যোগ্য হাতেই দলের রাশ, শুভেন্দুর চ্যালেঞ্জ উড়িয়ে বিজেপির ‘মুকুল’ ঝরালেন অভিষেক!

যোগ্য হাতেই দলের রাশ, শুভেন্দুর চ্যালেঞ্জ উড়িয়ে বিজেপির 'মুকুল' ঝরালেন অভিষেক!
যোগ্য হাতেই দলের রাশ, শুভেন্দুর চ্যালেঞ্জ উড়িয়ে বিজেপির 'মুকুল' ঝরালেন অভিষেক!

অর্ক সানা, সম্পাদক(নজরবন্দি): যোগ্য হাতেই দলের রাশ, শুভেন্দুর চ্যালেঞ্জ উড়িয়ে বিজেপির মুকুল ঝরালেন অভিষেক! ‘২১ নির্বাচনের কিছুদিন আগে থেকে মানুষের জন্যে কাজ করতে চেয়ে বার বার মন ব্যাকুল হচ্ছিল একাধিক তৃণমূল নেতার। নেহাতই মনের তাগিদে মানুষের সেবা করার উদ্দেশ্যে এবং সোনার বাংলা গড়তে তাঁরা সদলবলে ফুল বদলেছিলেন। স্বাভাবিক ভাবেই ফুল বদলে সমাজ বদলানোর পার্টি টিকিটও মিলেছিল সহজেই। ভারতবর্ষের বড় বড় ন্যাশান্যাল মিডিয়া হাউস বাংলা ভাষায় টিভি চ্যানেল খুলে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন সোনার বাংলা গড়ার কারিগর হতে।

আরও পড়ুনঃ ২৪ ঘন্টায় ৮১ জনের মৃত্যু, সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও রাজ্যে ‘প্রায়’ নিয়ন্ত্রিত করোনা!

বিজেপির সর্বভারতীয় নেতারা যখন ঘাঁটি গেড়েছেন বাংলায়, ডেলি প্যাসেঞ্জার যখন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি! রাষ্ট্র ফেলে বাংলা যখন একমাত্র টার্গেট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর তখন অঙ্গ প্রত্যঙ্গে দলত্যাগের তীর বেঁধা তৃণমূলকে হুইচেয়ারে বসেই রেশ জিতিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, ২১এর নির্বাচনে বাংলা পেয়েছে আর এক নেতাকে! তাঁকে ঠেকাতেই কার্যত হিমসিম খেয়েছে প্রতিপক্ষ। কখনও ‘ভাইপো’ কখনও ‘তোলাবাজ’ কখনও ‘কয়লা চোর’ কতরকম বিশেষণ! তিনি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। বাড়িতে সিবিআই হানা দিতেও নির্বিকার, চোয়াল শক্ত; লক্ষ্য একটাই…জয়। ফল পেয়েছে অভিষেকের পরিশ্রম, নিষ্ঠা। নির্বাচনের পরে ফল পেয়েছেন নিজেও… রাজ্য থেকে একেবারে সর্বভারতীয় স্তরে কাজ করার গুরুদায়িত্ব। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক।

কিন্তু কটাক্ষ পিছু ছাড়েনি। চলতি সপ্তাহের শুরুর দিন অর্থাৎ সোমবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, বিজেপির একাধিক বিধায়ক যোগাযোগ রাখছেন তৃণমূলের সাথে। ব্যাস, সাথে সাথেই কটাক্ষের ঝড়। চ্যালেঞ্জের আত্মম্ভরিতা! অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী দিল্লিতে বসে মন্তব্য করলেন, “এখন বিরোধী দল বিজেপি, প্রতিপক্ষের নেতা শুভেন্দু অধিকারী! চ্যালেঞ্জ করছি, দল ভাঙিয়ে দেখান!” রাজ্যে বসে একই সুর বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের গলাতেও। বললেন, “চ্যালেঞ্জ করেই বলছি, আমাদের বিধায়কদের ভাঙিয়ে দেখাক। তৃণমূলের নেতারা ওই রকম অনেক কথাই বলেন।”

সোম থেকে শুক্র, মাত্র ৫ দিনের ব্যাবধানে সেই চ্যালেঞ্জের জবাব হাতে কলমে দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। যোগ্য হাতেই দলের রাশ, কার্যত বুঝিয়ে দিলেন অভিষেক! দায়িত্ব নেওয়ার সপ্তাহান্তে দলে নিয়ে এলেন বিধায়ক তো বটেই, কার্যত বাংলার বিজেপিকে নব রূপ দেওয়ার কারিগর তথা বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায় কে। বিজেপি থেকে মুকুল ঝরে যেতেই রাজ্য জুড়ে শুরু হয়েছে বিজেপি ত্যাগ করে তৃণমূলে ফেরত আসার হিড়িক। লম্বা লাইন… অনেকে আবার কান্নাকাটি শুরু করেছেন। তৃণমূল সূত্র বলছে শুধু মুকুল নয় আরও অন্তত ৮ জন বিধায়ক যোগ দিতে চান তৃণমূলে! এখন দেখার ‘প্রতিপক্ষের নেতা শুভেন্দু অধিকারী’ বিজেপির এই স্বতঃপ্রণোদিত ভাঙন কতটা রুখতে পারেন। বলা বাহুল্য নির্বাচন পরবর্তী ‘খেলা’ শুরুতে শুধু জিতলেন না, সর্বভারতীয় স্তরে রাজনীতি করার কতটা যোগ্যতা রয়েছে তার মধ্যে, প্রমাণ দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here