স্মৃতি বিস্মরণ নাকি ইচ্ছাকৃত ভুল? শোভনকে পাশে নিয়েই নারদা নিয়ে তোপ বৈশাখীর

স্মৃতি বিস্মরণ নাকি ইচ্ছাকৃত ভুল? শোভনকে পাশে নিয়েই নারদা নিয়ে তোপ বৈশাখীর

নজরবন্দি ব্যুরোঃ স্মৃতি বিস্মরণ নাকি ইচ্ছাকৃত ভুল, সকল জল্পনার পর গেরুয়া শিবিরের হয়ে সোমবার পথে নেমেছেন শোভন-বৈশাখী। গত ৪ জানুয়ারি প্রায় একদম শেষ মুহূ্র্তে এসে মিছিলে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যয় । দুজনেই অসুস্থ বলে দলীয় নেতৃত্বকে জানিয়েছিলেন বলে খবর । তখন দুই নেতার সিদ্ধান্তে রীতিমতো অস্বস্তিতে পড়ে যায় গেরুয়া শিবির। তবে শেষ অবধি এদিন বিজেপির মিছিলে পা মেলালেন তাঁরা। যদিও নব্য বিজেপি নেত্রী বৈশাখীর মন্তব্যের জেরে কিছুটা অস্বস্তিতে পড়েছে গেরুয়া শিবির।

আরও পড়ুনঃ বৈশাখীকে পাসে নিয়ে গোলপার্কের সভা থেকে দিদির জন্য ‘দুঃখপ্রকাশ’ শোভনের।

এদিনের র‍্যালির একেবারে সামনের সারিতে থাকবেন শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। গোলপার্ক থেকে শুরু হয়ে এই র‍্যালি যায় সেলিমপুর পর্যন্ত। এদিন নিজের বিশেষ বন্ধু শোভনকে পাশে নিয়েই বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় হাইপ্রোফাইল নারদ ঘুষকান্ড নিয়ে তৃণমূলকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, সম্প্রতি তৃণমুলের এক নেতাকে বলতে শুনেছিলাম যে কে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়? তাঁকে তো চিনি না। আমি বলি আপনারা আমাকে না চেনাই ভালো। যিনি ঘুষের টাকা নেন তেমন মানুষের আমাকে চিনতে না পারাই উচিৎ।

অন্যদিকে বৈশাখীকে পাশে নিয়ে গোলপার্কের সভা থেকে দিদির জন্য ‘দুঃখপ্রকাশ’ শোভনের। বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলবদলের পালা চলছে রাজ্য রাজনীতিতে। কিছুদিন আগেই প্রাক্তন মন্ত্রী বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারি যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। এছাড়াও দলের একাধিক নেতা মন্ত্রী পথ ধরেছেন বিজেপির। তারপর থেকে তৃণমূলের যুব সভাপতিকে নানা ভাষায় তীব্র আক্রমন করেছে তারা।

স্মৃতি বিস্মরণ নাকি ইচ্ছাকৃত ভুল, এদিকে দীর্ঘদিন বিজেপিতে যোগ দিলেও সক্রিয় ভাবে না দেখতে পাওয়া মুখ্যমন্ত্রীর একদা প্রিয় ‘কানন’ শোভন চট্টোপাধ্যায় আজ বান্ধবী বৈশাখীকে পাসে নিয়ে গোলপার্কে বিজেপির সভায় যোগ দেন। আর সভা থেকেই তৃণমূল তথা অভিষেককে তীব্র ভাষায় আক্রমন করলেন তিনি। অভিষেককে নাম না করে ‘সোনার গোপাল’ বলে কটাক্ষ করেন। তার জন্য চলতি বছরের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ফলাফল খারাপ হবে বলেই দাবি তাঁর। সভা থেকে প্রিয় দিদির জন্য দুঃখপ্রকাশও করেন শোভন। তিনি বলেন ‘আমি যখন তৃণমূলে ছিলাম এমন ছিল না। তৃণমূলের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x