কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম এখন গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষা, প্রয়াত চিকিৎসকদের সন্মান জানাচ্ছে কলকাতা

কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম এখন গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষা, প্রয়াত চিকিৎসকদের সন্মান জানাচ্ছে কলকাতা

নজরবন্দি ব্যুরো: কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম এখন গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষা, বিগত ১০ মাস ধরে ভারতে মারণ থাবা বসিয়েছে নোভেল করোনা ভাইরাস। কবে এই ভাইরাসের হাত থেকে নিষ্পত্তি মিলবে এই উত্তর জানা নেই কারোর। অন্যদিকে করোনা মোকাবিলা করতে গিয়ে আমরা আমাদের বহু প্রিয়জনকে হারিয়েছি। দিনের পর দিন, রাতের পর রাত জেগে জীবনের পরোয়া না করে মহামারীর বিরুদ্ধে লড়েছেন স্বাস্থ্যকর্মী থেকে শুরু করে চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুন: ‘মহারাজ’কে দেখতে শহরে পা দেবী শেঠীর, উডল্যান্ডসে মেডিক্যাল বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা

কেউ নতুন করে বাঁচতে শিখিয়েছেন তো পেশার তাগিদে কাউকে সাজানো সংসার ফেলে চিরবিদায় নিতে হয়েছে। আর সেই সমস্ত প্রয়াত চিকিৎসকদের সম্মান জানিয়েই এবার কলকাতায় কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম তৈরির প্রস্তাব দিল ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টর্স ফোরাম।

এ বিষয়ে ফোরামের আহ্বায়ক ডা. রাজীব পাণ্ডে জানান, কোভিড মোকাবিলায় মহামারী কালে যা যা ব্যবহার করা হয়েছে, সেই সবই থাকবে এক ছাদের তলায়। মাস্ক থেকে পিপিই কিট, জরুরি অবস্থায় ব্যবহৃত অ্যাম্বুল্যান্স থেকে করোনার নমুনা পরীক্ষার যন্ত্রপাতি- সবই চাক্ষুস করার সুযোগ পাবেন সাধারণ মানুষ। এবং সর্বোপরি যে চিকিৎসকরা এই অতিমারীর সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন, তাঁদের স্মৃতির উদ্দেশে রাখা হবে, তাঁদের ছবি এবং ব্যবহার করা নানা ডাক্তারি সামগ্রী। অর্থাৎ রাজ্য কীভাবে সংকট কালে এই মারণ ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করেছে, তা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা যাবে সাধারণের সামনে।

ডা. রাজীব পাণ্ডে আরও জানান, গত ১০০ বছরে এমন মহামারীর সম্মুখীন হয়নি বিশ্ব। লকডাউন থেকে দুনিয়াজুড়ে মৃত্যুমিছিল, কয়েক মাসের মধ্যে কতকিছুর সাক্ষীই না থাকতে হয়েছে মানুষকে। তাই শহরে এমন একটা মিউজিয়াম তৈরি করা গেলে এই মহামারীর লড়াইকে সংরক্ষিত করে রাখা সম্ভব হবে। সেই কথা ভেবেই রাজ্য সরকারের কাজে এ বিষয়ে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম এখন গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষা, প্রশাসন যদি সবুজ সংকেত দেয়, তাহলে যেখানে জমি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবে, সেখানেই এই মিউজিয়াম তৈরি করতে রাজি ফোরাম। ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টর্স ফোরামের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডা. অর্জুন দাশগুপ্তর মস্তিষ্ক প্রসূত এই কোভিড মেমোরিয়াল মিউজিয়াম বাস্তবায়িত হলে নিঃসন্দেহে আগামিদিনে তা চিকিৎসা ক্ষেত্রেও বিশেষ উপকারে লাগবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x