মমতার ইশারায় রে রে করে ওঠেন তৃণমূলের MLAরা, বাইরে বেরিয়েই বিস্ফোরক শুভেন্দু

মমতার ইশারায় রে রে করে ওঠেন তৃণমূলের MLAরা, বাইরে বেরিয়েই বিস্ফোরক শুভেন্দু
মমতার ইশারায় রে রে করে ওঠেন তৃণমূলের MLAরা, বাইরে বেরিয়েই বিস্ফোরক শুভেন্দু

নজরবন্দি ব্যুরোঃ মমতার ইশারায় রে রে করে ওঠেন তৃণমূলের MLAরা, বিধানসভা থেকে ওয়াক আউট করার পরে তেমনটাই জানালেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বলতে গিয়ে সব ব্যাপারে বাধা পেয়ে কক্ষ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেঙ্গেরুয়া শিবিরের বিধায়কেরা। তবে শুভেন্দু বলছেন, প্রথমেই তারা এই সিদ্ধান্ত নেননি। বারে বারে একই ঘটনা ঘটায় বাধ্য হয়ে বেরিয়ে গিয়েছেন। সঙ্গে শুভেন্দুর বিস্ফোরক অভিযোগ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চোখের ইশারায় রে রে করে উঠেছেন ওই কোম্পানি কর্মচারিরা, ল্যাম্পপোস্টরা”

আরও পড়ুনঃ কথায় কথায় বাধা, অধিকারী ভাষণ শেষেই বিধানসভা ছাড়লেন BJP বিধায়করা

প্রথম দিনেই রাজ্যপালের ভাষণ নিয়ে শোরগোল তুলেছিলেন গেরুয়া শিবিরের বিধায়কেরা। শুরু থেকে শুভেন্দু গুঠি সাজিয়েছিলেন ঘরে বাইরে অতিষ্ট করে তুলবে শাসক দলকে। সেই মতো প্রশিক্ষণ ক্লাসে রীতিমত নিয়ম কানুন তৈরি করেছে গেরুয়া শিবির। আজ অধিবেশনের শুরুতেই বিজেপির আনা মুলতুবি প্রস্তাব খারিজ হয়ে যায়, স্বাভাবিক ভাবেই হট্টোগোল শুরু করেন বিধায়কেরা। তার পরেও দফায় দফায় চলতে থাকে বাদ বিবাদ। আজ বিধানসভায় শুভেন্দুরা  বিধানসভায় রাজ্যপালের ভাষণের উপর জবাবি ভাষণ দেন বিধায়করা।

শুভেন্দু অধিকারী বক্তব্য রাখতে শুরু করতেই উঠে আসে পিতৃ প্রসঙ্গ, দলত্যাগ বিরোধী আইন প্রসঙ্গ তুলে এনে  নৈহাটির বিধায়ক পার্থ ভৌমিক কটাক্ষ করে বলেন ‘‘দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করতে বিরোধী দলনেতা ‘বাবাকে বলো’ তে বলুন।’’  বাইরে বেরিয়ে এসে শুভেন্দুর অভিযোগ, “আমার বাবা তুলে অপমান করা হয়েছে।” সঙ্গে তিনি বলেন আমি মুখ্যমন্ত্রীর আগে নিয়ম অনুযায়ী বলতে উঠেতেই প্রতি কথায় টিপ্পনি দিতে শুরু করে শাসক দল।

তার মাঝেই ‘বাবাকে বল’ শব্দবন্ধ ভেসে আসতেই তা অসংসদীয় শব্দ বলে বাদ দিতে অনুরোধ করেন শুভেন্দু, তবে তাঁর বক্তব্য বিজেপি বিধায়ক্রা হট্টগো্ল করার আগে পর্যন্ত তা নিয়ে কোন হেলদোল দেখান নি স্পিকার। বিরোধী দলনেতার দাবি এর পরেও বিধান সভায় ছিলেন তাঁরা। বাংলার রাজনীতিতে এতো বছর পরে বিরোধী শক্তি হিসেবে বিজেপির উঠে আসা, ৭৭ বিধায়ক নিয়ে জয় এসব প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, “একজন মুখ্যমন্ত্রী তিনি বিধানসভা ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরেছেন। তাঁর দল জিতেছে। যিনি তাঁকে হারিয়েছেন তিনি বিরোধী দলনেতা হয়েছেন।”  শুভেন্দুর অভিযোগ এর পরেই বিধানসভার অন্দরে রেরে করে ওঠেন তৃণমূলের বিধায়করা।

মমতার ইশারায় রে রে করে ওঠেন তৃণমূলের MLAরা, বাইরে বেরিয়েই বিস্ফোরক শুভেন্দু। তাঁর কথায়, “একেবারে হুল ফোটার মতো ফুটেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চোখের ইশারায় রে রে করে উঠেছেন ওই কোম্পানি কর্মচারিরা, ল্যাম্পপোস্টরা। স্পিকারকে আইনমন্ত্রী কানে কানে বললেন, আর স্পিকারও বললেন এটা বিচারাধীন বিষয়। আমরা তৃণমূলের টিকা-টিপ্পনি হইহই প্রতিহত করার ক্ষমতা রাখি। কিন্তু অধ্যক্ষ যদি এমন ভূমিকা নেন! তাই আমরা আজ বিধানসভা বয়কট করলাম।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here