দিলীপ vs শুভেন্দু vs মুকুল, অচিরেই কাটছে তাল, শুরু ঠাণ্ডা লড়াই!

দিলীপ vs শুভেন্দু vs মুকুল, অচিরেই কাটছে তাল, শুরু ঠাণ্ডা লড়াই!

নজরবন্দি ব্যুরো: দিলীপ vs শুভেন্দু vs মুকুল, সামনেই একুশের ভোট। নিজেদের রণনীতি ঠিক করতে রাজনৈতিক ময়দানে নেমে পড়েছে রাজনৈতিক দলগুলি। চলছে একে অপরকে আক্রমণের পালা। সেইসঙ্গে জমে উঠেছে দলবদলের খেলাও। আসন্ন নির্বাচনে বিজেপি শিবিরের কিছুটা পাল্লা ভারী বলে মত রাজনৈতিক মহলের। যদিও যতদিন এগোচ্ছে দলের অন্দরেই বাড়ছে লড়াই। আর এই লড়াই আদি নব্যের লড়াই। বিশিষ্ট মহলের দাবি, বঙ্গ বিজেপি এখন তিন ভাগে ভাগ হয়ে গেছে। দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় ও সদ্য দলের নতুন সংস্করণ শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুনঃ দরজা বেশিদিন খোলা থাকবে না, শাসক শিবিরের বিক্ষুব্ধদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিলীপের।

একসময় সকলকে চমকে দিয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া মুকুল রায়ের সঙ্গে দিলীপ ঘোষের সম্পর্ক আদায় কাঁচকলা সম্পর্ক বেশ চর্চায় ছিল। এখনও আছে বৈকি। যদিও সেই তালিকায় এখন নতুন সংজোজন হয়েছে নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র শুভেন্দু অধিকারীর। ভোটের আবহে প্রকাশ্যে এসেছে তাঁদের ঠাণ্ডা লড়াইয়ের ছবি।

অনেকেরই ধারণা বিরোধীদের নয়, এই দলীয় নেতারা কখন একে অপরকে টেক্কা দিয়ে এক নম্বরে উঠবেন সেদিকে বেশি মনোনিবেশ করেছেন । এই দ্বন্দ্ব আরও প্রকট হয় যখন এক সভায় এই হেভিওয়েট তিন নেতা অর্থাৎ শুভেন্দু, দিলীপ ও মুকুল রায়ের থাকার কথা থাকে। সেই সভায় কিনা দিলীপ ঘোষের আসার অপেক্ষা না করেই মুকুল বাবু নিজের বক্তব্য শেষ করে সেখান থেকে চলে যান।

এদিকে শুভেন্দু সেই সভায় আসেন না। তাল কাটছে দলের অন্দরেই। এদিকে বিতর্কের আগুনে ঘি তখন পরে যখন গতকাল হঠাতই মুকুল ও দিলীপকে দিল্লি ডেকে পাঠানো হয়। এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দীর্ঘ প্রায় আড়াই ঘণ্টার বৈঠক হয়। দিলীপ-মুকুলের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, শিব প্রকাশ এবং অমিত চক্রবর্তী।

দিলীপ vs শুভেন্দু vs মুকুল, যদিও সেই বৈঠকে কী কথা সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। যদিও বিশিষ্ট মহলের ধারণা, এদিনের বৈঠকে শাহ বুঝিয়ে দিয়েছেন যে বাংলার ক্ষমতা দখলই হল বিজেপির একমাত্র লক্ষ্য। ফলে গোষ্ঠী কোন্দলকে দূরে সরিয়ে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। এদিকে প্রশ্ন উঠছে এই কোন্দলের ফায়দা কি শাসক দল তুলবে না ? সেটা হয়তো আগামী দিন বলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x