ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, গৃহবন্দি উপাচার্যও

ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, গৃহবন্দি উপাচার্যও
ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, গৃহবন্দি উপাচার্যও

নজরবন্দি ব্যুরো: ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, গত শুক্রবার থেকে ছাত্র আন্দোলনে গৃহবন্দি উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। এই পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে সোমবার বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানানো হয়েছে, উপাচার্য অ্যাডমিশন কমিটির চেয়ারম্যান। তাই তিনি অফিসে না আসার কারণে ছাত্রছাত্রীদের ভরতি প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেওয়া হল।

আরও পড়ুনঃ প্যারালিম্পিক্সে কলঙ্কিত হল ভারত! ব্রোঞ্জ জিতেও তা হারালেন বিনোদ কুমার

এদিকে, সোমবার সকালে গণতান্ত্রিক নাগরিক মঞ্চের কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে বিশ্বভারতীর উপাচার্যের বাসভবন চত্বরে উত্তেজনা ছড়ায়।গণতান্ত্রিক নাগরিক মঞ্চের সদস্যদেরও অভিযোগ, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যথেচ্ছাচার করছেন। তারই প্রতিবাদে ছাত্রছাত্রীরা শামিল হয়েছেন। তবে তা সত্ত্বেও উপাচার্য কেন নিশ্চুপ, কেন উপাচার্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের সঙ্গে কথা বলছেন না, তা নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ করেন গণতান্ত্রিক নাগরিক মঞ্চের সদস্যরা।

ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, এদিকে উপাচার্যের আচরণের প্রতিবাদে সোমবার মিছিল শেষে তাঁর বাসভবনের সামনে একটি ব্যানার টাঙাতে যায়। তাতেই বাধা দেয় নিরাপত্তাকর্মীরা। দু’পক্ষের বচসায় রীতিমতো উত্তপ্ত হয়ে ওঠে উপাচার্যের বাসভবন চত্বর। এরপরই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে আপাতত ভরতি প্রক্রিয়া বন্ধ রাখার বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। বিশ্বভারতীর প্রায় ১২ জন অধ্যাপক-অধ্যাপিকাকে ইতিমধ্যেই সাসপেন্ড করা হয়েছে। এছাড়াও অর্থনীতি এবং সংগীত বিভাগের মোট ৩ জন পড়ুয়াকে ৬ মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছিল।

পরবর্তীতে সাসপেনশন বর্ধিত করা হয়। তারা সাসপেন্ড থাকাকালীন তিন পড়ুয়াকে ৩ বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়। বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সরব পড়ুয়ারা। তাঁদের দাবি, উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘যথেচ্ছাচার’ করছেন। তারই প্রতিবাদে শুক্রবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ কেন্দ্রীয় কার্যালয় ঘেরাও করেন পড়ুয়ারা।

ছাত্র বিক্ষোভে ভর্তি প্রক্রিয়া বন্ধ বিশ্বভারতীতে, গৃহবন্দি উপাচার্যও

সেখানে নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে একপ্রস্থ তর্কাতর্কিতেও জড়িয়ে পড়েন পড়ুয়ারা। পরে উপাচার্যের বাসভবন ‘পূর্বিতা’ ঘেরাও করেন তারা। আন্দোলনরত পড়ুয়াদের হাতে ছিল প্ল্যাকার্ড। তাতে লেখা, ‘তালিবান উপাচার্য দূর হটো’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here