হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁসের জের। অর্নবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের কংগ্রেসের,পাশে শিবসেনা।

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁসের জের। অর্নবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের কংগ্রেসের,পাশে শিবসেনা।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁসের জের। অর্নবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের কংগ্রেসের,পাশে শিবসেনা।একের পর এক অভিযোগ আর বিতর্ক উঠে আসছে রিপাবলিক টিভির সম্পাদক অর্নব গোস্বামীর বিরুদ্ধে।  হোয়াটসঅ্যাপের চ্যাট ফাঁস নিয়ে এখনও জোর বিপাকে অর্ণব। এবার তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলো কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠন NSUI। পুলওয়ামা হামলার পর উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে এবং জাতীয় নিরাপত্তা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁস করে আসলে মানুষের আস্থা এবং বিশ্বাস ভেঙেছেন বোলে তাঁর বীড়ূড্ডহে মামলা ডায়েড় করল NSUI।

আরও পড়ুনঃ ২০১৫’য় করা টুইটের বিরুদ্ধে FIR ২০২১ কেন? সায়নী বিষয়ে মুখ খুলছেন চলচ্চিত্র জগতের মানুষেরা

অর্ণবের নানা বক্তব্য নিয়ে একাধিকবার তৈরি হয়েছে বিতর্ক। এবার কংগ্রেসের নেতারা অর্ণবের ফাঁস হওয়া চ্যাটের ওপর ভিত্তি করে দায়ের করেছে অভিযোগ। তাঁরা পুর ঘটনার যৌথ সংসদীয় কমিটি গঠন করে তদন্তের দাবি জানিয়েছে।  কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠন জানিয়েছে বালাকোটে এয়ার স্ট্রাইকের ব্যাপারে আগে থেকেই জানতেন অর্ণব। এবং তা ঙ্কি নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই করা হয়েছিল বলে জানাচ্ছে তারা।

সম্প্রতি BARC এরপ্রাক্তন সিইও পার্থ দাশগুপ্তর সাথে অর্নবের হওয়া কিছু পার্সোনাল চ্যাট ফাঁস হয়, তাতে উঠে আসে একাধিক তথ্য। নিজের ব্যক্তিগত সুবিধার জন্য ওই ব্যক্তির সাথে জগাজর রাখতেন অর্নব। সেখান থেকেই জানা যায় বালাকোটের এয়ার স্ট্রাইকের মত অনেক কথাই আগে থেকে জানতেন অর্নব। ফাঁস হওয়া সেসব চ্যাট সামনে আসার পরই শুরু হয় আলোচনা।

কংগ্রেস নেতা মনিশ তেওয়ারিও জানিয়েছেন কেন্দ্র নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে জাতীয় নিরাপত্তার সাথে আপোস করেছিল তা অর্ণবের চ্যাট থেকেই স্পস্ট। তিনি জানিয়েছেন “সংবাদ্মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী ২০১৯ এর নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই জাতীয় নিরাপত্তার সাথে আপোস করেছিল কেন্দ্র। কোন পর্যায়ে গিয়ে বালাকটের এয়ার স্ট্রাইকের মত ঘটনাকে শুধুমাত্র নির্বাচনের জন্য করা হল, এর জন্য তদন্ত প্রয়োজন।”

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁসের জের। অর্নবের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের কংগ্রেসের,পাশে শিবসেনা। শুধু কংগ্রেস নয়, বিজেপির বিরুদ্ধে একই সুরে কথা বলছে শিবসেনাও। শিবসেনা জানাচ্ছে এভাবে দেশের নুইরাপত্তা নিয়ে কথা বলাটা একধরনের দেশদ্রোহিতা। দেশে এখন জরুরি অবস্থা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x