করোনা থেকে বাঁচতে কি কি খাবার খাবেন? জেনে নিন।

করোনা থেকে বাঁচতে কি কি খাবার খাবেন? জেনে নিন।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক এখনো বিশ্ববাসীর মধ্যে রয়ে গেছে। বিজ্ঞানীরা বহু পূর্বেই জানিয়েছেন করোনা ভাইরাস অন্যান্য বেশ কিছু রোগের মতন মানবসমাজে থেকেই যাবে। এবং খুব সহজে এই সংক্রমনের দাপটের হাত থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব নয়। চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীরা করোনা হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য যেমন মাক্স এবং স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে বলেছেন। তেমনি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার জন্য পুষ্টিকর খাদ্যের দিকেও লক্ষ্য রাখতে বলেছেন।

আরও পড়ুনঃ টিকা ট্রায়ালের চূড়ান্ত পর্যায় ভারতে; সফল হলে নভেম্বরেই সুরক্ষিত দেশ-দুনিয়া।

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ভিটামিন ই সহ অন্যান্য ভিটামিনও দরকার। অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ হাইজিন অ্যান্ড পাবলিক হেলথের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও পুষ্টি বিজ্ঞানী দেবনাথ চৌধুরী জানিয়েছেন, শুধু ভিটামিন নয়, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর মধ্যে ভিটামিন ছাড়াও থাকে নন নিউট্রিয়েন্টস। প্রোটিন, ভিটামিন, কার্বোহাইড্রেট, ফ্যাট, মিনারেল, ফাইবার এর মত নন নিউট্রিয়েন্টস শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। টোম্যাটোতে থাকে লাইকোপিন এবং ফ্ল্যাভনয়েড নন নিউট্রিয়েন্টস।

যা শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তোলে। অন্যদিকে ভিটামিন-এ ভিটামিন-সি, ভিটামিন-ই সংক্রমণ রুখতে সক্ষম। পুষ্টি বিজ্ঞানী দেবনাথ চৌধুরী মতে, ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ভিটামিন ট্যাবলেট খাওয়া ক্ষতিকারক হতে পারে। করোনা থেকে বাঁচতে অনেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ভিটামিন ওষুধ খাচ্ছেন যা ঝুঁকিপুর্ন। চিকিৎসকের উপদেশ ছাড়া ভিটামিন-এ ও ভিটামিন-ডি খেলে ভিটামিন টক্সিসিটির ঝুঁকি বহুগুণ বেড়ে যায়। দেবনাথ চৌধুরী বলেন, আমাদের প্রতিদিনের খাওয়ারের মধ্যেই ভিটামিন, মিনারেলস, অ্যান্টি অক্সিড্যান্টস, ফাইবার সহ নিউট্রিয়েন্টস ও নন নিউট্রিয়েন্টস পাওয়া যায়। চাল গমের মধ্যে যথেষ্ট মাত্রায় পুষ্টি থাকে। তিনি জানিয়েছেন, ১০০ গ্রাম চালে ৭ গ্রাম প্রোটিন এবং ১০০ গ্রাম গমে প্রায় ১২ গ্রাম প্রোটিন থাকে।

এছাড়াও অন্যান্য নিউট্রিয়েন্টসও পাওয়া যায়। এবার জেনে নেওয়া যাক কোন কোন ফলে বা শাক-সবজিতে নিউট্রিয়েন্টস এবং ভিটামিন-সি আছে—– যে কোন রকমের লেবু, কাঁচা লঙ্কা, নানা ধরনের শাক-সবজি ও পেয়ারাতে ভিটামিন-সি ও প্রয়োজনীয় নিউট্রিয়েন্টস আছে। কুমড়ো, উচ্ছে, পটল, ঝিঙে, বরবটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। পাকা পেঁপে, আনারস, আম, কলা, পেয়ারা সহ সব নানা ফলের মধ্যে যথেষ্ট পুষ্টিগুণ আছে। তেল ও বাদামের মধ্যে ভিটামিন-ই থাকে। এই সমস্ত শাক-সবজী, ফল রোজের বাজারে খুব সহজেই পাওয়া যায়। আর এর থেকেই পাওয়া যায় প্রয়োজনীয় পুষ্টি। যা শরীরকে রোগের হাত থেকে রক্ষা করে। ভিটামিন-ডি এর উৎস রোদ্দুর। প্রতিদিন ১০ মিনিট রোদ্দুরে হাটলেই শরীরে ভিটামিন-ডি এর চাহিদা পুরন হবে। কিন্তু সেই সময় টা হতে হবে সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ৩ টের মধ্যে।

পুষ্টি বিজ্ঞানী দেবনাথ চৌধুরী আরও বলেন, আমারদের অনেকেই মনে করেন রান্না করার পর শাক-সবজি গুণ সম্পুর্ন নষ্ট হয়ে যায়। এই ধারণা ভুল। অতিরিক্ত তেল মশলায় দিয়ে রান্না করলে বা শাক-সবজি সেদ্ধ করে জলে ফেলে দিলে পুষ্টিগুণ অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। তাই অল্প তেল মশলা দিয়ে রান্না করা উচিৎ। করোনা রুখতে খাদ্যের বিষয়ে অযথা চিন্তিত হওয়ার দরকার নেই। খুব সহজে বাজারে মিলবে এমন খাদ্য যেমন, ভাত, রুটি, ফল, শাক-সবজি, মাছ, ডিম এই গুলি একে অপরের নিউট্রিয়েন্টসের অভাব পুরন করে দেয়, এবং শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x