ফের ২১ কোটির দুর্নীতিতে নাম জড়াল পার্থর, এবার কি মোহরা ঘনিষ্ঠ অধ্যাপিকা?

ফের ২১ কোটির দুর্নীতিতে নাম জড়াল পার্থর, এবার কি মোহরা ঘনিষ্ঠ অধ্যাপিকা?
ফের ২১ কোটির দুর্নীতিতে নাম জড়াল পার্থর, এবার কি মোহরা ঘনিষ্ঠ অধ্যাপিকা?

নজরবন্দি ব্যুরোঃ কোটি টাকার SSC কান্ডের পর এবার ফের শিক্ষাক্ষেত্রে ২১ কোটির দুর্নীতির অভিযোগ উঠল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে। আর এই ঘটনায় নাম জড়াল পার্থর। কোভিড মহামারির সময় রাজ্যের স্কুল কলেজ বন্ধ থাকাকালীন প্রায় ২১ কোটি টাকা দিয়ে এক বেসরকারি সংস্থাকে স্টুডেন্ট লাইফ সাইকেল নামে একটি প্রকল্পের বরাত দেয় বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুনঃ ক্লাবে গিয়ে টাকা ওড়াত অর্পিতা, টাকা লাগাত অনলাইন জুয়াতেও

ওই প্রকল্পেই অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ ঠিক কি? স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের রেজিস্ট্রেশন, মার্কশিট, অ্যাডমিট কার্ড তৈরি করার বরাত দেওয়া হয় এক বেসরকারি সংস্থাকে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ৩ বছরের চুক্তি হয়। এর আগে মাত্র কয়েক লক্ষ টাকার বিনিময়ে এ কাজ নিজেই করত বিশ্ববিদ্যালয়। অভিযোগ, তিন বছর আগে ফিনান্স অফিসার বদল হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে ২১ কোটি টাকা বরাত দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

15 20

নতুন ফিনান্স অফিসার নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালের এক অধ্যাপিকার ঘনিষ্ঠ। যিনি আবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বলে সূত্র বলছে। যেখানে মার্কশিট, অ্যাডমিট কার্ড তৈরি করতে মাত্র কয়েক লক্ষ টাকায় কাজ হয়ে যেত, কেন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ২১ কোটি টাকা দিয়ে বরাত দিল এক বেসরকারি কোম্পানিকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আধিকারিকদের একাংশ অভিযোগ তুলছেন, কোভিড কালের পর থেকে আজও ছাত্র-ছাত্রীরা অ্যাডমিট কার্ড- শংসাপত্রের হার্ড কপি হাতে পাননি।

17 21

ফের ২১ কোটির দুর্নীতিতে নাম জড়াল পার্থর, এবার কি মোহরা ঘনিষ্ঠ অধ্যাপিকা?

18 18

তাহলে কোথায় গেল সে সব অ্যাডমিট ও শংসাপত্র? কিন্তু অ্যাডমিট ছাড়া পরীক্ষা হল কী করে? যাঁরা পরীক্ষা দিলেন তাঁদের উপস্থিতি নথিভুক্ত করা হল কী করে? উঠছে সেই প্রশ্ন। তবে অ্যাডমিট ছাড়া পরীক্ষা দেওয়ার কথা মেনে নিয়েছেন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালের পরীক্ষা নিয়ামক অনিন্দ্যজ্যোতি পাল। যদিও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি অনলাইনে মার্কশিট দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাহলে কী কাজ করছে ভারপ্রাপ্ত সংস্থা? এই প্রশ্নেই বাড়ছে বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে।