মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান সহ ৬০ তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দিল আদালত।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান সহ ৬০ তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দিল আদালত।
মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান সহ ৬০ তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দিল আদালত।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ নন্দীগ্রামে কার্যত নজিরবিহীন বেকায়দায় তৃণমূল। মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান কে গ্রেফতার করার নির্দেশ আদালতের! শুধু মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নির্বাচনী এজেন্ট নয়, গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে আরও একাধিক তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আবু তাহের, তৃণমূলের নন্দীগ্রাম ব্লকের সভাপতি স্বদেশরঞ্জন দাস, তৃণমূল নেতা সাহাবুদ্দিন এবং আরও প্রায় ৬০ জন নেতার বিরুদ্ধে। ২০০৭-এর মামলা মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে গতকাল থেকে।

আরও পড়ুনঃ ‘স্বপন দাশগুপ্ত জঘন্য প্রার্থী’, না বদলালে দলে দলে নোটায় ভোট পড়বে! হুঁশিয়ারি আরামবাগ BJP-র

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে বাম সরকারের আমলে ভূমি উচ্ছেদ প্রতিরোধ কমিটির বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছিল। ২০১১ সালে ক্ষমতা বদলের পর মামলা গুলি ধামাচাপা পড়ে যায়। ২০২১ পর্যন্ত পুলিশ সম্পূর্ণ নীরব ছিল এই মামলাগুলি নিয়ে। আর ২১ সালের নির্বাচনের আগে রাজ্য সরকার মামলা গুলি প্রত্যাহার করে নেয়। রাজ্য সরকার নির্বাচনের আগে মামলা গুলি প্রত্যাহার করে নেওয়ায় টনক নড়ে বিজেপির। মামলা প্রত্যাহার কে চ্যালেঞ্জ করে মামলা হয় হাইকোর্টে।

মামলা প্রত্যাহার নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন আইনজীবী ও বিজেপির নন্দকুমারের প্রার্থী নীলাঞ্জন অধিকারী। সেই মামলায় গত ৫ই মার্চ কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দেয় নতুন করে মামলাটি চালু করার জন্যে। সেইমত ২০০৭ সালে বাম সরকারের আমলে করা মামলার এদিন শুনানি হয় হলদিয়া কোর্টে। মামলাটি শুনে বিচারপতি অভিযুক্তদের জামিন খারিজ করে, গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন!

হলদিয়া আদালতের বিচারপতির এই রায়ে নজিরবিহীন শঙ্কটে পড়েছে তৃণমূল। কারণ এখন সবকিছুই নির্বাচন কমিশনের হাতে। প্রশাসন কে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ রয়েছে, শান্তিপূর্ণ ও অবাধ নির্বাচনের স্বার্থে যার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে তাঁকে গ্রেফতার করতে বাধ্য পুলিশ। আর একবার গ্রেফতার হলে নির্বাচন না মেটা পর্যন্ত জামিন পাওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই! সুতরাং পুলিশ একপ্রকার বাধ্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান কে গ্রেফতার করতে। যদিও শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হননি এখনও।