জয় কৃষকদের বললেন মমতা, প্রত্যেক কৃষককে সেলাম জানালেন অভিষেক

জয় কৃষকদের বললেন মমতা, প্রত্যেক কৃষককে সেলাম জানালেন অভিষেক
জয় কৃষকদের বললেন মমতা, প্রত্যেক কৃষককে সেলাম জানালেন অভিষেক

নজরবন্দি ব্যুরোঃ শুক্রবার সকালে জাতীর উদ্দেশ্যে ভাষণের মাধ্যমে তিন কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দীর্ঘ আন্দোলনের পর কৃষকদের সাফল্য ঘিরে রাজনৈতিক মহলে রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে। দীর্ঘ আন্দোলনের যাদের অংশগ্রহণ ছিল তাঁদেরকে কুর্নিশ জানিয়েছেন প্রতিটি বিরোধী দলের রাজনৈতিক নেতারা। জয় কৃষকদের বললেন মমতা। 

আরও পড়ুনঃ Farm Law: কৃষি আইন বাতিলের পথে কেন্দ্র, চলবে আন্দোলন ঘোষণা রাকেশ টিকায়িতের

প্রথম থেকে কৃষক আন্দলনকে সমর্থনকারী মমতা বন্দোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের পরেই করলেন ট্যুইট। জয় কৃষকদের বললেন মমতা। দীর্ঘ আন্দোলনে কৃষকদের দৃঢ় সংকল্পকে সেলাম জানালেন অভিষেক। 

এদিন সকালে ট্যুইট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আমি আন্দোলনে অংশগ্রহণকারই সমস্ত কৃষকদের শুভেচ্ছা জানাই। যারা বিজেপির নির্দয় মনোভাবকে উপেক্ষা করে দীর্ঘ আন্দোলনকে জিইয়ে রেখেছিলেন। এটা আপনাদের জয়। এই লড়াইয়ে যারা আপনজনকে হারিয়েছেন প্রত্যেকের প্রতি আমার সমবেদনা।

কৃষকদের সেলাম। ট্যুইট করে জানালেন সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। দীর্ঘ আন্দোলনে কৃষকদের লড়াই, তাঁদের দৃঢ় সংকল্পের কাছে বিজেপির প্রতিটি পদক্ষেপ অসফল হয়েছে। এটাই হল সংবিধানে ভিন্নমতের ক্ষমতা। আমি প্রতিটি কৃষকদের কুর্নিশ জানাই।

কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করলেও আইন পাশের দিন সংসদের অন্দরে কি ঘটেছিল সেই ভিডিও আরও একবার ট্যুইট করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন। অহংকারের হার। ঔদ্ধত্য থেকে হাঁটু গেড়ে বসতে বাধ্য হয়েছে, জানিয়েছেন তিনি।

জয় কৃষকদের বললেন মমতা, মাথানত করেছে মোদি সরকার জানালেন সুখেন্দু 

জয় কৃষকদের বললেন মমতা, প্রত্যেক কৃষককে সেলাম জানালেন অভিষেক
জয় কৃষকদের বললেন মমতা, প্রত্যেক কৃষককে সেলাম জানালেন অভিষেক

তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় জানিয়েছেন, কৃষকরা দিল্লি উপকন্ঠে নিরবিচ্ছিন্ন আন্দোলন করছে। রোদ জল ঠান্ডার মধ্যে আন্দোলন করতে গিয়ে বহু কৃষ্কের মৃত্যু হয়েছে। লাখিমপুরে আন্দোলন করতে গিয়ে চার কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। কৃষকদের এই দীর্ঘ আন্দোলনের পর মোদি সরকার মাথানত করেছে। কৃষকরা আগে থেকেই বলেছিলেন, এই তিন আইন চালু হলে পুঁজিপতি ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন। এই আইন প্রত্যাহারের ফলে কৃষকদের সেই আশঙ্কা দূর হল।