মুখ্যসচিব বাঙালি বলেই কি এত রাগ? মোদীকে তুলোধনা মমতার।

মুখ্যসচিব বাঙালি বলেই কি এত রাগ? মোদীকে তুলোধনা মমতার।
মুখ্যসচিব বাঙালি বলেই কি এত রাগ? মোদীকে তুলোধনা মমতার।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ মুখ্যসচিব বাঙালি বলেই কি এত রাগ? আলাপন প্রসঙ্গে মুখ খুলেই মোদী এবং কেন্দ্র সরকারের কাছে মমতা যে কয়েকটি প্রশ্ন রেখেছেন, ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ প্রশ্ন এটাই। গতকাল থেকে রাজ্য জুড়ে একপ্রকার পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি চলছে আলাপনের বদলি নিয়ে।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্র ফিরিয়ে নিক আলাপনের দিল্লি ডাক, বাংলার স্বার্থে মোদির পায়ে ধরতেও রাজি মমতা

রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়, গতবছরের করোনা কাল থেকে এবারের দ্বিতীয় ঢেউ। গত বছরের আমফানের তান্ডব থেকে এবারের ইয়াস মোকাবিলা, মাঝে রাজ্যের ২১ এর হাইভোল্টেজ নির্বাচন। প্রশাসনিক ক্ষমতার শীর্ষে থেকে সামলেছেন সকল দিক। তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় ফিরে তাঁর মেয়াদ ৩ মাস বাড়ানর জন্য আবেদন করেছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। দিল্লি থেকে সম্মতিও এসেছিল। অথচ গতকাল মুখ্যসচিব প্রশাসনিক সঙ্গী হিসেবে যখন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দিঘা পরিদর্শনে ছিলেন, তখন দিল্লি নোটিস পাঠায় আলাপনের

আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় কে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে আগামী ৩১ তারিখ সোমবার, সকাল ১০টায় তাঁকে দিল্লিতে কর্মিবৃন্দ ও প্রশিক্ষণ মন্ত্রকে হাজিরা দিতে হবে। রাজ্যকে বলা হয়েছে, ক্যাবিনেট কমিটির বৈঠকে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেন্দ্রের কাজে নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাঁকে যেন রাজ্য সরকার মুখ্যসচিবের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়।

এই খবরের পর রাজ্যের সকল রাজনৈতিক দল সাধারণ মানুষ রাগ-ক্ষভ-প্রতিহিংসার গন্ধ পেলেও সকলেই তাকিয়ে ছিলেন কী বলছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী। নবান্ন’র থেকে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন বিজেপি প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে। বাংলায় ক্ষমতা কায়েম করতে পারেনি ২১ এর নির্বাচনে তাই মুখ্যসচিবকে সরিয়ে জব্দ করতে চাইছে প্রশাসন।

সঙ্গে তিনি প্রশ্ন করেন আলাপনের ভুল কী? কাজের কোন গাফিলতি থেকে কোন ক্ষেত্রে অভিযোগ নেই, মেয়াদ বাড়ানোর পরেও রাজ্যের সঙ্গে কোনরকম যোগাযোগ না করেই এই ধরণে হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র স্রেফ বাংলাকে জব্দ করতে। ্বৈঠক থেকেই তিনি অনুরোধ করেছেন কেন্দ্র ফিরিয়ে নিক আলাপনের দিল্লি ডাক।

সঙ্গে মমতা তুলে এনেছেন ‘বাঙালি’ তত্বকেও। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি শুধু মাত্র বাঙালি বলেই আজ আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে এই ঘটনা ঘটাচ্ছে কেন্দ্র সরকার। তাঁর মতে বারবার রাজ্যের জন্য কাজ করেছেন মুখ্যসচিব। আমফান সামলেছেন, ইয়াসের সময়েও সামলেছেন। মমতার বক্তব্য যখন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যসচিব বিপর্যস্ত এলাকা পরিদর্শনে ব্যস্ত তখন কোন কারণ ছাড়াই, কোন অভিযোগ ছাড়াই, রাজ্যের সাথে মিনিমাম আলোচনা না করেই এই বদলি ইঙ্গিত দেয় আলাপন বাঙালি বলেই এই রাগ।

মমতার পদক্ষেপ কী হবে তার উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী জানান, তিনি ভেবেছিলেন কেন্দ্রের সঙ্গে বোঝাপড়ায় মিটিয়ে নেবেন কাজ। কিন্তু কেন্দ্র কোর্ট এবং সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইবুনালে ক্যাভিয়েট করে রেখেছে, তৈরি তাঁঘাট বেঁধে অপদস্থ করতে। তবে বারবার মমতা জনিয়েছেন আলাপন কাজের ছেলে। কোন অভিযোগ নেই, সততার সঙ্গে সকাল ৭ থেকে আত ১২টায় ফোন ধরেন কাজ করেন। এভবাএ তাঁর অপদস্থ বরদাস্ত করবেন না বলেও জানান তিনি। মমতা বৈঠক থেকেই অনুরোধ করেন এই চিঠি কেন্দ্র প্রত্যাহার করে নিক বাংলার স্বার্থে।

মুখ্যসচিব বাঙালি বলেই কি এত রাগ?  ভরা বৈঠকে মমতা এও বলেন, “বাংলা আমার কাছে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই বাংলার জন্য প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রী পায়ে পড়তে পারি। প্রধানমন্ত্রী, আমার উপর আপনার রাগ থাকতে পারে। যদি আপনার পায়ে পড়লে সেই রাগ চলে যায় তাও করতে তৈরি আমি। কিন্তু বারবার এভাবে অপমান করবেন না।” অপমানের প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী সুভাষ বোসের জন্মদিনের ঘটনাও তুলে এনে আনেন। তুলে আনেন কালকের বৈঠকের প্রসঙ্গও। মমতার কথায় ” এবারও প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রী বৈঠকের নামে বিজেপির বৈঠক ডাকা হয়েছিল। সেখানে আমরাও গিয়েছিলাম।” অনুমতি নিয়েই দিঘা গিয়েছিলেন, আগে থেকেই পরিকল্পনা ছিলোই  কিন্তু তার পরেও মিথ্যা খবর ছড়িয়ে বদনাম করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here