ডিসেম্বরেই কি টীকা, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত কেন্দ্রের

ডিসেম্বরেই কি টীকা, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত  কেন্দ্রের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ডিসেম্বরেই কি টীকা, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত কেন্দ্রের ।বছরের শুরু থেকেই করোনা মহামারীতে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। অতিমারির প্রভাবে যেন থমকে গিয়েছে পৃথিবী। ভারত ও এই ভাইরাসের প্রভাবে বিধ্বস্ত। গোটা পৃথিবীর মত দেশবাসী অপেক্ষায় ভ্যাকসিনের। সংক্রমণ অনেকটা স্তিমিত হলেও এখন মুক্তি মেলেনি এই মারন ভাইরাস থেকে। এই পরিস্থিতিতে আশার কথা শোনাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক।

আরও পড়ুনঃকরোনা ভাইরাসের কাছে হার মানলেন কলকাতা পুলিশের এসআই হারাধন দাস।

চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসেই প্রথম ভ্যাকসিন হাতে পেতে পারে ভারত। তেমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে কেন্দ্র সরকার। ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সফল হলেই ডিসেম্বরে বাজারে চলে আসবে করোনার ভ্যাকসিন, মনে করছে কেন্দ্র।কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক উচ্চপদস্থ কর্তা জানিয়েছেন ভ্যাকসিন বন্টন ও সরবরাহের পরিকল্পনা করে রেখেছে সরকার। ভ্যাকসিন লঞ্চ করা হলেই, তা বাজারজাত করা হবে। ফলে করোনার ভ্যাকসিন ডিসেম্বরেই পাওয়া যেতে পারে। গোটা বিশ্ব জুড়ে ৪০টি ভ্যাকসিনের কাজ চলছে।সেই পরিস্থিতিতেই আশার আলো দেখাচ্ছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিন। এই ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে বর্তমানে। সূত্রের খবর নভেম্বরের শেষে অথবা ডিসেম্বরের শুরুতেই এই ট্রায়ালের ফল মিলবে। প্রকাশ্যে আসবে তৃতীয় দফার ট্রায়ালের বিস্তারিত তথ্য।

একই ভাবে জানা যাবে সেরাম ইনস্টিটিউটের তত্বাবধানে তৈরি হওয়া ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ফলও। সেপ্টেম্বর মাসের শেষ থেকে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হয়েছে। পুনেতে শুরু হয়েছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা ভ্যাকসিনের ট্রায়াল।তৃতীয় পর্যায়ের হিউম্যান ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করেছে পুনের সেরাম ইনস্টিটিউট। স্যাসুন জেনারেল হসপিটালে এই তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হয়েছে বলে খবর। এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ফল পাওয়া গেলেই তার ওপর ভিত্তি করে ভ্যাকসিন বাজারে নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র সরকার। ফলে ডিসেম্বর বা জানুয়ারির শুরুতেই করোনার ভ্যাকসিন মেলার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

আগামী বছরের শুরুতেই নোভেল করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন দেশের বাজারে এসে যাবে বলে মনে করছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনও। ইতিমধ্যেই আমেরিকা, ব্রিটেন-সহ বিশ্বের প্রথম সারির একাধিক দেশ করোনার ভ্যাকসিন বানাচ্ছে। করোনার ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চলছে ভারতেও। ভারত বায়োটেক, জাইডাস ক্যাডিলা-সহ বেশ কয়েকটি সংস্থা করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করছে।অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন ভারতে তৈরি করছে পুণের সেরাম ইন্সটিটিউট। এদিকে, দেশের করোনায় মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে কম বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী জানিয়েছেন ইউরোপ ও এশিয়ার বহু দেশে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি করোনাতে। সেই পরিস্থিতি এড়ানো গিয়েছে ভারতে।

ডিসেম্বরেই কি টীকা, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত কেন্দ্রের ।আর তা হয়েছে শুধুমাত্র সঠিকভাবে লকডাউনের জন্য। মোদী বলেন ভারতে যে হারে মানুষ মাস্ক ব্যবহারে সচেতনতা দেখিয়েছেন, তা আর কোনও দেশ দেখাতে পারেনি। কেন্দ্রের পরিকল্পনা সফল হয়েছে।মোদী জানান, কেন্দ্রের আরও পরিকল্পনা রয়েছে। ধীরে ধীরে তা বাস্তবায়িত করা হবে। ভ্যাকসিন তৈরি হয়ে গেলে তার সরবরাহ কীভাবে হবে, সেই রূপরেখা তৈরি করেছে কেন্দ্র। প্রত্যেক ভারতীয়ের ডিজিটাল হেলথ আইডি তৈরি করা হবে। যার মাধ্যমে ভ্যাকসিন পাবেন সবাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x