শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে শুরু হয়ে গেল টিকাকরন।

শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে শুরু হয়ে গেল টিকাকরন।

নজরবন্দি ব্যুরো: শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে শুরু হয়ে গেল টিকাকরন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান। অবশেষে শনিবার থেকে গোটা দেশজুড়ে শুরু হল টিকাকরণ। সেইসঙ্গে শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে শুরু হয়ে গেল টিকাকরন। জানা গিয়েছে, আজ ঠিক সকাল এগারোটায় শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে এসে টিকা নিলেন নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি। গতকাল থেকেই শিলিগুড়িসহ গোটা উত্তরবঙ্গে প্রস্তুতি তুঙ্গে চলছিলো করোনার টিকার। সেই মতো আজ জেলা হাসপাতালে চলছে করোনার টিকা নেওয়ার প্রস্তুতি।

আরও পড়ুন: ফের অপসারণ, এবার জেলার চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারিত হলেন মোয়াজ্জেম হোসেন।

বিশেষ ফ্রিজারে রাখা করোনার টিকা নেওয়ার জন্য উৎসুক ছিলেন অনেকেই। আজ সকাল থেকেই শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে করোনার টিকার জন্য লাইন পড়ে যায় এবং টিকা দেওয়া দেখবার জন্য লোকের উৎসুক্য লক্ষ্য করা যায়। সকাল নটার সময় স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজেরা এসে সমস্ত আয়োজন সম্পুর্ন করেন।এবং জেলা হাসপাতালে প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায় প্রথম করোনা টিকাকরনের।

এদিন গোটা দেশজুড়ে টিকাকরণের সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এদিন ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আজকের দিনের অপেক্ষায় ছিল দেশবাসী। করোনার ভ্যাকসিন কবে আসবে প্রশ্ন ছিল এটাই। বিশ্বের সবথেকে বড় টিকাকরণ ভারতে।

তিনি আরও বলেন, ‘কয়েক মিনিটের মধ্যেই বিশ্বের সর্ববৃহৎ টিকাকরণের সূচনা। বৈজ্ঞানিকদের ভ্যাকসিনের জন্য প্রশংসা প্রাপ্য। ভারতে তৈরি ২টি ভ্যাকসিনের টিকাকরণ। খুব কম সময়ে জোড়া ভ্যাকসিন তৈরি হয়েছে। ওঁরা দিন রাত এক করে কাজ করেছেন। ভ্যাকসিন তৈরি হতে অনেক সময় লাগে। ‘প্রথমে টিকা পাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীরা ভ্যাকইনের প্রথম হকদার। এদের সংখ্যা প্রায় ৩ কোটি। এঁদের ভ্যাকসিন দেওয়ার সব খরচ বহন করবে ভারত সরকার। প্রথম টিকার পর দ্বিতীয় ডোজ কবে তা জানিয়ে দেওয়া হবে ফোনে।’ বার্তা প্রধানমন্ত্রীর।

শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালে শুরু হয়ে গেল টিকাকরন, তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষজ্ঞদের মত মেনে দুই ডোজের মধ্যে এক মাস ব্যবধান রাখা হবে। টিকা নিয়েও মাক-দূরত্ববিধি সতর্কতা মেনে চলুন। ভ্যাকসিনের যার সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি তিনি আগে পাবেন টিকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x