তৃণমূলের নেতাদের ‘মানভঞ্জন’-এ পিকের দল,বৈঠক না করেই উত্তরবঙ্গ থেকে ফিরলেন অভিষেক

তৃণমূলের নেতাদের ‘মানভঞ্জন’-এ পিকের দল,বৈঠক না করেই উত্তরবঙ্গ থেকে ফিরলেন অভিষেক

নজরবন্দি ব্যুরো : তৃণমূলের নেতাদের ‘মানভঞ্জন’-এ পিকের দল,বৈঠক না করেই উত্তরবঙ্গে থেকে ফিরলেন অভিষেক। নির্ধারিত সময়ে শিলিগুড়িতে তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বৈঠক না করেই কলকাতায় ফিরলেন, তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে বৈঠকের সময় সূচী আগে থেকেই নির্ধারিত হওয়া সত্ত্বেও কেন বৈঠকে গেলেন না অভিষেক? উঠছে প্রশ্ন। সূত্রের খবর, দক্ষিণ দিনাজপুর থেকে রাতে ফিরে শিলিগুড়ির মাল্লাগুড়ি এলাকার একটি হোটেলে ছিলেন অভিষেক।

আরও পড়ুনঃ ফের নক্ষত্রপতন, প্রয়াত গুজরাতের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী, শোকপ্রকাশ মোদীর

শুক্রবার সকাল ১০টা নাগাদ তিনি হোটেল থেকে সোজা উত্তরকন্যার কন্যাশ্রীতে যাবেন বলে কথা হয়েছিল। কিন্তু সেখানে শিলিগুড়ির নেতাদের সঙ্গে আর একদফায় ‘ঘরোয়া বৈঠক’ করবেন। তারপর বেলা একটা নাগাদ সেখান থেকে বিমানবন্দর হয়ে কলকাতায় ফিরবেন তিনি। তবে তা কিন্তু দেখা গেল না। সকালেই কলকাতায় ফিরলেন অভিষেক। গভীর রাতেই স্থানীয় পুলিশ–প্রশাসনকে তাঁর কলকাতায় ফেরার বিষয়টি জানানো হয়।

তৃণমূলের নেতাদের ‘মানভঞ্জন’-এ পিকের দল,বৈঠক না করেই উত্তরবঙ্গে থেকে ফিরলেন অভিষেক। দুপুরের পরিবর্তে সকাল ১১টা নাগাদ বিমান ধরে তৃণমূল সাংসদ কলকাতা ফেরার আগে স্থানীয় নেতৃত্বকে বার্তা দেন, আগামীতে ফের এসে বৈঠক করবেন তিনি। তবে এবিষয়ে,দার্জিলিং জেলা তৃণমূল মুখপাত্র বেদব্রত দত্ত বলেছেন, “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের শিলিগুড়িতে একটা বৈঠকের কথা ছিল। তা হয়নি। পরে হবে।” অন্যদিকেই এই পরিস্থিতিতে শিলিগুড়িতে অভি‌ষেকের প্রথম দিনের বৈঠকে ডাক না পাওয়া নেতা–নেত্রীদের ‘মানভঞ্জন’ করার চেষ্টায় জেলা নেতৃত্ব ও প্রশান্ত কিশোরের টিম। অন্য জেলাগুলিতেও সেই কাজ শুরু হয়েছে। দলের পুরনো নেতানেত্রীদের অনেকেই এখন নেতৃত্বের উপর ক্ষুব্ধ।

এবিষয়ে জেলা কমিটির প্রাক্তন দুই নেতা জানান, “গ্রামের দিক থেকে ব্লকের নেতাদের সবাইকে ডাকা হয়। শহরের ক্ষেত্রে অনেকে‌ই বাদ পড়েন। সংগঠন নিয়ে বৈঠকে অন্যরকম কথা শোনার ভয়ে নেতৃত্বের একাংশ ইচ্ছা করেই তা করেছিল। তাই এখন পিকের লোকজন আলোচনার কথা বলছেন।” তবে বাগডোগরা দলীয় দফতরে মাটিগাড়া–নকশালবাড়ি বিধানসভার এলাকার নেতা–কর্মীদের নিয়ে এদিন বৈঠক হয়। সেখানে বুথে বুথে ১০০টি করে পতাকা লাগানো থেকে শুরু করে, ১২ জানুয়ারি বিবেকান্দের জন্মদিন, ২৩ জানুয়ারি নেতাজি জন্মজয়ন্তী পালন এবং সাংগঠনিক নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x