Panchayet Election: নির্বাচনের ঢাকে কাঠি, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার নির্দেশ কমিশনের।

নির্বাচনের ঢাকে কাঠি, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার নির্দেশ কমিশনের।
Election Commission ordered to finish the work by September 12.

নজরবন্দি ব্যুরোঃ দিন কয়েক আগেই বর্ধমানের সভামঞ্চ থেকে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাতে সময় মাত্র ছয় মাস৷ তারপরেই জল প্রকল্প থেকে গ্রামীণ রাস্তা পঞ্চায়েতের সমস্ত প্রকল্পের কাজ মাত্র ছয় মাসের মধ্যে সেরে ফেলার নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যসচিব হরেকৃষ্ণ দ্বিবেদী। প্রশ্ন উঠছিল তাহলে কি সময় হয়ে এসেছে পঞ্চায়েত নির্বাচনের? এবার সেই প্রশ্নের উত্তর দিল নির্বাচন কমিশন।

আরও পড়ুনঃ বিধায়কপদ থেকে ইস্তফা দিতে প্রস্তুত, মক্কেলের হয়ে জানালেন পার্থর আইনজীবী

আজ থেকেই পঞ্চায়েত ভোটের প্রস্তুতি শুরু করে দিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। কমিশন সূত্রে খবর, নির্বাচনের প্রস্তুতি হিসেবে পঞ্চায়েত দফতর ও জেলা শাসকদের চিঠি পাঠানো হয়েছে। চিঠিতে ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আসন বিন্যাসের কাজ শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ১৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আসন সংরক্ষণের কাজ শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

panchayet

বর্ধমানের সভামঞ্চ থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, যে কোনও দিন নির্বাচন ঘোষণা হয়ে যাবে। তাই কাজগুলো ঝটপট করুন৷ নাহলে নির্বাচনে ললিপপ খাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর এই কথাতেই বোঝা যাচ্ছিল এগিয়ে আসতে পারে নির্বাচন৷ তারপর মুখ্যসচিবের নির্দেশে সেই জল্পনা আরও জোরালো হয়। মনে করা হচ্ছে পুজোর পরেই হতে পারে নির্বাচন।

nabanna 2

তবে ২১ জুলাইয়ের প্রস্তুতি সভা থেকেই পঞ্চায়েত নির্বাচনের কাজ শুরু করেছে রাজ্যের শাসকদল৷ তৃণমূল সূত্রে খবর, এখন থেকেই জেলা সংগঠনে জোর দেওয়া হচ্ছে৷ পরে রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ এলেই শুরু হবে কাজ। আপাতত সরকারের প্রকল্পের কথা বাড়ি বাড়ি প্রচার করছেন তাঁরা৷

নির্বাচনের ঢাকে কাঠি, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার নির্দেশ কমিশনের।

পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঢাকে কাঠি, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের।
পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঢাকে কাঠি, ১২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের।

অন্যদিকে, সমস্ত আটঘাট বেঁধে একেবারে পরিকল্পনামাফিক পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে বামেরাও। বিধানসভা নির্বাচনে দলের বিপর্যয়ের পর যেভাবে জেলায় জেলায় ঘুরে দাঁড়াচ্ছে লাল পতাকা, তাতে কর্মীরা উজ্জীবিত। এটাই তাঁদের জন্য ঘুরে দাঁড়ানোর বড় চ্যালেঞ্জ।

একইসঙ্গে সর্বশক্তি দিয়ে এবারের নির্বাচনী প্রচারে নামতে চায় বিজেপিও। জেলায় জেলায় আগের থেকে সংগঠন দুর্বল হলেও এত সহজে হাল ছাড়তে নারাজ গেরুয়া শিবিরের শীর্ষ নেতৃত্ব৷ একাধিক জায়গায় পঞ্চায়েত গঠনের সমূহ সম্ভাবনার কথা দাবি করছেন পদ্ম শিবিরের নেতারাও।