এবার অরুণাচল সীমান্তে লাল সেনার উপদ্রব, ভারত চীন সীমান্ত সংঘাত চরমে।

এবার অরুণাচল সীমান্তে লাল সেনার  উপদ্রব, ভারত চীন সীমান্ত সংঘাত চরমে।

নজরবন্দি ব্যুরো: এবার অরুণাচল সীমান্তে লাল সেনার উপদ্রব, পূর্ব লাদাখ সীমান্তে সংঘাত শুরু হয়েছে বেশ কয়েক মাস আগে। দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের সেনা বৈঠকের পরেও জিইয়ে রয়েছে সেই সংঘাত। লাদাখ সীমান্তের পাশাপাশি এবার অরুণাচল সীমান্তে এবার উপদ্রব শুরু করলো লাল সেনা। সূত্রের খবর অরুণাচল সীমান্তে সেনা জমায়েত ধীরে ধীরে বাড়াচ্ছে চীন। সামরিক শক্তি ও বাড়াচ্ছে তারা। তবে শক্তিতে ভারতীয় সেনারা পিছিয়ে নেই।

আরও পড়ুনঃ আডবানী-যোশী-ঊমার ভাগ্য নির্ধারণ। বাবরি ধ্বংস মামলার রায় ৩০ সেপ্টেম্বর।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে খবর ভারতও ইতিমধ্যে সেনা জমায়েত করতে শুরু করেছে। সামরিক প্রস্তুতি ও চলছে জোরকদমে। অরুণাচল সীমান্ত চার জায়গায় সামরিক প্রস্তুতি করছে চীন বাহিনী. ভারত নিয়ন্ত্রিত এলাকার ২০ কিলোমিটারের মধ্যে আসাফিলা, টুটিং আকশিস, চান জি ও ফিসলেট ২ সেন্টার এ সেনা মোতায়েন করতে দেখা যাচ্ছে চীনকে। ভারত সেনা সূত্রে খবর এর মধ্যে আসাফিলা ও ফিসলেট ২ সেন্টার এ লাল সেনার তৎপরতা বেশি। ভারতের খুব কাছে হওয়ায় অনুমান করা হচ্ছে সেনা বাড়ানোর সঙ্গে এই জায়গা গুলিতে রাইফেল ডিভিশনও মোতায়েন করেছে পিপল লিবারেশন আর্মি।

বিশেষজ্ঞ দের মতে লাদাখে ভারতীয় সেনার সঙ্গে এঁটে উঠতে না পেরে অরুণাচল সীমান্ত কে এবার লক্ষ করেছে তারা। আপার সুবানসিরি থেকে ৫ অরুণাচল যুবক কে তুলে নিয়ে যাওয়া ভারতীয় সেনাকে চাপে ফেলারই কৌশল। লাদাখ এর মত অরুণাচল সীমান্ত নিয়ে সংঘাত বহুদিনের। ১৯৬২ এর যুদ্ধের সূত্রপাত অরুণাচলকে কেন্দ্র করে। চীন একে দক্ষিণ তিব্বতের অংশ মনে করে তাই অরুণাচল এও আধিপত্য বিস্তার করতে মরিয়া তারা। জুন মাসে গালওয়ান এ সংঘর্ষ নিয়ে শঙ্কিত হয় ভারতীয় বাহিনী।

তবে এবার সমস্ত দিক দিয়ে প্রস্তুত সেনা, নিয়মিত ওই এলাকায় সেনা বিন্যাস বদলাচ্ছে ভারত. তাই চীন এর কৌশল কাজে আসবেনা বলে নিশ্চিত ভারত। সিকিম সীমান্তে ও মাঝে মাঝেই চলে লাল সেনার অত্যাচার। ৬২ যুদ্ধ হারলেও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ভারত যথেষ্ট শক্তিশালী। সামরিক শক্তি থেকে যুদ্ধের দক্ষতা সব ক্ষেত্রে প্রশংসার যোগ্য ভারতীয় সেনা। উল্টে ভারতীয় রনকৌশল চীন এর চিন্তার কারণ সামরিক দিকে যে কোনও ক্ষেত্রে প্রস্তুত ভারত। যে কোনো জবাব দেওয়ার শক্তি আছে ভারতের। গত কয়েক বছরে মেচুকা ওয়ালং জিরো অলং স্পট এ বিমান ঘাঁটি আধুনিক করেছে ভারত।

এবার অরুণাচল সীমান্তে লাল সেনার উপদ্রব, এছাড়া চীনা সীমান্তের ১০০ কিমির মধ্যে অরুণাচল এর সিয়ং প্রদেশে পাশেঘাট ল্যান্ড ও রয়েছে ভারতের. যেখানে বোমার বিমান ফাইটার জেট ল্যান্ড করতে পারে। চাইলে চীন এর আক্রমণ কে উড়িয়ে দিতে পারে ভারত। তাই সবদিক থেকে তৈরি ভারতের উপর চীন আগ্রাসন কোনো প্রভাব ফেলতে পারবে না বলেই মনে করছে কূটনৈতিক মহল ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x