BJP VS TMC : ত্রিপুরার প্রভাব এবার বাংলায়, তুলকালাম পরিস্থিতি বিজেপির সদর দফতরে

নজরবন্দি ব্যুরোঃ এবারের বিধানসভা নির্বাচনে ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে রাজ্যে তৃতীয়বার ক্ষমতা প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ত্রিপুরা কে পাখির চোখ করে এগোতে শুরু করে ঘাসফুল শিবির।  সেইমত তৃণমূলের সাধারন সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জি থেকে শুরু করে কুনাল ঘোষ, সৌগত রায় ,বাবুল সুপ্রিয় ও সায়নী ঘোষের মত নেতা-নেত্রীরা ও আগরতলায় পৌঁছে ঘাসফুলের প্রচারে নামে। তবে সেখানেই ঘটে যায় বিপত্তি , যার প্রভাব পরে আজ শহরের বুকে।

আর পড়ুনঃ কড়া নাড়ছে নিম্নচাপ, ফের কবে মিলবে শীতের আমেজ?

গতকাল ত্রিপুরার মাটিতে বিতর্কিত মন্তব্য কে ঘিরে পুলিশের হাতে আটক হন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী সায়নী ঘোষ। যা নিয়ে উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা ত্রিপুরা।  জানা গিয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করেছে ত্রিপুরা পুলিশ।মূলত তাঁর বিরুদ্ধে ১২০ বি, ৫০৬, ১৫৩ ও ৩০৭ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।
এবার তারই আঁচ আসে পড়ল শহরের বুকে। গতকাল ত্রিপুরার মাটিতে তৃণমূল নেতাদের উপর আক্রমন ও সায়নী ঘোষ কে আটক করা কে কেন্দ্র করে আজ বিজেপির সদর দপ্তরে বিক্ষোভ দেখারতে শুরু করে রাজ্যের ঘাসফুল সমর্থকরা। বিজেপি বিরোধী শ্লোগান দেওয়ার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীর ছবি লাগিয়ে দেওয়া হয় মুরলিধর সেন লেনে।
এই প্রসঙ্গে তৃণমূল সমর্থকদের প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “বাংলার গণতন্ত্র রয়েছে। আজকে বিজেপির পার্টি অফিসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি লাগিয়ে দিয়ে আমরা প্রমাণ করে দিলাম, তৃণমূল চাইলে বাংলায় বিজেপি পার্টি অফিস নাও খাকতে পারত। প্রয়োজনে বিজেপির পার্টি অফিসও নিয়ে নিতে পারি আমরা। কিন্তু তৃণমূল সেটা করবে না। তৃণমূল গণতন্ত্রে বিশ্বাসী।”

ত্রিপুরার প্রভাব এবার বাংলায়, অগ্নিগর্ভ বিজেপির সদর দফতরে

ত্রিপুরার প্রভাব এবার বাংলায়, তুলকালাম পরিস্থিতি বিজেপির সদর দফতরে
ত্রিপুরার প্রভাব এবার বাংলায়, তুলকালাম পরিস্থিতি বিজেপির সদর দফতরে

এই নিয়ে বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার বলেন, ”  “বিজেপির পার্টি অফিস তৃণমূল দখল করে নিতেই পারে। সেই সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ তৃণমূল দখলদারিতে বিশ্বাসী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায় বলতে গেলে তৃণমূলই ত্রিপুরায় একটি বহিরাগত দল। ওরা আগে ওখানে সংগঠন তৈরি করুক।” তবে এই মুহূর্তে যত সময় এগোচ্ছে ততই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে বিজেপির সদর দফতর চত্বরে।