বাংলায় ক্ষমতায় এলেই ‘লাভ জেহাদ’ বিরোধী আইন পাস, বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতার

বাংলায় ক্ষমতায় এলেই ‘লাভ জেহাদ’ বিরোধী আইন পাস, বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপি নেতার

নজরবন্দি ব্যুরো: বাংলায় ক্ষমতায় এলেই ‘লাভ জেহাদ’ বিরোধী আইন পাস, সামনেই আর কয়েকটা মাস। তার পরই বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন। আর বাংলা দখলে মরিয়া বিজেপি ইতিমধ্যে কোমর বেঁধে নেমেছে। দুর্গাপুর মেনগেট এলাকায় এক জনসভা করে বিজেপি। ওই জনসভায় মুল বক্তা ছিলেন মধ্যপ্রদেশের স্বরাস্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র।এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্য বিজেপির সহ পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন, সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া।

আরও পড়ুন: অন্য দেশকে ‘উপদেশ’, অথচ ভারতে সংখ্যালঘুদের অবস্থা ক্রমশ খারাপ হচ্ছে: মেহবুবা

এদিন ভোজপুরি ভাষায় বক্তব্যে উপস্থিত হিন্দিভাষীদের মন জয় করেন সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া। একইসঙ্গে মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র আগাগোড়া তৃণমূল ও কংগ্রেসকে আক্রমন করে সন্ত্রাসবাদীদের কড়া বার্তা দেন। এদিন তিনি বলেন,”পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ধারা ৩৭০ লাগু করে কশ্মীর বিভাজনে কোনও খামতি রাখেনি নেহেরু-গান্ধীর পরিবার। কারণ অখন্ড ভারত নেহেরু গান্ধীর পরিবারে বেইমানি আছে। প্রনবদা অনেক দেরিতে বুঝতে পেরেছিল। শেষ মুহুর্তে।” এদিন তিনি দিল্লীর কৃষক আন্দোলনে কংগ্রেসকে নিশানা করে বলেন,” কালা কানুন ফেরত নেওয়ার কথা বলছে। কালা কানুনে কালা কি আছে সেটা কেউ বলতে পারছে না।”

তিনি বলেন,” আমরা লিখে দিচ্ছি মান্ডি বন্ধ হবে না। ওরা মানছে না।” তিনি বলেন,” বন্ধু এরা ওই লোক আছে, টুকরে টুকরে গ্যাঙের’ লোক। এরা ওই লোক আছে, যারা জেএনইউতে শ্লোগান তুলে ছিল ভারত তেরে টুকরে হোঙ্গে, ইনশে আল্লা, ইনশা আল্লা। এরা ওই লোক আছে, যারা বলেছিল ‘আফজল হাম শরমিন্দা হ্যায় তেরে কাতিল জিন্দা হ্যায়। তুম কিতনে আফজল মারোগে, হর ঘর সে অফজল নিকলে গা’। আর সবার আগে রাহুল গান্ধী গিয়েছিল। কেজরিওয়াল গিয়েছিল, মমতা ব্যানার্জী সমর্থন করেছিল।”

এদিন তিনি হুঙ্কার দিয়ে আরও বলেন,” মমতা দিদি, আমরা ঘরে ঢুকে মারব। যে ঘরে থেকে আফজল বেরিয়েছিল। আমাদের নীতি স্পষ্ট। ফাঁকা আওয়াজ করি না। ফ্রান্সের ঘটনায় হিন্দুস্থানে আগুন লাগানোর কথা বলেন। বিজেপি সন্ত্রাসবাদ সহ্য করবে না।” তিনি আরও বলেন,” একসময় পশ্চিমবাংলায় হিন্দুস্থানের রোজগার দিত। আজ লকডাউনে বুঝিয়ে দিয়েছে মহারাষ্ট্র, গুজরাট থেকে কিভাবে বাংলার লোক ফেরত এসেছে।” তিনি আরও বলেন,” যে পশ্চিমবাংলায় দেশকে পথ দেখিয়েছে। আধাত্মিক, আর্থিক, ধর্মীয় সাংস্কৃতিতে। আজ কি নজর লেগেছে, কলকারখানা বন্ধ, শুধু লুট হচ্ছে। তাই একটা সুযোগ আসছে। যে কলকাতা, দুর্গাপুরে বিজেপি কর্মীরা পতাকা লাগাতে ভয় পেত, এখন সেখানে বিজেপির পতাকায় মোড়া। যুব সমাজের উৎসাহ আর চোখ বলছে বাংলায় বিজেপি আসছে। কারন জনতা উঠে দাঁড়িয়েছে।


বাংলায় ক্ষমতায় এলেই ‘লাভ জেহাদ’ বিরোধী আইন পাস, তিনি বলেন, ” সত্যিকারের স্বাধীনতা সংগ্রামের ছায়ায় সমৃদ্ধ হয় এবং ইতিহাস তার মেজাজকে বদলে দেয় যুবসমাজরা যেদিকে যায়।” পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি সরকার গঠন হওয়ার পরই মধ্যপ্রদেশের মতোই গো-সংরক্ষন আইন ও লাভ জিহাদের মতো অপরাধ দমনে আইনটি পাস করা হবে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x