আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের

আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের

নজরবন্দি ব্যুরোঃ পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী বিয়ের আগে বাগদত্তা কে আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো কে আইনত অপরাধ ও মহিলার সম্মানহানি বলে গন্য কড়া হলেও, বর্তমানে বাগদত্তাকে অশ্লীল মেসেজ পাঠানো কে কেন্দ্র করে নয়া নির্দেশিকা জারি করল মুম্বই আদালত। সেই অনুসারে কোন ব্যক্তির ভবিষ্যতে যাঁর সঙ্গে বিয়ে হবে তাঁকে এই ধরনের ম্যাসেজ পাঠানো কে এবার থেকে আর অপরাধ বলে গন্য কড়া যাবে না।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানি মহিলা MLA-এর অশ্লীল ভিডিও! সঙ্গে হুমিকির ফোন, ইমরানের দারস্থ বিধায়ক সানিয়া

পাশাপাশি গত  ১১ বছর ধরে চলে আসা পুরনো একটি মামলার শুনানি তেও এই একই কথা ঘোষণা করে মুম্বই আদালত। জানা গিয়েছে, ১১ বছর আগে মূলত প্রতারনা ও বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার ভিত্তিতে আইনি হেফাজতে নেওয়া হয়েছিল ওই অভিযুক্ত কে।

তবে আজ আদালতের তরফ থেকে বিচারপতি জানায়, বিয়ের আগে এই ধরণের মেসেজ পাঠানো শুধুমাত্র আবেগের বহিঃপ্রকাশ মাত্র। তবে এই ধরনেই ম্যাসেজ অপরপক্ষের কাছে গ্রহনযোগ্য না হলেও আসলে আবেগতাড়িত হয়েই এইসব মেসেজ পাঠিয়েছেন এই অভিযুক্ত।

আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, জানিয়ে দিল মুম্বই আদালত

আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের
আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের

মূলত, নিজের মধ্যে থেকে জেগে ওঠা যৌন অনুভূতি কে অপরদিকের মানুষটির মধ্যে জাগিয়ে তোলার পরিকল্পনাই ছিল ওই ব্যক্তির।তাই কোনরকম ভাবেই একে সম্মানহানির কারন হিসেবে দেখছেন না বিচারপতিরা। তবে এই ঘোষণা সামনে আসতেই রীতিমতো হইচই পড়ে গিয়েছে নেটিজেনদের মধ্যে।

আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের
আপত্তিকর মেসেজ পাঠানো অন্যায় নয়, নজিরবিহীন ঘোষণা মুম্বই আদালতের