অফিসার বদলি যতই করো, মাইনে তোমার ৪১২! একযোগে কমিশন- BJP’কে টিপ্পনি মমতার

নন্দিগ্রামে জারী ১৪৪ ধারা, ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ তুললেন মুখ্যমন্ত্রী।
নন্দিগ্রামে জারী ১৪৪ ধারা, ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ তুললেন মুখ্যমন্ত্রী।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ অফিসার বদলি যতই করো, মাইনে তোমার ৪১২! একযোগে কমিশন BJP’কে টিপ্পনি মমতার। এমনিতেও রাতের অন্ধকারে টাকা বিলোচ্ছে BJP! ধরিয়ে দিলে ১পুরষ্কার, ১ চাকরি গতকাল বাঁকুড়া থেকেই একথা বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বারবার বলেছিলেন টাকার বিনীময়ে ভোট কিনতে চাইছে গেরুয়া শিবির। আর পাল্টা বলেছেন তিনি বিজেপিকে এপ্রিলফুল করে ছাপ দিন জোড়াফুলে, প্রথম দফা্র ভোটের আগে মাত্র আর এক দিন। একেবারে শেষ মুহুর্তের সভা করছে সব দল। গতকাল মুখ্যমন্ত্রী সভা করেছিলেন বাঁকুড়ায়। আজ সভা করছেন একসঙ্গে ৪টি। হুইলচেয়ারে বসেই এতদিন জঙ্গল মহল দাপিয়ে বেড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একের পর এক সভা করছেন ঝাড়গ্রাম থেকে পুরুলিয়া। নির্বাচনের আগে শেষ মুহূর্তে বুস্টার ডোজ দিচ্ছেন নিজের কর্মী সমর্থকদের। যাঁরা ভরসা রেখেছেন মমতা তে। এবং আরো স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দিচ্ছেন আগামী ৫ বছরের জন্য কেনো মমতা?আজ সভা করছেন পাথরপ্রতিমায়।

আরও পড়ুনঃ বাংলা থেকে ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গুকে সরাতে গেলে দিদিকে সরাতে হবে, পুরুলিয়ায় টিপস শাহের‌!

পাথরপ্রতিমার কলেজ মাঠে প্রথম সভার পর পরেরটি ওই জেলারই গঙ্গাসাগর মেলার মাঠে।তারপর আরও দুটি সভা করার কথা তাঁর। ইতিমধ্যেই দঁতনে সভা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। পরের সভাটি মেদিনীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে । আজ মুখ্যমন্ত্রী পয়েন্ট ধরে জবাব দিয়েছেন বিজেপির প্রতিটা কটাক্ষের। বিজেপির একাধিক খারাপ দিক তুলে ধরে অন্যদিনের মতোই তিনি বলেছেন বিজেপি ডাকাতের দল। লুটেরার দল। আমি বিজেপি-র মতো দাঙ্গাবাজ নই, ধান্দাবাজ নই। সাগর পাড়ের মানুষের জন্য তিনি যে ছিলেন, আছেন আর থাকবেন সেকথাও মনে করিয়ে দিয়েছেন তিনি। খতিয়ান হিসেবে তুলে এনেছেন বুলবুলের সময়ের কথা। “বুলবুলের সময় ২০ লক্ষ মানুষের ক্ষতি হয়েছে। দুর্গত মানুষদের জন্য কোনও সাহায্য করেনি। নরেন্দ্র মোদী একদিন ঢং করে দেখতে এল। বলল,১ হাজার কোটি টাকা দেব। ওটা রাজ্য সরকারের প্রাপ্ত টাকা। এক পয়সাও দেয়নি। মাছের তেলে মাছ ভাজা। আমরা আমপানের জন্য ৭ হাজার কোটি টাকা দিয়েছি। ২১ লক্ষ বাড়ি তৈরির জন্য ২০০০ কোটি টাকা দিয়েছে রাজ্য।” এছাড়া বলেন, আমরা ৫ কোটি ম্যানগ্রোভ গাছ পুঁতছি।

বিজেপির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখন আবার নিজের নামে স্টেডিয়াম বানাচ্ছে। কোনও দিন দেশটার নাম পাল্টে দেবে। বিজেপি হচ্ছে বহিরাগত গুন্ডাদের পার্টি। বহিরাগত দুর্যোধনের পার্টি। জঞ্জালের পার্টি। এনপিআরের পার্টি। ১ এপ্রিল ওদের এপ্রিল ফুল করে দিন। বিনা পয়সায় গ্যাস-কেরোসিন চাই। দিদি তো বিনা পয়সায় চাল দেয়, কন্যাশ্রী-রূপশ্রী করে দেয়। তাই বলছি, খেলা হবে। দেখা হবে, জেতা হবে। রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার হারতে জানে না। বিজেপি-কে ইঁদুরে পরিণত করবে।

