নতুন বছরে নতুন রুপে লোকাল ট্রেন, কামরাতেই যাত্রী বিনোদনের ব্যাবস্থা।

নতুন বছরে নতুন রুপে লোকাল ট্রেন, কামরাতেই যাত্রী বিনোদনের ব্যাবস্থা।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ নতুন বছরে নতুন রুপে লোকাল ট্রেন, কামরাতেই যাত্রী বিনোদনের ব্যাবস্থা। দীর্ঘ লকডাউন কাটিয়ে অন্যান্য সমস্তকিছুর মতই ধীরে ধীরে চালু হয়েছে রেল পরিসেবা। নিউ নরম্যালের সাথে তাল মিলিয়েই চালু হয়েছে শিয়ালদহ হাওড়া সহ সমস্ত ডিভিশনের ট্রেন। দুরপাল্লার সাথে সাথেই চালু হয়েছে লোকাল ট্রেনও। মার্চের পর দীর্ঘদিন বাদে চালু হয়েছে দেশের লোকাল ট্রেন। ইতিমধ্যে দুই ডিভিশনে প্রায় নব্বই শতাংশ ট্রেন চালু হয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুনঃবেসরকারি নিমার্ণকার্য আটকাতে গ্রামবাসীদের হাতে মার খেল পুলিশ।

হাওড়ায় দৈনিক যাত্রী সংখ্যা সওয়া আট লাখে পৌঁছে গিয়েছে। শিয়ালদহে ১৫ লক্ষ। তাই যাত্রীসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে নিউ নর্মালে এবার লোকাল ট্রেনের খোলনলচে বদলে নতুন রূপে ফিরিয়ে আনতে চলেছে হাওড়া ডিভিশন। শুধু ট্রেন রঙ করে নতুন রূপে ফেরানোই নয় যাত্রীদের মনোরঞ্জনের জন্য এবার কামরাতে মিউজিক সিস্টেম ও বসাতে চলেছে হাওড়া ডিভিশন। হাওড়া ডিভিশনের ষাটটি লোকালের ফেসিয়া ও বডিতে রঙ করার কাজ শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, এই ডিভিশনে আসা নতুন রেকগুলিতে গন্তব্য সম্পর্কিত ঘোষণার ফাঁকে বাজানো হবে গানও।

পরীক্ষামূলকভাবে আটটি রেকে এই মিউজিক সিস্টেম চালু করা হয়েছে। এরপর যাত্রীদের মতামত নেওয়া হবে। ইতিবাচক সাড়া পেলে সমস্ত রেকেই চালু হবে এই ব্যবস্থা। শিয়ালদহ ডিভিশন এখনও এই পথে ন হাঁটলেও অদুর ভবিষ্যতে তারাও এই সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

হাওড়ার ডিআরএম সঞ্জয়কুমার সাহা বলেন, ‘সাধারণত দু’বছর বা তারও বেশি সময় বাদে রেক রং করা হয়। কিন্তু এই প্রথম ডিভিশনের ষাটটি ট্রেনকে প্রায় একসঙ্গে রং করা হচ্ছে।’ এর কারণ হিসেবে তিনি জানান, ‘দীর্ঘদিন ট্রেন চলাচল প্রায় বন্ধ ছিল। ফলে ট্রেনগুলি জৌলুষ হারিয়েছে। অতিমারির আতঙ্কের মাঝেও জীবিকার তাগিদে মানুষ ট্রেনে চড়তে বাধ্য হয়েছেন। তাঁদের একটু আনন্দ দিতেই এই ব্যবস্থা। নতুন রঙে তাঁদের মন ভাল হবে।’ ডিআরএম আরও বলেন, ‘ট্রেনগুলিকে দৈনিক পরিষ্কার করা হচ্ছে। যাত্রার শুরু ও শেষে রেকগুলি স্যানিটাইজ করা হচ্ছে।’ খুব শীঘ্রই চালু হতে চলেছে এই নতুন লোকাল ট্রেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x