মুকুলের স্ত্রীকে ‘অত্যন্ত কাছের’ ও ‘মাতৃসমা’ বললেন অভিষেক, সৌজন্যে আপ্লূত শুভ্রাংশু।

মুকুলের স্ত্রীকে 'অত্যন্ত কাছের' ও 'মাতৃসমা' বললেন অভিষেক, সৌজন্যে আপ্লূত শুভ্রাংশু।
মুকুলের স্ত্রীকে 'অত্যন্ত কাছের' ও 'মাতৃসমা' বললেন অভিষেক, সৌজন্যে আপ্লূত শুভ্রাংশু।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ মুকুলের স্ত্রীকে ‘অত্যন্ত কাছের’ ও ‘মাতৃসমা’ বললেন অভিষেক, সৌজন্যে আপ্লূত শুভ্রাংশু।বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সভাপতি মুকুল রায়ের স্ত্রীকে তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দেখতে যাওয়ার পরেই তুমুল জল্পনা শুরু হয় রাজ্য রাজনীতিতে। কানাঘুষো শোনা যায় বার মুকুল রায়ের সঙ্গে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের দূরত্ব ঘুচতে চলেছে! সকলের মনেই প্রশ্ন, তবে কি ঘর ওয়াপসি হবেন মুকুল? তবে অভিষেক বারবার জানিয়েছেন এ শুধুই কাছের মানুষকে দেখতে যাওয়া। এর সাথে রাজনীতির কোন রাজনৈতিক সম্পর্ক নেই।

আরও পড়ুনঃ মমতাময়ী মুখ্যমন্ত্রী, এবার থেকে করোনায় মৃতের দেহ পাবে তার পরিবার।

আর আজ একধাপ এগিয়ে নিজের মায়ের সাথে একই আসনে বসিয়ে অভিষেক বললেন “মুকুল রায়ের স্ত্রী হিসেবে ওনাকে দেখতে যাইনি। ছোট থেকেই ওঁদের চিনি। অত্যন্ত নিবিড় সম্পর্ক। উনি বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের স্ত্রী হতেই পারেন, তবে আমার মাতৃসম। ছোট থেকেই ওনার সান্নিধ্য পেয়েছি। আমার খুবই কাছের। তাই যখনই ওনার অসু্স্থতার খবর পেয়েছি, ভেবেছি হাসপাতালে যাব। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই।” একই সুর বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের গলাতেও। তিনিও দাবি করেছেন, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাসপাতালের যাওয়ার নেপথ্যে রাজনীতি নেই। প্রসঙ্গত রায় পরিবারের সঙ্গে একদা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের সম্পর্ক কতটা নিবিড় ছিল তা কারও অজানা নয়। পরবর্তীতে মুকুল ও শুভ্রাংশু দল ছেড়ে যোগ দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে। স্বাভাবিকভাবেই দূরত্ব তৈরি হয়েছে।

যোগাযোগে ছেদ পড়েছে। যদিও কয়েকদিন আগে শুভ্রাংশু রায়ের করা ফেসবুক পোস্ট তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। অন্যদিকে, কৃষ্ণাদেবীকে দেখতে দিলীপ ঘোষের হাসপাতালে যাওয়া নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন খোদ মুকুল রায়। যা বিজেপির সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। এদিকে এই দেখতে যাওয়া নিয়ে সৌজন্যতায় মমতা- অভিষেকের প্রতি আপ্লূত মুকুল পুত্র। ভ্রাংশু বক্তব্য, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাদের পারিবারিক সম্পর্ক অনেক দিনের। আদতে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক বহুদিনের। সেই প্রেক্ষিতে তাঁর মাকে অভিষেক যথেষ্ট সম্মান দেন এবং এর আগেও বহুবার খোঁজ নিয়েছেন শারীরিক অবস্থার।

মুকুলের স্ত্রীকে ‘অত্যন্ত কাছের’ ও ‘মাতৃসমা’ বললেন অভিষেক, সৌজন্যে আপ্লূত শুভ্রাংশু। সেই প্রেক্ষিতে অন্য দলের হয়েও তিনি হাসপাতালে ছুটে এসেছেন তাঁর মাকে দেখার জন্য এটা নজিরবিহীন। একই সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংসা করে তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী এত কাজের মধ্যেও তাঁর মায়ের খোঁজ নিয়েছেন অনেকজনের মাধ্যমে। অবশ্যই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তিনি কৃতজ্ঞ। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেও এইভাবে একজন মানুষ একজনের খোঁজ নিচ্ছেন এটাও অত্যাশ্চর্য ব্যাপার বলে মনে করছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here