অনুমোদনের অপেক্ষায় শুভেন্দু-র গ্রেফতারি, টাকা নেওয়ার প্রমাণ নেই মুকুলের বিরুদ্ধে!

অনুমোদনের অপেক্ষায় শুভেন্দু-র গ্রেফতারি, টাকা নেওয়ার প্রমাণ নেই মুকুলের বিরুদ্ধে!
অনুমোদনের অপেক্ষায় শুভেন্দু-র গ্রেফতারি, টাকা নেওয়ার প্রমাণ নেই মুকুলের বিরুদ্ধে!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ অনুমোদনের অপেক্ষায় শুভেন্দু-র গ্রেফতারি, সূত্রের খবর, নারদ ঘুষ কাণ্ডে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে যথেষ্ট প্রমাণ পেয়েছে সিবিআই। তবে অন্য বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার কোন প্রমাণ আপাতত পায়নি সিবিআই। তবে তদন্ত বন্ধ হচ্ছে না। সিবিআই সূত্রে খবর, মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেওয়ার অনুমতি চাওয়া হয়নি কারণ নারদ স্টিং অপারেশনের তদন্তে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার যথেষ্ট প্রমাণ মেলেনি।

আরও পড়ুনঃ করোনার প্রভাব দেশের অর্থনীতিতে, চলতি মাসে বেকারত্বের হার হতে পারে সর্বোচ্চ, দাবি অর্থনীতিবিদদের

এদিকে, নারদ ঘুষ কাণ্ডে রাজ্যের ৪ হেভিওয়েট নেতাকে ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে সিবিআই। ৪ জন প্রথমে ব্যাক্তিগত বন্ডে জামিন পেলেও। হাইকোর্ট সেই জামিনে স্থগিতাদেশ দেয়। আপাতত ৪ জনকেই জেলে পাঠিয়েছে সিবিআই। যদিও জেলে যাওয়ার পর ৩ হেভিওয়েট অসুস্থতা নিয়ে ভর্তি হয়েছেন হাসপাতালে। তাঁরা পাশাপাশি ৩টি কেবিন -এ ভর্তি রয়েছেন এসএসকেএম হাসপাতালের উডবার্ণ ব্লকে। আপাতত জেলে রয়েছেন কেবলমাত্র ববি হাকিম।

অন্যদিকে, তৃণমূল নেতাদের গ্রেফতারি নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে চাপানউতোর তুঙ্গে। দলের মন্ত্রী-‌বিধায়কদের গ্রেপ্তারির পর থেকেই তৃণমূল দাবি করতে থাকে বিজেপির মুকুল রায় এবং শুভেন্দু অধিকারীও ঘুষ নিয়েছেন তাঁরা কেন জেলের বাইরে? তৃণমূল নেতাদের একটাই দাবি, মুকুল এবং শুভেন্দুকে গ্রেফতার করতে হবে।

এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে, সিবিআই সূত্র চমকপ্রদ তথ্য দিল। সিবিআই সূত্রে খবর, নারদ স্টিং অপারেশনের তদন্তে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার যথেষ্ট প্রমাণ মেলেনি। সে কারনেই মুকুলের বিরুদ্ধে চার্জশিট গঠনের কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। তবে তদন্ত চলবে বলে জানানো হয়েছে। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু কে নিয়ে সিবিআই সূত্রের খবর, নারদ কাণ্ডে শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে তাঁদের কাছে যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। যে কোন মুহুর্তে গ্রেফতার করা হতে পারে শুভেন্দু অধিকারীকেও। কিন্তু গ্রেফতার করা হচ্ছে না কেন?

অনুমোদনের অপেক্ষায় শুভেন্দু-র গ্রেফতারি, সিবিআই সূত্রে খবর, ২০১৯-এর এপ্রিলে চার্জশিট পেশ করার জন্য আইনি প্রক্রিয়া শুরু করার অনুমোদন বা ‘প্রসিকিউশন স্যাংশন’ চাওয়া হয় লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার কাছে।  এখনও তার অনুমোদন দেননি লোকসভার স্পিকার। তাই শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না। এর পাশাপাশি তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়,কাকলি ঘোষ দস্তিদারদের বিরুদ্ধেও ঠিক একই কারণে কোনও চার্জশিট আনা সম্ভব হচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here