একই ভ্যাক্সিনের ৩ রকম দাম কেন? ব্যাবসা হচ্ছে? মোদীকে পত্রবোমা মমতা-সোনিয়ার।

একই ভ্যাক্সিনের ৩ রকম দাম কেন? ব্যাবসা হচ্ছে? মোদীকে পত্রবোমা মমতা-সোনিয়ার।
একই ভ্যাক্সিনের ৩ রকম দাম কেন? ব্যাবসা হচ্ছে? মোদীকে পত্রবোমা মমতা-সোনিয়ার।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ একই ভ্যাকসিনের ৩ রকম দাম কেন? প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। কদিন আগেই কেন্দ্র সিদ্ধান্ত নেয় আগামী ১ মে থেকে ১৮ উর্ধ্ব ব্যক্তিদেরও টিকা দেওয়া যাবে, এবং এবার থেকে ভ্যাকসিন খোলা বাজারে বিক্রি করতে পারবে প্রস্তুতকারী সংস্থারা। পাশাপাশি রাজ্যসরকার সরাসরি ভ্যাকসিন কিনে জনগনকে দিতে পারবে।

আরও পড়ুনঃ প্রতি মিনিটে ৯ জন সংক্রামিত, ২৫ মিনিটে একটি মৃত্যু! করোনার করাল গ্রাসে বাংলা।

কেন্দ্রের ঘোষণার পরেই সেরাম কর্তা আদল পুনওয়ালা একই ভ্যাকসিনের ৩ রকম দাম ঘোষনা করেন। সেরামের পক্ষ থেকে বলা হয়। কেন্দ্রীয় সরকার কে তাঁরা ভ্যাকসিন দেবে ডোজ পিছু ১৫০ টাকা। কিন্তু সেই একই ভ্যাকসিনের জন্যে রাজ্য সরকার কে দিতে হবে ৪০০ টাকা। এখানেই শেষ নয়, আদর কঠোর ভাবে জানান বেসরকারি হাসপাতাল গুলোর জন্যে ডোজ পিছু দাম ধার্য করা হয়েছে ৬০০ টাকা। এই ঘোষণার পরেই ব্যাপক ক্ষুব্ধ হন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতার প্রশ্ন, এক দেশে একই ভ্যাকসিনের দামে এত ফারাক কেন? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কে। চিঠিতে তিনি লিখেছেন। “এক ভ্যাকসিনের একটাই দাম হবে। একটা ভ্যাকসিনের অনেকগুলো দাম কেন হবে? প্রত্যেকটা ভ্যাকসিন এমারজেন্সি। এটা ব্যবসা করার জায়গা নয়। এক দামে দিতে হবে।” মমতার প্রশ্ন, কেন কেন্দ্রের তুলনায় ভ্যাকসিনের ডোজ পিছু রাজ্য সরকারগুলিকে ১৬৭ শতাংশ বেশি দাম দিতে হবে? এই সিদ্ধান্তকে যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো এবং গরিব বিরোধী বলে আখ্যা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলির জন্য যে দাম ধার্য হয়েছে তাতে কালোবাজারি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন মমতা।

একই ভ্যাকসিনের ৩ রকম দাম কেন? এই ইস্যুতে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীও চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীকে। চিথিতে তিনি লিখেছেন, “কেন এভাবে একই ভ্যাকসিনের দাম তিন রকম ধার্য করা হচ্ছে? সরকার কিভাবে এই দামের ক্ষেত্রে অনুমোদন দিচ্ছে?” সোনিয়ার কথায়, “এরকম একটা সময় যখন হাসপাতালের বেড পাওয়া যাচ্ছে না, পর্যাপ্ত অক্সিজেন পাওয়া যাচ্ছে না, জরুরি ওষুধপত্র মিলছে না, সেখানে সরকারের এই ধরনের অসংবেদনশীল সিদ্ধান্তে শিলমোহর দেওয়া উচিত নয়।” জীবনদায়ী ভ্যাকসিনে ক্ষেত্রে অন্তত স্বচ্ছতা রাখুক কেন্দ্র, বলে মোদীকে কটাক্ষ করেছেন সোনিয়া গান্ধী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here