ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, জানালেন মমতা

ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, জানালেন মমতা
ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, জানালেন মমতা

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, তৃতীয় ঢেউ ভয়ঙ্কর না হলে পুজোর পরে স্কুল খুলবে। এমনটাই জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বললেন, ‘পরিস্থিতি ঠিক থাকলে পুজোর ছুটির পরেই খুলবে স্কুল।’

আরও পড়ুনঃ শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে ত্রিপল চুরি মামলার শুনানি শেষ, রায় স্থগিত রাখল কলকাতা হাইকোর্ট    

সোমবার নবান্নে সভাঘরে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যের কোভিড সংক্রমণ যদি নিয়ন্ত্রণে থাকে, সমস্ত পরিস্থিতি আয়ত্তে থাকলে তবেই পুজোর পরে স্কুল খুলে দেওয়া হবে। কোভিড আবহে বন্ধ স্কুল কলেজ। গত বছর মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকেই স্কুলগুলিতে তালা পড়ে গেছে, আর খোলেনি।

sghhh

নিউ নর্মালে কোভিড বিধি কিছুটা লঘু হলেও স্কুল-কলেজের দরজা খোলেনি। চলতি বছরে আবার কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পরে আক্রান্তের সংখ্যা ফের বাড়তে শুরু করে। রাজ্যের কোভিড গ্রাফও শীর্ষে পৌঁছয়। তাই স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি রাজ্য সরকার। এখন কোভিড পরিস্থিতি আগের থেকে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। তাই স্কুল কবে খুলবে সেই প্রশ্ন রয়েছে লক্ষ লক্ষ ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের।

ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, বৈঠকে জানালেন মমতা 

ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, বৈঠকে জানালেন মমতা 
ভাইফোঁটার পর খুলতে পারে স্কুল, বৈঠকে জানালেন মমতা
এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আছে। কোভিড পজিটিভিটি রেটও এক শতাংশের মধ্যে। যদি করোনার তৃতীয় ঢেউ না আসে এবং বাদবাকি পরিস্থিতি ঠিকঠাক থাকে, ভাইফোঁটার পরেই স্কুল খুলে দেওয়া যেতে পারে। চলতি বছর জানুয়ারিতে স্কুল খোলার প্রসঙ্গে রাজ্যের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছিলেন, স্কুল-কলেজ স্যানিটাইজেশনের কাজ চলছে। স্কুল খোলার পরে ছাত্রছাত্রীরা যাতে আক্রান্ত না হয় সে ব্যাপারেও খেয়াল রাখতে হবে।
ইতিমধ্যেই অনেক রাজ্য স্কুল খুলেছিল। কিন্তু সংক্রমণ ছড়ানোয় ফের তা বন্ধ করে দিতে হয়েছে। চলতি বছর অক্টোবরেই কোভিডের তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে এমন সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। দেশের জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের অধীনস্থ টিম রিপোর্ট দিয়েছে, অক্টোবরের মধ্যেই তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে, শিশুদেরও সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তাই এখন থেকেই দেশের সমস্ত রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামো ও পরিষেবা উন্নয়নের দিকে জোর দিতে বলা হয়েছে।

পাশাপাশি, ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের স্পনসর-জট নিয়েও মুখ খোলেন মুখ্যমন্ত্রী। বললেন, ‘ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে এতদিন ধরে ঝুলিয়ে বলছে চালাতে পারব না।’ মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন, ’পারব না, ছেড়ে চলে যাচ্ছি, কেন বলছে লগ্নিকারী সংস্থা? লগ্নিকারী সংস্থার এই কথার পিছনে কী রহস্য?’