AC: এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো…

এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো...
এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো...

নজরবন্দি ব্যুরোঃ এসি কিনছেন? ব্যাপক গরমে হিট স্ট্রোক হওয়ার আশঙ্কায় ভুগছিলেন সাধারণ মানুষ। তাপমাত্রা ছাড়িয়েছে ৪০ ডিগ্রিরও বেশি। গরম থেকে পরিত্রাণ পেতে এয়ার কন্ডিশনারের(AC) দিকে ছুটছে মানুষ। যেন তেন প্রকারেন একটা এয়ার কন্ডিশনার কিনতেই হবে। দিনভোর রোদে পুড়ে রাতের ঘুমটা অন্তত স্বস্তির চাই। অস্বস্তিকর গরমে সবারই একেবারে নাজেহাল অবস্থা। এই গরম থেকে রক্ষা পেতে এখন অনেকেরই ভরসা এসি। যা খুব সহজেই শরীর শীতল করে দেয়। তাই এসি এখন এখন আর বিলাসের সামগ্রী নেই, বরং হয়ে উঠেছে নিত্য প্রয়োজনীয় একটি যন্ত্র।

আরও পড়ুনঃ মাত্র ৯,৩৭৫ টাকায় ১.৫ টনের AC, জলের দামে সস্তার এয়ার কন্ডিশনার এনেছেন ক্যারিয়ার

দেখা যাচ্ছে, এতদিন যাদের ঘরে এসি (AC) ছিল না, তারাও এখন এসি কিনতে আগ্রহী। ইতোমধ্যে অনেকেই এখন এসি কেনার প্রস্তুতি নিয়ে নিয়েছেন। তবে এসি কেবল কিনলেই চলবে না, জানতে হবে এর কিছু ভালোমন্দও। তবেই এসি কিনতে গিয়ে আপনাকে ঠকতে হবে না। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক এসি কেনার সময় কোন কোন বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন-

এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো...

কত টনের এসি- ঘরের মাপ অনুযায়ী স্থির করতে হবে কত টনের এসি প্রয়োজন। প্রয়োজনের কম টনের এসি লাগালে এক দিকে ঘর ঠান্ডা হতে বেশি সময় নেয়। অন্য দিকে চাপ পড়ে যন্ত্রটির উপরেও। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি টনের এসি আবার অতিরিক্ত দ্রুত ঘর ঠান্ডা করে দেয়। অপচয় করে বিদ্যুৎ। বিশেষজ্ঞদের মতে ১২০ বর্গফুট বা তার কম মাপের ঘরের জন্য এক টনের এসিই যথেষ্ট। কিন্তু ঘরের মাপ ১৮৫ বর্গফুটের কাছাকাছি আয়তনের ঘর হলে দেড় থেকে দুই টনের এসি কিনতে হবে।

বিদ্যুৎ খরচ- কোন এসির বিদ্যুৎ খরচ কেমন তা বোঝা যায় এসির গায়ে থাকা তারা থেকে। ব্যুরো অব এনার্জি এফিশিয়েন্সির পক্ষ থেকে এই তারাগুলো প্রদান করা হয়। একে বিইই রেটিংও বলা হয়। পাঁচটি তারাযুক্ত এসি সবচেয়ে বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। সাধারণত যে এসিতে যত বেশি তারা থাকে তার দাম তত বেশি হয়। কিন্তু কেনার সময়ে বেশি খরচ করতে পারলে পৌনঃপুনিক ব্যয় কমে অনেকটাই।

ইনভার্টার এসি- ইনভার্টার এসি কমপ্রেসরের গতিবেগ নিয়ন্ত্রণের মধ্য দিয়ে শীতলতার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এই পদ্ধতিতে যেমন বিদ্যুৎ খরচ কমায় তেমনই এই এসির কর্মক্ষমতাও সাধারণ এসির তুলনায় বেশি।

কয়েল ও ফিল্টার- কপার বা তামার কয়েলযুক্ত এসি একটু দামি হলেও এটি তুলনামূলক ভাবে অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য। পাশাপাশি এখন বিভিন্ন এসিতে হরেক রকমের ফিল্টার থাকে। এই ফিল্টারগুলো দুর্গন্ধ দূর করা ও বায়ুবাহিত রোগ-জীবাণু দূর করতে সহায়তা করে।

এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো…

এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো...
এসি কিনছেন? ঠিক আগের মুহূর্তে মাথায় রাখছেন তো এই বিষয়গুলো…

অন্যান্য সুবিধা- এখন সাধারণ এসির পাশাপাশি স্মার্ট এসিও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এগুলোর কোনোটিতে ওয়াইফাই থাকে, কোনোটি আবার গলার স্বর কিংবা মোবাইল ফোন থেকেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। তবে এই সব অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা পেতে চাইলে পকেটেও কিছুটা বাড়তি চাপ পড়বে।