‘পরেশ তো ফেঁসে গেছে-পার্থও টেঁসে গেছে’, SSC দুর্নীতি কাণ্ডে নজিরবিহীন কটাক্ষ বামেদের।

যারা ঘুষ খেয়ে চাকরি বিক্রি করলেন তাঁদের ফেরত দিতে হবে টাকা!
Those who took bribes and gave jobs will have to pay back the money!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ রাজ্যের দুই মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও পরেশ অধিকারীর নাম আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়েছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়োগ দুর্নীতিতে। তাই এই দু’জনকে নিয়েই এবার কটাক্ষের গান সিপিএমের। সোশ্যাল মিডিয়া ছেয়ে গিয়েছে ‘পার্থ-পরেশ ফেঁসে গিয়েছে’ শীর্ষক নতুন প্যারোডি গানে। বসন্ত এসে গেছে গানের সুরে নতুন কটাক্ষের গান বেঁধেছে সিপিআইএম। দলের সমস্ত শীর্ষ নেতারা সেই গান শেয়ার করেছেন সামাজিক মাধ্যমে।

আরও পড়ুনঃ SSC: অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, প্রতারণা, জালিয়াতি। CBI-এর নয়া FIR-এ চরম বিপাকে পার্থ!

স্কুল সার্ভিস কমিশনে নিয়োগের ক্ষেত্রে পাহাড়-প্রমাণ দুর্নীতির অভিযোগ প্রকাশ্যে এসেছে। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে এই দুর্নীতির তদন্ত করছে সিবিআই। নিজাম প্যালেসে ডাক পড়ছে প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় থেকে শুরু করে রাজ্যের বর্তমান শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর। দুজনকেই ম্যারাথন জেরা করেছে সিবিআই। দুই মন্ত্রীর বয়ানেই ব্যাপক অসঙ্গতি পেয়েছেন কেন্দ্রিয় গোয়েন্দারা।

‘পরেশ তো ফেঁসে গেছে-পার্থও টেঁসে গেছে’, SSC দুর্নীতি কাণ্ডে নজিরবিহীন কটাক্ষ বামেদের।
‘পরেশ তো ফেঁসে গেছে-পার্থও টেঁসে গেছে’, SSC দুর্নীতি কাণ্ডে নজিরবিহীন কটাক্ষ বামেদের।

CBI সূত্রের খবর, সঙ্গে করে আনা নথি সিবিআইয়ের কাছে জমা দেন পরেশ অধিকারী। তাকে প্রশ্ন করা হয়, SSC-র মেধাতালিকায় কত নম্বরে নাম ছিল তাঁর মেয়ে অঙ্কিতার? অঙ্কিতা কবে স্কুলের চাকরিতে যোগ দেন? মেয়ের চাকরি পাওয়া এবং কাজে যোগদানের মাঝের সময়টায় পরেশ কার কার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করেছিলেন? অঙ্কিতার বিষয়ে তাঁদের সঙ্গে কী কথা হয়েছিল? টানা ৩ দিন সর্বমোট সাড়ে ১৬ ঘন্টা ধরে জেরা করা হয় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীকে। মূলত, ‘নিয়োগ দুর্নীতির নেপথ্যে কোন প্রভাবশালীর হাত রয়েছে?’ সেটা খুঁজে বের করতে চান গোয়েন্দারা।

paresh 5

অন্যদিকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও স্বস্তি দেয়নি হাইকোর্ট – সিবিআই কেউই। তার নামেও পাহাড় প্রমান অভিযোগ। সুরক্ষা পেতে ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানালেও তা গ্রাহ্য করেনি হাইকোর্ট। এদিকে গতকালই নতুন এফআইআর করেছে সিবিআই। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০(বি)(অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র), ৪১৭(প্রতারণা), ৪৬৫(জালিয়াতি) এবং ৩৪ নম্বর ধারায় মামলা।

‘পরেশ তো ফেঁসে গেছে-পার্থও টেঁসে গেছে’, SSC দুর্নীতি কাণ্ডে নজিরবিহীন কটাক্ষ বামেদের।

partha 7

জামিন অযোগ্য ৪৬৮ নম্বর ধারাতেও মামলা দায়ের করা হয়েছে। যে উপদেষ্টা কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে যামিন অযোগ্য ধারায় এফআইআর করা হয়েছে সেই কমিটির অনুমোদন দিয়েছিলেন তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। আর সেকথা উল্লেখ করা হয়েছে এফআইআরে। এই পরিস্থিতিতে সিপিআইএম গান বেঁধেছে নিয়ে পার্থ-পরেশ কে নিয়ে। কি সেই গান? শুনুন।