Ratan Tata: “আমি রতন টাটা বলছি”,এক ফোনেই বদলে গেল জীবন

"I am saying Ratan Tata", life changed in one phone call

নজরবন্দি ব্যুরো: কোন সিনেমার গল্প নয়,বরং একদম বাস্তব। একটা ফোন কল”আমি রতন টাটা বলছি,আমি তোমার চিঠি পেয়েছি। আমরা কি দেখা করতে পারি?” আর তারপরই বদলে গেল জীবন।

আরও পড়ুন:বুকে ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন, কমলেশ্বর মুখার্জি

পুণে নিবাসী এক স্টার্টআপ সংস্থার দুই কর্ণধার দিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজ স্বপ্ন ছিল দেশের অন্যতম বড় শিল্পপতি রতন টাটার সঙ্গে দেখা করার। সে স্বপ্নকেই বাস্তব করে দেখালেন রেপোজ এনার্জি নামক স্টার্টআপ সংস্থার দুই কর্ণধার। একটা ফোন আর সাক্ষাতের সুযোগেই বদলে গেল সংস্থার ভবিষ্যৎ।

"আমি রতন টাটা বলছি",ভাগ্য বদল অদিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজের
“আমি রতন টাটা বলছি”,ভাগ্য বদল অদিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজের

রেপোজ এনার্জির প্রতিষ্ঠাতা অদিতি ভোসলে নিজের Linkdin অ্যাকাউন্টে এই তথ্য শেয়ার করেছেন। তিনি লেখেন, “আমি এবং চেতন যখন স্টার্টআপ শুরু করি তখন, ইচ্ছা ছিল রতন টাটাকে মেন্টর হিসেবে পাওয়ার। সবাই এই শুনে বলেছিল, ওঁর সঙ্গে দেখা করা অসম্ভব।”

তারপর একদিন তারা দুজনে চিঠি লেখেন রতন টাটাকে। আর সেই চিঠি উত্তর না পাওয়া তারা দুইজনে চলে যায় রতন টাটা বাড়ি। কিন্তু তারপরও তার সাথে তাদের দেখা হয়না।

তাই তারা হোটেল ফিরে যায়। আর তারপরই হঠাৎ একটা ফোন আসে। ফোনে বলা হয়, “হ্যালো, আমি কি অদিতির সঙ্গে কথা বলতে পারি?” এর উত্তরে অদিতি জানতে চান, “আপনি কে বলছেন?” তখন ফোনের ওপ্রান্ত থেকে উত্তর আসে, “আমি রতন টাটা বলছি, তোমার চিঠি পেয়েছি, দেখা করতে পারি?”

“আমি রতন টাটা বলছি”,ভাগ্য বদল অদিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজের

"আমি রতন টাটা বলছি",ভাগ্য বদল অদিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজের
“আমি রতন টাটা বলছি”,ভাগ্য বদল অদিতি ভোসলে ওয়ালুঞ্জ এবং চেতন ওয়ালুনজের

আর তার পরের দিনই তাদের সাথে দেখা করেন তিনি এবং তাদের মধ্যে ৩ ঘণ্টা সাক্ষাৎকার হয়। এবং সেই সাক্ষাৎকারে তিনি তাদের উপদেশ দেন,কী ভাবে তাঁদের সংস্থা আরও উন্নতির শিখরে পৌঁছতে পারে। এবং ২০১৯ সালে ও ২০২২ সালে এই স্টার্টআপ টাটা গ্রুপ থেকে পুঁজিও বিনিয়োগ হিসেবে পায়।