আরএসএসের নিষিদ্ধকরণের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘে পাকিস্তান

আরএসএসের নিষিদ্ধকরণের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘে পাকিস্তান

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আরএসএসের নিষিদ্ধকরণের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘে দ্বারস্থ পাকিস্তান। যতদিন যাচ্ছে তত বেশি কোণঠাসা হয়ে পড়ছে পাকিস্তান। এমনকী, ‘বন্ধু’ চিনও কার্যত মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। এছাড়াও FATF (ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স)-এর ধূসর তালিকা থেকে তারা বেরতে পারবে কিনা সেই নিয়েও উত্তেজনা রয়েছে চরম। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের উপর থেকে চাপ কমাতে এবার ভারতের দিকে চাপ বাড়াতে নিজেদের তৈরি করার খেলা শুরু করল পাকিস্তান। এদিন রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে (UNSC) রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ তথা আরএসএসকে (RSS) ‘হিংসাত্মক চরমপন্থী দল’ বলে আক্রমণ করে তারা। এই নিয়ে তাঁরা দাবি তুলল নিষিদ্ধ করার।

আরও পড়ুনঃ একাধিক শূন্যপদে কর্মী নিয়োগ করছে রাজ্য পুলিশ। আজই আবেদন করুন।

জাতীয়তাবাদী দলগুলিকে কী করে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, তা নিয়ে মঙ্গলবার রাষ্ট্রসংঘে বক্তব্য রাখেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মুনির আক্রম। সেই সময়ই তিনি আরএসএসকে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন। দাবি করেন, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক আরএসএস। তাঁর কথায়, ”এই ধরনের হিংসাত্মক মৌলবাদী এবং চরমপন্থী সন্ত্রাসবাদ থেকেই পালটা হিংসার জন্ম হয়। যা আইসিস কিংবা আল কায়দার মতো জঙ্গি সংগঠনকেই প্রশ্রয় দেয়।”

আরএসএসের নিষিদ্ধকরণের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘে পাকিস্তান। এখানেই শেষ নয়। তিনি সরাসরি নিশানা করেন বিজেপিকেও। তাঁর দাবি, গেরুয়া শিবিরের ‘হিন্দুত্ববাদী আদর্শ’ ভারতের মুসলিমদের জীবনকে বিপন্ন করে তুলেছে। আল কায়দার মতো জঙ্গি সংগঠনই কেবল নয়, শ্বেতাঙ্গ ও অন্যান্য মৌলবাদী সংগঠনগুলিকেও নিষিদ্ধ করতে পারলেই বিশ্বজুড়ে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা মৌলবাদকে রোখা যাবে বলে এদিন তিনি দাবি করেন তিনি। তাঁর এই ধরনের কথা থেকেই পরিষ্কার, এভাবেই কার্যত নিজেদের দিকে ওঠা আঙুলের জবাব দিতে স্ট্র্যাটেজি নিচ্ছে পাকিস্তান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x