করোনা স্প্রেডের ফাঁস হওয়া চ্যাট ভুয়ো! ধর্ণায় বসার হুঁশিয়ারি বিজেপি সাংসদ-বিধায়কদের

করোনা স্প্রেডের ফাঁস হওয়া চ্যাট ভুয়ো! ধর্ণায় বসার হুঁশিয়ারি বিজেপি সাংসদ-বিধায়কদের
করোনা স্প্রেডের ফাঁস হওয়া চ্যাট ভুয়ো! ধর্ণায় বসার হুঁশিয়ারি বিজেপি সাংসদ-বিধায়কদের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ করোনা স্প্রেডের ফাঁস হওয়া চ্যাট ভুয়ো! ভুল চ্যাট সবার সামনে এনে বদনাম করা হচ্ছে তাঁদের, এবার সেই অভিযোগেই রাস্তায় বসে ধর্নার হুঁশিয়ারি দিলেন পুরুলিয়ার সাংসদ-বিধায়কেরা। গতকাল রাত নাগাদ ফাঁস হয় বিজেপির নেতাদের একটি হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটের স্ক্রিনশট। সেখানে দেখা গিয়েছিল পুরুলিয়া জেলার বিজেপির কোর কমিটি নামক একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে সেখানের নেতা নিদান দিয়েছেন, সরকার কে বিপদে ফেলতে এই বিপর্যয়ের সময়ে বেশি করে ছড়িয়ে পড়ুক করোনা।

আরও পড়ুনঃ আমফানের ‘চাল চুরি’র দাগ মেটাতে, এবার ‘দুয়ারে ত্রাণ’ পাঠাবেন মমতা

তার প্রেক্ষিতে আজ সকাল থেকেই কার্যত তোলপাড় পুরুলিয়া। ইতিমধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের জন্য এক সাংসদ, দুই বিধায়ক সহ মোট ছয় বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে পুরুলিয়ার থানায়। গতকালের ফাঁস হওয়া চ্যাটে দেখা গিয়েছে বিজেপির জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর নাম থেকে গ্রুপে আসা একটি ম্যাসেজে বলা হয়েছে, “ঘর পাবে বলে প্রশাসনের ত্রাণ শিবির বা স্কুলগুলিতে বেশি করে লোক ঢুকিয়ে দাও। ফলে করোনা হবে। সরকার ফাঁসবে।”  এই নির্দেশে সম্মতি দেন, রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো। যদিও ওই স্ক্রিন শটে দেখা যায় আরও অনেকে এই নির্দেশের সপক্ষে মত প্রকাশ করেননি। তার পরেই ভাইরাল হয় এই চ্যাটের স্ক্রিনশট।

সুত্রের খবর গতকাল, অর্থাৎ বুধবার বেলা বাড়তেই পুরুলিয়ায় রটে যায় এই বিপর্যয়ের দিনে ত্রাণ শিবিরে গেলে আলাদা বাড়ি পাওয়া যাবে। তার পরেই দলে দলে যাঁদের সম্পন্ন বাড়ি আচে তাঁরাও ভিড় জমাতে শুরু করেন ত্রাণ শিবির গুলিতে। পুলিশ বারবার বোঝালেও শোনেনিনি সাধারণ মানুষ। স্বাভাবিক ভাবেই সময়ের সাথে সাথে ভিড় বাড়তে থাকে শিবির গুলিতে।


তার পরই রাত নাগাদ ভাইরাল হয় পুরুলিয়ার গেরুয়া শিবিরের নেতাদের ওই কথোপকথন। যেখানে বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর নির্দেশের পর বিজেপি নেতা, সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো আবার বলেছেন, “আপনি বলে দিন। সেন্ট্রালকে বলে আমি মিডিয়াতে দিয়ে দেব। আমাদের কর্মীদেরকে বলতে হবে বেশি করে ফটো ভিডিও করে।” এই সংলাপ প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয় তীব্র বিতর্ক। এই কঠিন পরিস্থিতিতে গেরুয়া শিবিরের এই ফন্দি আঁটাকে ঘৃণ্য রাজনীতির সঙ্গে তুলনা করেছে রাজ্যের শাসক দলের নেতা কর্মীরা।

করোনা স্প্রেডের ফাঁস হওয়া চ্যাট ভুয়ো! সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের কথা সকালেই সমূলে নস্যাৎ করেছেন বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী। তাঁর মতে এসব তৃণমূলের চাল, তাঁরাই এসব করে বিজেপি নেতাদের ফাঁসাচ্ছেন। সাংসদ-বিধায়ক সহ পুরুলিয়ার বিজেপি নেতারা ঘটনার প্রতিবাদে থানায় যান, পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন পুরুলিয়া শহর তৃণমূল সভাপতি গৌরব সিংয়ের বিরুদ্ধে। গেরুয়া শিবিরের বক্তব্য ইচ্ছাকৃত ভাবে নেতাদের বদনাম করার জন্য তৃণমূল এই গ্রুপ খুলেছে। তাঁদের দাবি বিজেপির নিজেদের ওই নামের কোন গ্রুপি নেই।  শাসক দলের এই চক্রান্তের বিরুদ্ধে রাস্তায় ধর্ণার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন পুরুলিয়ার বিজেপি নেতারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here