অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী

অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী
অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী

নজরবন্দি ব্যুরোঃ করোনা নিয়ন্ত্রণে নিজ লোকসভা কেন্দ্রে বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এ প্রসঙ্গে তাঁর ‘ব্যক্তিগত মন্তব্য’ কে সাধুবাদ জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। অভিষেকের বক্তব্যের বিরুদ্ধে সমালোচনা করছেন তাঁর দলেরই সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের অন্দরমহলের বিবাদ একেবারে জনতার দরবারে এসে উপস্থিত হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ করোনা সংক্রমণ বাড়তেই, কাল থেকে খোলা হচ্ছে কন্ট্রোল রুম, কি পরিষেবা পাবেন?

শীর্ষ নেতৃত্বের হস্তক্ষেপে ক্ষোভ প্রশমন করা গেলেও নতু৷ করে জল্পনা উস্কে দিলেন কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী। তিনি বলেন, অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? কংগ্রেস সংসদীয় দলনেতার কথায়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুমোদন ছাড়া এই সব নেতারা তাঁর ভাইপোর বিরুদ্ধে সমালোচনা করছেন কী? পশ্চিমবঙ্গে থেকে তৃণমূলের নেতা হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলা, পিসির ভাইপোর বিরুদ্ধে কথা বলার ক্ষমতা আছে? আজ যিনি ভাইপোর বিরুদ্ধে কথা বলছেন তার পিছনে কী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রচ্ছন্ন মদত রয়েছে? প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন বহরমপুরের সাংসদ।

অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী
অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী

তাঁর প্রশ্ন, ডায়মণ্ড হারবার মডেলের ক্ষেত্রে কী মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদন রয়েছে? সেই মডেল সারা বাংলায় কেন বাস্তবায়িত কেন হচ্ছে না? মুখ্যমন্ত্রীর কী এই মডেল পছন্দ নয়? একজন সাংসদ, দলের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে কথা বলছেন অথচ দলনেত্রী চুপ? নীরবতা প্রমাণ করছে ভাইপোর সঙ্গে বিরোধ শুরু হয়েছে।

অভিষেকের বিরুদ্ধে বক্তব্য কী মমতার মদতেই? প্রশ্ন উস্কে দিলেন অধীর চৌধুরী

কংগ্রেস নেতার মন্তব্য হলেও এই প্রশ্ন এড়িয়ে যাচ্ছেন না তৃণমূলের নীচুতলার নেতারা। অনেকের মনে প্রশ্ন জাগছে নিজেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কর্মী বলে কী দলে নিজের অবস্থানে কিছুটা ব্যালেন্সড করলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়? কিন্তু তড়িঘড়ি এই সমস্যার সমাধানে নামেন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পরে ট্যুইট করে কুণাল ঘোষ জানালেন চ্যাপ্টার ক্লোজড৷