বাই-ইলেকশন বিতর্ক, পদ্মশিবিরের ৮ যুক্তি পেরিয়ে কমিশন ঘুরে এল তৃণমূল

বাই-ইলেকশন বিতর্ক, পদ্মশিবিরের ৮ যুক্তি পেরিয়ে কমিশন ঘুরে এল তৃণমূল
বাই-ইলেকশন বিতর্ক, পদ্মশিবিরের ৮ যুক্তি পেরিয়ে কমিশন ঘুরে এল তৃণমূল

নজরবন্দি ব্যুরোঃ বাই-ইলেকশন বিতর্ক, ২১ এর মহারণ তার ফলাফল এবং সরকার গঠনের বেশ কয়েকমাস পরেও রাজ্যে সরকার পক্ষ আর বিরোধী দলের মধ্যে চর্চায় সেই ‘ইলেকশন’। বাংলায় বকেয়া ভোট করাতে নাছোড় তৃণমূল দফায় দফায় যাচ্ছে কমিশনের দরজায়।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা হাইকোর্ট পেল নতুন ৫ বিচারপতি, ফাঁকা পড়ে এখনো ৩৬ শূন্য পদ

এই মুহুর্তে বাংলায় ৭ আসনে হওয়ার কথা বাই ইলেকশন। ভোটের আগেই প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ভোট হয়নি জঙ্গিপুর ও শামসেরগঞ্জে, দিনহাটা ও শান্তিপুরের বিধায়ক পদ ছেডড়ে সাংসদ পদে বহাল থেকেছেন বিজেপির দুই প্রার্থী। অন্যদিকে ভোট জেতার পরে প্রয়াত হয়েছেন গোসাবা এবং খড়দহের বিধায়ক। আর সপ্তম স্থানে রয়েছেন খোদ মমতা।

২১ এর ভোটে নিজের গড় ছেড়ে শুভেন্দুর বিপরীতে নন্দীগ্রাম থেকে দাঁড়ালেও ভোট জিতেছে প্রতিপক্ষ অধিকারী। মুখ্যমন্ত্রী পদে মমতা বসেছেন ঠিকই, তবে নিয়ম মতো ৬ মাসের মধ্যে তাঁকে জিতে ফিরতে হবে কোন এক কেন্দ্র থেকে। সেই কারণে ইতিমধ্যে নিজের বিধায়ক পদ ছেড়েছেন ভবানীপুরের বিধায়ক শোভনদেব।

বাই-ইলেকশন বিতর্ক, এখনই উপনির্বাচনের বিপক্ষে বিজেপি, নাছোড় তৃণমূল

ওয়াকিবহাল মহলের মতে মমতা কারণেই আরও বেশি উপনির্বাচনে জোর দিচ্ছে তৃণমূল। বারবার কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে আগেও। তবে ঘটনার মোড় ঘুরেছে গতকাল। গতকাল বঙ্গ বিজেপির তরফ থেকে ৮ পয়েন্টের যুক্তি দিয়ে বলা হয়েছে এই মুহুর্তে রাজ্যের বাই ইলেকশন সম্ভব নয় কোনভাবেই।

বাই-ইলেকশন বিতর্ক, পদ্মশিবিরের ৮ যুক্তি পেরিয়ে কমিশন ঘুরে এল তৃণমূল
বাই-ইলেকশন বিতর্ক, পদ্মশিবিরের ৮ যুক্তি পেরিয়ে কমিশন ঘুরে এল তৃণমূল

বিজেপির বক্তব্য,সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসের মধ্যেই তৃতীয় ঢেউ আসার আশঙ্কা রয়ছে, তাছাড়া কোভিড কারণে বন্ধ স্কুল কলেজ, অক্টবর এমনিতেও পুজোর মাস, অন্য যুক্তি হিসেবে বলা হয়েছে করোনার দোহাই দিয়ে রাজ্য সরকার নিজেই ১২২টি পুরসভার নির্বাচন আটকে রেখেছে। সব মিলিয়ে বিজেপির বক্তব্য ভোট করাতে গেলে তার আগে সরকারকে ঘোষণা করতে হবে এই মুহুর্তে সব স্বাভাবিক রাজ্যে।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে মোট কথা গেরুয়া শিবির চাইছে না নভেম্বরের আগে ভোট হোক, ্সেই কারণে কেন্দ্রে বড়ো করে দেখানো হচ্ছে করোনা কাল। কাল গেরুয়া শিবিরের যুক্তির পর আজ ৫ সদস্য হাজির হয়েছিলেন কমিশনের দরজায়। তৃণমূলের বক্তব্য, রাজ্য করোনার প্রকোপ এখন অনেকটাই কম।

যে সাত কেন্দ্রে ভোট হওয়ার কথা, সেগুলিতে করোনার সংখ্যা যে কার্যত শূন্য, আলাদা আলাদা ভাবে কমিশনকে সেই তথ্যও দিয়েছে দল। এমনকি বৈঠক শেষে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশ করেছে মমতা সরকারের প্রতিনিধি দল। তাঁদের মতে কমিশন চায় সময়ে ভোট করিয়ে নিতে।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here