চন্দনা বাউরিকে তৃণমূলে যোগ দিতে চাপ দিচ্ছে পুলিশ! বিস্ফোরক শুভেন্দু

চন্দনা বাউরিকে তৃণমূলে যোগ দিতে চাপ দিচ্ছে পুলিশ! বিস্ফোরক শুভেন্দু
চন্দনা বাউরিকে তৃণমূলে যোগ দিতে চাপ দিচ্ছে পুলিশ! বিস্ফোরক শুভেন্দু

নজরবন্দি ব্যুরোঃ চন্দনা বাউরিকে তৃণমূলে যোগের চাপ দিচ্ছে বাঁকুড়ার পুলিশ, আজ বৈঠকে এমনই দাবি করেছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এমনিতেই দিন কয়েক ধরে চর্চার শীর্ষে বিজেপি বিধায়িকা চন্দনা।

আরও পড়ুনঃ উপনির্বাচনের জন্য প্রস্তুত, পুজোর আগেই ভোটে সায় রাজ্য নির্বাচন দফতরের

দরিদ্র পরিয়ান, অনটনকে নিত্য সঙ্গী করে বেঁচে থাকা চন্দনা বিজেপির টিকিটে ভোট জেতার পর থেকেই নজর ছিল সকলের। সেই চন্দনা ভোটে জয়ী হলে সকলেই বলেছিল ঘরের মেয়েকেই চেয়েছে এলাকার মানুষ। তবে এখন চন্দনার চর্চার বিষয় তাঁর দ্বিতীয় বিবাহ।

আচমকা জানা যায় নিজের ড্রাইভারের সঙ্গে পালিয়ে বিয়ে করেছেন তিনি। তিনি নিজে একথা মিথ্যে বললেও ড্রাইভার কৃষ্ণ কুন্ডুর স্ত্রী রূম্পা কুন্ডু বারবার আঙুল তুলেছেন তার দিকেই। তাঁর অভিযোগ সারাদিন চন্দনার কথা ভেবে ভেবেই অসুস্থ হয়ে যাচ্ছে তাঁর স্বামী।

এদিকে কৃষ্ণ কুন্ডুর বক্তব্য বিজেপির নেতারাই দূরে সরিয়ে দিচ্ছেন চন্দনা-কৃষ্ণকে। এসব নিয়ে যখন রাজনীতির অলিন্দ একপ্রকার তোলপাড় তখনই রাজ্যের বিরোধী দলনেতা আজ বিস্ফোরক মন্তব্য করেন। অধিকারীর অভিযোগ, “বাঁকুড়া জেলার পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে বিভিন্ন থানার ওসি-আইসিরা বিজেপি বিধায়ককে নানাভাবে হেনস্থা করছে। চন্দনা বাউরি-সহ প্রত্যেককে হেনস্থা করা হচ্ছে।”

চন্দনাদের নামে মিথ্যে মামলা করা হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক। তাঁর মতে, “চন্দনা বাউরিকে পুলিশ সরাসরি তৃণমূলে যোগ দিতে বলেছে। কিন্তু ভাঙা ঘরে থাকা তফসিলি পরিবারের মহিলা চন্দনা বাউরি আত্মসমর্পণ করেননি। তিনি আগেও বিজেপির সঙ্গে ছিলেন, এখনও বিজেপির সঙ্গেই রয়েছেন। চন্দনা পুলিশকে সরাসরি বলেছে ‘৬ মাস জেল খাটান।’ বিজেপির হাজার হাজার কর্মীরা জেলে আছেন কারণ তাঁরা এই মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর ব্যবস্থার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে বিজেপির ঝাণ্ডা ধরেছেন।”

সমগ্র ঘটনার জন্য বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার এবং পুলিশ প্রশাসনকে হুঁশিয়ারিও দেন তিনি, “পুলিশ প্রশাসনকে আমরা সতর্ক করতে চাই। যদি আপনারা এই ধরনের কাজ করেন, এহেন কথা বিজেপির নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বলেন, তাহলে গণতান্ত্রিত আন্দোলনও হবে। এবং আইনগতভাবে ব্যবস্থাও আমরা নেব।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here