তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী, লাইনে মিহির, হিরণ! ৭৭ থেকে ৬৮-র পথে বিজেপি।

তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী, লাইনে মিহির, হিরণ! ৭৭ থেকে ৬৮-র পথে বিজেপি।
তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী, লাইনে মিহির, হিরণ! ৭৭ থেকে ৬৮-র পথে বিজেপি।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের কয়েকমাস আগে থেকে বিভিন্ন দল বিশেষ করে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দানের ধুম পড়েছিল নেতা নেত্রীদের। কমবেশি সবার যুক্তি ছিল প্রায় একই। দলে থেকে কাজ করতে পারছিলেন না তাঁরা। সবাই চেয়েছিলেন মানুষের জন্যে কাজ করতে। কিন্তু আশা পুর্ণ হয়নি। ক্ষমতায় ফিরেছে তৃণমূল। আর তারপরেই বদলে গেছে অঙ্ক। এখন বিজেপি থেকে যোগদানের ধুম পড়েছে তৃণমূলে। সেই পথেই তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী দত্ত।

আরও পড়ুনঃ বিধায়ক পদে শপথ নিলেন মমতা, প্রথা ভেঙে শপথ বাক্য পাঠ করালেন রাজ্যপাল

২মে ‘২১ বিধানসভা নির্বাচনে ফল ঘোষণা হওয়ার পর এক মাস কাটতে না কাটতেই দল ছাড়া শুরু করেন বিধায়করা। প্রথম দল ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক মুকুল রায়। মুকুলের পরে  বিষ্ণুপুরের তন্ময় ঘোষ, বাগদার বিশ্বজিৎ দাস, কালিয়াগঞ্জের সৌমেন রায়, রায়গঞ্জের কৃষ্ণ কল্যাণী। পাঁচ মাসে পাঁচ জন দল ছেড়েছেন। আজ তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী। দল ছাড়ার লাইনে রয়েছেন আরও কয়েকজন। যার মধ্যে অন্যতম মিহির গোস্বামী এবং হিরণ চট্টোপাধ্যায়।

২০১৯ সালে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি তে যগ দিয়েছিলেন সব্যসাচী। এদিন ২ বছর পদ্মে সংসার করে ফিরলেন পুরনো ঘরে। তৃণমূলে ফেরানোর ব্যাপারে স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হস্তক্ষেপ করেছিলেন। কথা বলেছিলেন সুজিত বসুর সঙ্গে। এদিন পদ্ম ছেড়ে জোড়াফুলে যোগ দিয়ে সব্যসাচী বলেন, ‘‘ভুল বোঝাবুঝির জন্য দল ছেড়েছিলাম। আমায় আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গ্রহণ করেছেন, পার্থদা, ববিদা গ্রহণ করেছেন। আমি কৃতজ্ঞ। দল যে ভাবে বলবে সে ভাবে কাজ করব।’’

তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী দত্ত। 

তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী
তৃণমূলে যোগ দিলেন সব্যসাচী

অন্যদিকে, ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের কিছুদিন আগে পুরোনো দল তৃণমূলের সাথে সব সম্পর্ক ছিন্ন করে ভারতীয় জনতা পার্টিতে নাম লিখিয়েছিলেন অভিনেতা হিরণ চট্টোপাধ্যায়। দল বদল করে তৎকালীন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের হাত থেকে পদ্ম পতাকা হাতে নেন তিনি। কিন্তু এখন সেই দিলীপ ঘোষের সাথে তৈরী হয়েছে দূরত্ব। বলা ভাল মুখ দেখা দেখি বন্ধ মেদিনীপুরের সাংসদের সাথে। শোনা যাচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি পুরনো দলে ফিরতে চলেছেন তিনি।

অন্যজনের নাম মিহির গোস্বামী। মহালয়ার দিন বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীর বাড়িতে এলেনগিয়েছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি গিরীন্দ্রনাথ বর্মন। দু’জনের মধ্যে একান্ত আলোচনা হয়। সূত্রের খবর, মিহির যোগ দিতে চান তৃণমূলে বিজেপির সাথে কাজ করতে অসুবিধা হচ্ছে তারও। সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে মিহিরবাবু জানান, “গিরীন্দ্রনাথ বর্মন অত্যন্ত সৎ এবং সজ্জন ব্যক্তি। ওনাকে শুভকামনা জানিয়েছি।” তবে কিসের শুভকামনা টা জানাননি বিজেপি নেতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here