নেতাইয়ে শহীদবেদিতে স্পর্শ শুভেন্দুর, গঙ্গাজল দিয়ে ‘শুদ্ধিকরণ’ তৃণমূলের

নেতাইয়ে শহীদবেদিতে স্পর্শ শুভেন্দুর, গঙ্গাজল দিয়ে ‘শুদ্ধিকরণ’ তৃণমূলের

নজরবন্দি ব্যুরো: নেতাইয়ে শহীদবেদিতে স্পর্শ শুভেন্দু অধিকারীর। আর সেটাই গঙ্গাজল দিয়ে ‘শুদ্ধিকরণ’ করল তৃণমূল। নেতাইয়ে শহিদ বেদিতে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন মদন মিত্র ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। গঙ্গাজলে বেদি ধুয়ে দিল তৃণমূল। এদিন মদন মিত্র বলেন, ‘শুভেন্দুর নরকেও জায়গা হবে না। সত্যবাদী যুধিষ্ঠিরকেও নরকে যেতে হয়েছিল কিন্তু শুভেন্দু অধিকারীর নরকেও জায়গা হবে না। কারণ উনি বলেছেন নেতাই-নন্দীগ্রামের জন্য নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আসেননি, এসেছিল ভারতীয় জনতা পার্টির নেতৃত্ব।” পাশাপাশি স্বজনপোষণ নিয়েও শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমণ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: অশান্ত আমেরিকা, ক্যাপিটাল বিল্ডিং-এ হামলায় মৃত্যু ৪, গ্রেপ্তার ৫০।

তিনি আরও বলেন, “বলছে যে তৃণমূলকে ঘেন্না করে। আপনার বাবাও তো তৃণমূল করেন, তাহলে কী বাবাকেও ঘেন্না করেন? লালগড়ে মিছিল করব। পারলে আটকাও।” প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার সকাল আটটার কিছু পরে নেতাইয়ে পৌঁছন শুভেন্দু। সেখানে শহিদ বেদীতে শ্রদ্ধা জানান তিনি। সেখানে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, ‘এতদিন আর কাউকে দেখা যায়নি। ভোট এসেছে তাই ফের নন্দীগ্রাম, নেতাইয়ের কথা মনে পড়েছে।’

এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে বহিরাগত বলে আক্রমণ শানান তিনি। এর পর নেতাইয়ে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য ও শীতবস্ত্র দান করেন শুভেন্দু অধিকারী। এরপর একটু বেলার দিকে সেখানে গিয়ে পৌঁছান তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও মদন মিত্র। তাঁরা পৌঁছতেই শহিদ বেদী গঙ্গাজল দিয়ে শুদ্ধিকরণ শুরু হয়। তৃণমূলের দাবি, শুভেন্দুর মতো মিরজাফর শহিদ বেদী ছোঁয়ায় তা অপবিত্র হয়েছে। তাই তার শুদ্ধিকরণ প্রয়োজন।

নেতাইয়ে শহীদবেদিতে স্পর্শ শুভেন্দুর, এদিকে গঙ্গাজল দিয়ে শহিদ বেদী পরিষ্কার করার পর তাতে মাল্যদান করেন তৃণমূল নেতারা। এর পর পার্থ চট্টোপাধ্যায় বক্তব্য রাখতে উঠে শুভেন্দুর ভাষাতেই শুভেন্দুকে আক্রামণ করেন, বলেন দলটাকে কোম্পানি বানিয়ে ফেলতে চেয়েছিল ও। একাই সব চালাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x