমুনা পাঠানো হয় পরীক্ষার জন্য। এর মধ্যে ১৩৮ জনের শরীরে মিলেছে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট। এছা়ড়াও ৩ জনের শরীরে আল্ফা ভ্যারিয়ান্টের হদিশ মিলেছে। আট জেলার মধ্যে পশ্চিম ত্রিপুরায় ১১৫ ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত। এছাড়াও, সিপাহিজেলায় ৮ জন, গোমতিতে ৫ জন, উনাকোটিতে ৪ জন, উত্তর ও দক্ষিণ ক্রিপুরায় ২ জন করে ও খোয়াই এবং ঢলাইতে এক জনে করে ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টে সংক্রমিত।

সংক্রমণ রুখতে ১৩ পুর এলাকায় ইতিমধ্যেই সপ্তাহহান্ত কার্ফু জারি করা হয়েছে। যা বজায় থাকছে শনিবার দুপুর ১২টা থেকে সোমবার ভোর ৫টা পর্যন্ত। আংশিক লকডাউনের মেয়াদ ১৭ জুলাই পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ত্রিপুরায় ৬৯,৫৫০ জন কোভিড আক্রান্ত। মৃত্যু হয়েছে ৫৭৪ জনের। পজিটিভিটির হার ৫.১৫ শতাংশ। ত্রিপুরায় দৈনিক করোনা পজিটিভিটি রেট হল ৬.৬২ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here