কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট, আদালতকে জানাল রাজ্য

নিয়োগ নিয়ে ফের মামলা হাইকোর্টে, ডিভিশন বেঞ্চে এসএসসি

নজরবন্দি ব্যুরোঃ একাধিক বিতর্কের মাঝেই পুরভোট ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এতেও বিতর্কের অবসান হচ্ছে না। রাজ্যের সমস্ত পুর এলাকার নির্বাচনের দাবীতে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। পাল্টা রাজ্যের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী এপ্রিলের মধ্যে রাজ্যের সমস্ত পুরভোটের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। 

আরও পড়ুনঃ Kolkata Municipal Election: ১৯ ডিসেম্বর কলকাতায় পুরভোট, কী নিয়মাবলী?

বিজেপির তরফে এদিন আদালতে জানানো হয়েছে, আদালতে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরেও কীভাবে ভোটের বিজ্ঞপ্তি? মামলা বিচারাধীন আদালত কেন পদক্ষেপ নেবে না? পাল্টা রাজ্য সরকারের আইনজীবী জানিয়েছেন, হলফনামায় আগেই জানানো হয়েছিল ১৯ ডিসেম্বর ভোট হবে। কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট এই প্রশ্নের জবাবে আদালতের কাছে আইনজীবী জানান, এপ্রিলের মধ্যে রাজ্যের সমস্ত পুরভোটের পরিকল্পনা রয়েছে রাজ্য সরকারের।

বৃহস্পতিবার পুরভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। আগামী কাল প্রার্থী ঘোষণা করতে পারে তৃণমূল। একাধিক কো অর্ডিনেটরদের বাদ পড়ার সম্ভাবনা। আসতে পারে নতুন একাধিক মুখ। তবে পুরভোট নিয়ে জল মেপেই মাঠে নামতে চাইছে বিজেপ[ই। কারণ, বিধানসভা নির্বাচনে ৭৭ টি আসন পাওয়ার পর উপনির্বাচনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে তাঁদের। এমত অবস্থায় ঘুরে দাঁড়াতে পুর নির্বাচনের ওপর ভরসা রাখতে চাইছে পদ্ম শিবির

১ ডিসেম্বর মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন। ২ ডিসেম্ববর থেকে শুরু হবে স্ক্রুটিনি। মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন ৪ ডিসেম্বর। ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে সমস্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া শেষ করার নির্দেশ কমিশনের। পুরভোতে কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবেন? এর উত্তরে নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে ডিজি দেওয়া রিপোর্টের ভিত্তিতেই এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট, এখন নয় হাওড়ায় 

কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট, এখন নয় হাওড়ায় 
কবে হবে রাজ্যের সমস্ত পুরভোট, এখন নয় হাওড়ায়

কলকাতা পুরসভার দিনক্ষন ঘোষণা হলেও এখনও অবধি হাওড়ার পুরভোট নিয়ে কোনও কিছুই জানানো হয়নি। এতে কমিশনের বক্তব্য, যেহেতু রাজ্যের তরফে কোনও কিছু জানানো হয়নি। তাই হাওড়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি নির্বাচন কমিশন। যদিও তৃণমূল নেতারদের বক্তব্য হাওড়া পুরনিগম থেকে বালি পুরসভাকে আলাদা করার প্রস্তাব সম্প্রতি পাশ করা হয়েছে। কিন্তু তা ফিরিয়ে দিয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। পরে ট্যুইট করে ১৮ টি প্রশ্ন তুলে ধরেছেন তিনি।