প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, উপনির্বাচন নিয়ে কোন সমস্যা দেখছেন না মমতা

প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, উপনির্বাচন নিয়ে কোন সমস্যা দেখছেন না মমতা
প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, উপনির্বাচন নিয়ে কোন সমস্যা দেখছেন না মমতা

নজরবন্দি ব্যুরোঃ প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, নবান্ন বৈঠক থেকে রাজ্যের উপনির্বাচন প্রসঙ্গে তেমনটাই জানালেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই মুহুর্তে রাজ্যের প্রধান চিন্তা উপনির্বাচন। তার কারণ এবার কেন্দ্র জিতে শুধু বিধায়ক আসা নয়। এবার এই লড়াই লড়বেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।

আরও পড়ুনঃ বাংলা অ-বিজেপি বলেই টিকা আসেনা, উত্তরপ্রদেশের উদাহরণ দিয়ে ক্ষোভ মমতার

নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েও মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। আর সেই কারণেই আগামী ৬ মাসের মধ্যে জিতে ফিরতে হবে বিধায়িকা হিসেবে। তার মধ্যেই ইতিমধ্যেই অতিবাহিত হয়েছে মাস দুই। হাতে আর মাস চারেক। আগামী ৫ই নভেম্বরের মধ্যে জয়ী বিধায়িকা হিসেবে বিধানসভায় ফিরতে হবে মমতাকে।

তৃণমূলের মত ছিল ইচ্ছে করেই করোনা কমলেও নির্বাচন করাতে চাইছে না কমিশন। এর আগেও দলের তরফে জানানো হয়েছে রাজ্যে এই মুহুর্তে পরিস্থিতি ভালো আগের থেকে। উপনির্বাচনের দাবি নিয়েই আজই জাতীয় নির্বাচন কমিশনে গিয়েছেন দলের ৬ সাংসদ।

তার মধ্যেই আজ নবান্ন বৈঠক থেকে সেই প্রসঙ্গই তুলে আনলেন মুখ্যমন্ত্রী। একই কথা তাঁর গলাতেও। এই মুহুর্তে রাজ্যে পরিস্থিতি ভালো আগের থেকে, কেন্দ্র গুলিতে কমছে কোভিডের গ্রাফ। আজ বৈঠকে দলের সুপ্রিমো বলেন,‘‘আমি ভবানীপুর নিয়ে কলকাতা পুরসভার একটা রিপোর্ট দেখছিলাম। অনেক ওয়ার্ডই কোভিডশূন্য।’’

প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, কলকাতা পুরসভার একটা রিপোর্ট দেখেছেন মমতা। 

প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, উপনির্বাচন নিয়ে কোন সমস্যা দেখছেন না মমতা
প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, উপনির্বাচন নিয়ে কোন সমস্যা দেখছেন না মমতা

উল্লেখ্য বাই ইলেকশন করানোর আগেই রাজ্যের তরফ থেকে ৭ কেন্দ্রের কোভিড পরিসংখ্যান করা হয়েছে। ১০ জুলাই পর্যন্ত বিচার করা সেই রিপোর্ট প্রস্তুত হয়েছে ইতিমধ্যেই। তাতে স্বাস্থ্য ভবনকে রাজ্যের তরফে যে রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে তাতে উল্লেখ করা হয়েছে, এই সময়ের মধ্যে দিনহাটা বিধানসভা এলাকায় ৪২ জন,ভবানীপুর এলাকায়২৬, খড়দহে ২৬ জন, গোসাবা বিধানসভায় ১৭ জন,শান্তিপুরে ৩৯ জন, সামশেরগঞ্জে ১ জন এবং জঙ্গিপুরে ৫ জন  নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

আজ মুখ্যমন্ত্রীও জানিয়েছেন প্রায় কোভিড মুক্ত ভবানীপুর, বাকি কেন্দ্র গুলিতেও অবস্থা উন্নত। সেই সঙ্গে মমতা জানান, ‘আমরা ওদের বলেছিলাম, রাজ্যসভা তো বটেই। বিধানসভা ভোটের জন্যও আমরা তৈরি। উপনির্বাচন তো হবে একেকটা বিচ্ছিন্ন এলাকায়।’  একই সঙ্গে বাংলায় উপনির্বাচন নিয়ে মমতার মত অসাংবিধানিক কিছু চাইছে না তৃণমূল কংগ্রেস।

আজ নবান্ন বৈঠক থেকে করোনা কালের উপনির্বনাচন প্রসঙ্গে মমতা জানান,, ‘‘সংবিধান অনুযায়ী, আইন অনুযায়ী ভোটের ফল প্রকাশের ছ’মাসের মধ্যে উপনির্বাচন করাতে হবে। ফলে আমরা বেআইনি বা অসাংবিধানিক কিছু চাইছি না। কিন্তু বিজেপি জানে, ওরা প্রতিটায় হারবে! তাই ওরা ভোট চাইছে না।’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here