নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, ২৮শে ভার্চুয়াল ঝড়ের আভাস বিপ্লব গড়ে

নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, ২৮শে ভার্চুয়াল ঝড়ের আভাস বিপ্লব গড়ে
নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, ২৮শে ভার্চুয়াল ঝড়ের আভাস বিপ্লব গড়ে

নজরবন্দি ব্যুরোঃ নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, বাংলায় তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় বসার পরের তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো বলেছিলেন রাজ্যের গন্ডি পেরিয়ে এবার নজর দেশের দিকে। ২৪ এর যুদ্ধের আগে বিজেপি বিরোধী শিবির তৈরিতে তাঁর তৎপরতা লক্ষনীয়।

আরও পড়ুনঃ রাজনীতির স্লোগান পুজো মন্ডপেও, মমতার পাড়ার এবছরের থিম ‘খেলা হবে’

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও মাস খানেক আগে বলেছিলেন বাংলার পরে তৃণমূল যেখানে যাবে সেই রাজ্য জয়ের লক্ষ্যে যাবে, ২-৪টে বিধায়ক পদ জেতার জন্য নয়। আর তার পর থেকেই এক প্রকার স্পষ্ট এই মুহূর্তে মা-মাটি-মানুষের নজর বিপ্লব গড়ে।

মুকুল রায় বিজেপি থেকে তৃণমূলের ঘরের ফেরার পর থেকে ধীরে ধীরে দলভারী হচ্ছিল সে রাজ্যের ঘাসফুল শিবিরে। বাম-কংগ্রেস-বিজেপির ঘর ভেঙে নেতারা ভিড়ছেন মমতার দলে। ইতিমধ্যে একাধিক ‘দিবস’ উপলক্ষ্যে ত্রিপুরায় ঝড় তোলার চেষ্টা করেছে তৃণমূল।

নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, কালীঘাটের বক্তব্য প্রোজেক্টারে চলবে বিপ্লব গড়ে। 

বাধা পেয়েছে প্রতিবার। ত্তবে ওয়াকিবহাল মহলের মতে প্রতি কর্মসূচিতে কোন না কোন ভাবে বিপ্লব সরকারের বাধা প্রদানই জেদ বাড়াচ্ছে মমতার দলের। শহিদ দিবসে ত্রিপুরা জুড়ে ভার্চুয়ালি মমতার সয়া শোনার অনুমতি দেয়নি সরকার। খেলা হবে দিবসে জোর ঝড় উঠলেও বাংলা থেকে যাওয়া যুব মুখেরা ফিরেছেন আক্রান্ত হয়ে।

নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, ২৮শে ভার্চুয়াল ঝড়ের আভাস বিপ্লব গড়ে
নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই, ২৮শে ভার্চুয়াল ঝড়ের আভাস বিপ্লব গড়ে

সে রাজ্যে গিয়ে এ রাজ্যের নেতা নেত্রীরা অভিযোগ করছেন বিপ্লবের রাজ্যে একপ্রকার অরাজকতা চলছে। তবে ওয়াকিবহাল মহলের মতে, নাছোড় মমতার নজর ত্রিপুরাতেই। তাএ এবার ২৮ সে আগস্ট তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিশঠা দিবস উপলক্ষ্যে ফের একবার ভার্চুয়ালি ঝড় ওঠার আভাস দেখা যাচ্ছে ত্রিপুরায়। পাশাপাশি উত্তরপ্রদেস, গুজরাটেও টেলিকাস্ট হবে মমতা কথ।

অন্যবারে গান্ধী মুর্তির পাদদেশে হয় অনুষ্ঠান। তবে এবারে করোনা কালে রুট্ম্যাপ বদলেছে TMCP। রাস্তায় রাস্তায় যুব ঢল স্লোগান তুলবে না। কালীঘাট থেকে ভার্চুয়ালি বক্তৃতা রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরাসরি প্রকাশিত হবে বার্তা শোনা যাবে তৃণমূল কংগ্রেসের অফিসিয়াল পেজ থেকে। একই সঙ্গে সম্প্রসারিত হবে ইউটিউব, টুইটারের মাধ্যমেও।

করোনা কালে ইচ্ছে থাকলেও হ্যাট্রিক জয়ের পর থেকে কোন বড়ো সভা করতে পারেনি দল। এবারেও কলেগের গেটে ছোট খাটো অনুষ্ঠান হতে পারে। ত্রিপুরায় সেই রেশ ছড়িয়ে দিতে ইতিমধ্যেই ছাত্রযুব নেতাদের একটি দল পৌঁছেছে বিপ্লব গড়ে। সেখানেই প্রোজেক্টারে বিভিন্ন জায়গায় শোনানো হবে মমতার কথা।

আশিষলাল সিংহ জানিয়েছেন, “ছাত্ররা বিভিন্ন উৎসাহিত। সব জায়গায় দলীয় পতাকা পৌছে গেছে। কর্মসূচী পালন করা হবেই।” প্রায় প্রতি দিবসেই বাংলার পাশাপাশি কর্মসূচি পালনে যেবাএ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে ত্রিপুরাকে তাতে সকলেই একবাক্য্যে স্বীকার করছেন নাছোড় মমতার চোখ এখন সেদিকেই। দলের তরফ থেকে রুটিন করে ঠিক করা হয়েছে ত্রিপুরার সংগঠন মজবুত করতে মাসের কবে কোন কোন নেতারা যাবেন সে রাজ্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here