দ্বিতীয় বছরে মহামারী আরোও ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে! চিন্তিত WHO-র প্রধান

দ্বিতীয় বছরে মহামারী আরোও ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে! চিন্তিত WHO-র প্রধান
দ্বিতীয় বছরে মহামারী আরোও ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে! চিন্তিত WHO-র প্রধান

নজরবন্দি ব্যুরোঃ দ্বিতীয় বছরে মহামারী আরোও ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেসাস শুক্রবার বলেন যে, ভারতের কোভিড -১৯ পরিস্থিতি বেশ উদ্বেগজনক, কিছু রাজ্যের সংক্রমণ মারাত্মক রূপ নিচ্ছে , প্রত্যেকদিন হাজার হাজার মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। হাসপাতালে আসা মানুষের মৃত্যুর ঘটনাও বাড়ছে।

আরও পড়ুনঃ রাজ্য বনাম রাজ্যপাল! ধনখড়’কে নিশানা করে সায়নীর তোপ, গান্ধী হওয়ার চেষ্টা করছেন

তিনি আবার সতর্ক করে বলেন, মহামারীর দ্বিতীয় বছর প্রথম বছরের চেয়ে মারাত্মক হবে। সুতরাং মানুষকে আরও সতর্ক হওয়ায় পরামর্শ দিয়েছেন। করোনার কারণে জাপান এ দিন জরুরি অবস্থা জারি করার পরই এই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন হু প্রধান। টেড্রোসের বক্তব্য, ‘অতিমারী যে আরও বেশি মারাত্মক হতে চলেছে, তার ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই আমরা পেয়ে গিয়েছি।’

একইসঙ্গে ভারতের করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত উদ্বেগজনক বলে শুক্রবার মন্তব্য করেন টেড্রোস। তিনি বলেন ভারতের বেশ কিছু রাজ্যের করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সেই সঙ্গে তিনি সচেতন করেন এই বছরে আরও ভয়ঙ্কর রূপ দেখাবে এই মারণ ভাইরাস।ডিসেম্বরের ১৯ তারিখে ভারতে করোনা রোগীর মোট সংখ্যা এক কোটি ছাড়িয়ে গিয়েছিল।

মে মাসের মধ্যেই তা ২ কোটির চৌকাঠ পেরিয়ে গেছে। হু কর্তা বলছেন, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড, মিশরে কোভিড রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। আমেরিকা ও আফ্রিকার কয়েকটি রাজ্যেও করোনা সংক্রমণ সাঙ্ঘাতিক। ভারতে কোভিড মহামারীর জন্য রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সমাবেশ, উত্সব-অনুষ্ঠানকেই দায়ী করেছিল হু।

বলা হয়েছিল, মার্চের আগেই সতর্ক করা হয়েছিল করোনাভাইরাসের আরও কয়েকটি মিউট্যান্ট প্রজাতি মাথা চাড়া দিতে পারে। ভাইরাসের জিনের বিন্যাস বদলাতে শুরু করে দিয়েছে, ফের সংক্রমণ প্রবল আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। সতর্কতা সত্ত্বেও সচেতনতা ছিল না। ফলে সব মিলিয়ে সামগ্রিক অবস্থা নিয়ে বেশে চিন্তিত WHO।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here