গেরুয়া শিবির যে মূল প্রতিপক্ষ তা তাঁর কথায় ফুটে উঠেছে বারবার। তুলনায় গত ১০ বছরে মা মাটি মানুষের দল কী করেছে এবং তৃতীয় বার ক্ষমতায় এলে কী কী করবে তার খতিয়ান ও দিয়েছেন তিনি। বছরে দু’বার করে চারমাস দুয়ারে সরকার হবে। দুয়ারে সরকারের জন্য অগস্ট-সেপ্টেম্বরে শিবির হবে। ক্ষুদ্র শিল্পে আরও ১ কোটি ৩২ লক্ষ কর্মসংস্থান হবে। “১০০ দিনের কাজে আমরা ১ নম্বর” এই বিষয়েও স্পষ্ট করেছন। তিনি আরও বলেন, “আর একটা স্কিম করছি। ক্লাশ টেনে উঠলে ১০ লক্ষ টাকা করে ক্রেডিট কার্ড পাবে পড়ুয়ারা।”

তার পরই দাঁতনে তিনি সরাসরি নিশানা করেন নির্বাচন কমিশনকে। বার বার রাজ্যের একাধিক আমলা অফিসারের বদলি নিয়ে এতোদিন চুপ ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ তিনি সভা মঞ্চ থেকে জানান, বদলি হোক, নতুন আসুক, তাতে কোনো ক্ষোভ নেই তাঁর। তিনি সরাসরি বলেন নির্বাচন কমিশন কাজ করছে বিজেপির হয়ে। তিনি এও বলেন তাঁর এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে যদি কমিশন তাঁকে শোকজ করে, তাতেও কিছু যায় আসেনা তাঁর। নির্ভিক লড়াইয়ে তিনি এখনো প্রস্তুত।

বিজেপি যা বিওলে তাই করে নির্বাচন কমিশন, বিজেপইর অর্ডারে কাজ করছে কমিশন। তার সঙ্গে তিনি হুঁশিয়ারিও দেন ভুল করছে নির্বাচন কমিশন। প্রসঙ্গ তুলে আনেন বিবেক সহায়ের। প্রসঙ্গত গতকালই রাজ্যের নিরাপত্তার উপদেষ্টার পদ থেকে আপাতত অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে সুরজিৎ কর পুরকায়স্থকে। ২০১৮ সালে রাজ্যের নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল প্রাক্তন ডিজিপি সুরজিৎ কর পুরকায়স্থকে সেই থেকে একটানা এই পদে রয়েছেন তিনি। ভোটের আগে নির্বাচন কমিশনের কাছে তাঁকে সরানোর দাবি তুলেছিল বিজেপি।। গতকাল শিলিগুড়িতে রাজ্যে পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসে কমিশনের ফুলবেঞ্চ। ওই  বৈঠকে আইনশৃঙ্খলা নিয়ে খোঁজ খবর নেওয়ার পরই নির্দেশিকা জারি করলেন মুখ্যসচিব। নির্বাচনের আগে কার্যত নিস্ক্রিয় করে দেওয়া হল তাঁর কাজ। আপাতত তিনি নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও কাজের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারবেন না। এমনকি পদে থাকলেও, ভোটের সময় নিজের ক্ষমতার ব্যবহার করতে পারবেন না। বিস্তারিত নির্দেশিকা জারি করেছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

অফিসার বদলি যতই করো, মাইনে তোমার ৪১২! একযোগে কমিশন- BJP’কে টিপ্পনি মমতার। তার পর নিজের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, ” আমাকে একবার দল থেকে বলেছিল, দিদি তুমি কী করে যাবে? তবে আমার মা-বোনেদের তো দুটো পা আছে। আমার তো একটা পায়ে চোট। মা-বোনেরা দুটো পা দিয়ে আমাকে এগিয়ে দেবে। ভাঙা পায়েই যা খেলব না, বিজেপি-কে বোল্ড আউট করে দেব।”আর এই নির্বাচনটা দিল্লির নয়, এটা বাংলার। কিছু বহিরাগত গুন্ডার বাইরে থেকে এসেছে। তাই তাঁদের রুখতে মরিয়া তিনি ভরসা রাখছেন বাংলার মা বোনেদের ওপর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here