নিজের গ্রামেই ব্রাত্য! কেশপুরে সিপিএম-এর বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি তৃণমূলের

নিজের গ্রামেই ব্রাত্য! কেশপুরে সিপিএম-এর বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি তৃণমূলের
নিজের গ্রামেই ব্রাত্য! কেশপুরে সিপিএম-এর বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি তৃণমূলের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ নিজের গ্রামেই ব্রাত্য! কেশপুরের দেওয়ালে দেওয়ালে সাঁটানো ফতোয়া সেরকমটাই বলছে। আর এই ঘটনায় রীতিমত অবাক রাজ্যের রাজনৈতিক মহল। বিহার বা উত্তর প্রদেশ নয়, বাংলাতেই কেশপুরের মহিষদা গ্রামে গ্রামেরই কয়েকজন মানুষের বিরুদ্ধে জারি হয়েছে ফতোয়া।

আরও পড়ুনঃ কোভিড আবহে ‘ইয়াস’ বিপর্যয়, প্রায় ৩ হাজার মানুষের মুখে খাওয়ার তুলে দিল UUPTWA

কেশপুর বিধানসভার মহিষদা গ্রামের দেওয়ালে সাঁটানো সেই ফতোয়াতে স্পষ্ট উল্লেখ আছে গ্রামেরই ১৭-১৮ জনের নাম। জানান হয়েছে ওই কয়েকজনকে গ্রামের কোন দোকান-পাট থেকে কোন দ্রবত্য বিক্রয় করা যাবেনা। নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীও তাঁরা কিনতে পারবেন না নিজেদের গ্রামের দোকান থেকে। যদি কোন ব্যাক্তি মানা সত্বেও তাঁদের দ্রব্য বিক্রয় করেন তাহলে কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হবে দোকানদারকেও।

এই ফতোয়া জারি হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে। ভোট পরবর্তী রাজনৈতিক হিংসা নিয়ে এমনিতেই উত্তাল রাজ্য। তার পরে এই ধরণের ফতোয়া জারির ঘটনা সামনে আসতেই বিতর্ক তৈরি হয়েছে শাসক দলকে ঘিরে। যদিও কেশপুরের বিধায়ক, তৃণমূল নেত্রী শিউলি সাহা জানিয়েছেন, এই ধরণের কোন ফতোয়া শাসকদলের  পক্ষ থেকে জারি করা হয়নি। তাঁর মতে ওই গ্রামের সিপিএম আর বিজেপি মিলে যৌথ ভাবে এই কাজ করছে।

নিজের গ্রামেই ব্রাত্য! যদিও শিউলি সাহার যুক্তি ওই গ্রামে আগে বিজেপি ছিলোনা, সিপিএমএর লোকেরাই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন, মহিষদা গ্রামের ৪টি বুথের মধ্যে ২টি বুথে বিজেপি জিতেছে সিপিএমের সাহায্য নিয়ে। তাঁরাই মিলিত ভাবে এই কাজ করছেন। নাম দিচ্ছেন তৃণমূলের। অন্যদিকে সিপিএম এর নেতাদের বক্তব্য শিউলি সাহাকে একেবারেই গুরুত্ব দেন না তাঁরা।

শিউলি দেবী কেশপুরের বিধায়িকা হলেও, থাকেন হলদিয়াতে, জানেন না নিজের এলাকা সম্পর্কে কিছুই। দূরে বসে অকারণ সিপিএম এর নামে মিথ্যাচার করছেন। গ্রামের সাধারন মানুষের নামে ফতোয়া জারি হয়েছে, সিপিএম নেতাদের বক্তব্য উই ব্যাক্তিরা সম্ভবত বিজেপিকে ভোট দিয়েছিল, তাই এই শাস্তি দিচ্ছে শাসক দল। তবে তাঁরা জানিয়েছেন এর প্রতিবাদ করবেন তাঁরা গোষ্ঠীবদ্ধ ভাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here