BJP: পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, থানার সামনে বিক্ষোভে বিজেপি

নজরবন্দি ব্যুরোঃ পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু। ঘটনায় সার্জেন্ট সহ ৩ জনকে ক্লোজ। শনিবার বিকেলে থানার সামনে বিক্ষোভে বিজেপি। এদিন গল্ফগ্রিন থানার সামনে স্লোগান দিতে শুরু করেন বিজেপি কর্মীরা। ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিরাট পুলিশ বাহিনী।

আরও পড়ুনঃ Arpita Mukherjee: দেবযানীর বিউটিশিয়ান কোর্সের ঘরেই রয়েছেন অর্পিতা, বিলাসবহুল ফ্ল্যাটের জীবনযাত্রা অতীত

বিজেপি কর্মীদের বক্তব্য মৃত ব্যক্তি দীপঙ্কর সাহার দাদা রাজীব সাহা কলকাতা পুরভোটে প্রার্থী হয়েছিলেন। পরিবারের তরফে সরাসরি অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। বিজেপির তরফে অভিযোগ, আনিস খানকে যেভাবে ছাদ থেকে ফেলে মারা হয়েছিল, এখানে দীপঙ্কর সাহাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয় মারা হয়েছে৩। পুলিশের নির্মম অত্যাচারে বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন বলে জানিয়েছেন বিজেপি সমর্থকরা। এখন সিবিআই তদন্তের দাবিতে সরব হয়েছেন তাঁরা। অবিলম্বে তিন জনকে গ্রেফতার দাবি তুলেছে বিজেপি।

পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, ক্লোজড তিন অফিসার 
পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, ক্লোজড তিন অফিসার

মৃত দীপঙ্কর সাহার পরিবারের বক্তব্য, ররিবার দুপুরে দীপঙ্করকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ি থেকে নিয়ে যায় গল্ফগ্রিন থানার পুলিশ। অভিযোগ, রাত ৯  টার সময় দীপঙ্করকে গুরুতর আহত অবস্থায় আজাদগড় মোড়ে ফেলে রেখে দিয়ে চলে যায় তারা। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশের বেধড়ক মারে দীপঙ্করের অবস্থা ছিল শিউড়ে ওঠার মতো। এরপর দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ হয়ে পড়েছিল সে৷

এরপর বুধবার তাঁকে শিশুমঙ্গল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ একটু সুস্থ বোধ করতেই তাঁকে ফিরিয়ে আনা হয়েছিল৷ বৃহস্পতিবার রাতে ফের অসুস্থ হলে এম আর বাঙ্গুরে ভর্তি করা হয় তাঁকে সেখানেই মৃত্যু হয় দীপঙ্করের।

ইতিমধ্যেই ঘটনায় পুলিশ সার্জেন্ট অমিতাভ তামাঙ্গকে ক্লোজড করা হয়েছে।‘ক্লোজড’ কনস্টেবল তৈমুর আলি, সিভিক ভলান্টিয়ার আফতাব মণ্ডল।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে লালবাজার।

পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, ক্লোজড তিন অফিসার 

পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, ক্লোজড তিন অফিসার 
পুলিশের মারে যুবকের মৃত্যু, ক্লোজড তিন অফিসার

দীপঙ্করের দাদার বক্তব্য, আমার ভাই সুস্থ মানুষ। একজন সুস্থ ব্যক্তিকে পুলিশ পিটিয়ে খুন করে ফেলল। আমাদের পুলিশ আধিকারিকরা বলেছিল, যখন ময়নাতদন্ত করা হবে, তখন লাইভ কভারেজ করা হবে। কিন্তু ময়নাতদন্তের সময় আমাদের ভিতরে প্রবেশ করতে দেয়নি। এ থেকেই পুরো বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে গেছে।