৯ বছরের শিশুকে কিডন্যাপ ও হত্যা, অভিযুক্তের বাড়ি ভাঙচুর চালালো গ্রামবাসীরা।

৯ বছরের শিশুকে কিডন্যাপ ও হত্যা, অভিযুক্তের বাড়ি ভাঙচুর চালালো গ্রামবাসীরা।

নজরবন্দী বুরো: ৯ বছরের শিশুকে কিডন্যাপ ও হত্যা, আজ সকালে একটি ৯ বছরের শিশুকে কিডন্যাপ ও পরে হত্যার অভিযোগে , শিশুটির নাম ছিল সন্দীপ দলুই । গত বুধবার থেকে শিশুটি উধাও ছিল। সেদিন গ্রামে মনসা পুজো ছিল । মন্দির চত্বর থেকেই নিখোঁজ হয় শিশুটি। রাতভর অনেক খোঁজাখুজির পরও হদিশ মেলেনি। অভিযুক্তের বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর চালায় গ্রামবাসীরা। ঘটনাটি ঘটে পশ্চিম বর্ধমানের একটি গ্রামে। শিশুটি গ্রাম পঙ্চায়েত সদস্যেরই ছেলে ছিল।

আরও পড়ুনঃ আত্মঘাতী বালুরঘাট সদর ট্রাফিক অফিসের ওসি সুদীপ্তকুমার দাস।

আজ সকালে শিশুটির লাশ মিলতেই শুরু হয় উত্তেজনা। ক্ষোভে ফেটে পড়ে গ্রামবাসীরা।এরপর অভিযুক্তের বাড়িতে ঢুকে তারা ছাদের প্রাচীর , ফ্যান থেকে শুরু করে আসবাবপত্রও ভেঙে চুরমার করে। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ।

৯ বছরের শিশুকে কিডন্যাপ ও হত্যা, গ্রামবাসীরা জানায়, ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ চেয়ে গতকাল অভিযুক্তের কাছে ফোন এসেছিল। এরপরই আজ শিশুটির লাশ পাওয়া গেছে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিষয়টি নিয়ে গলসি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন সন্দীপের বাবা বুদ্ধদেব দলুই। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। আজ সকালে হাত-পা বাঁধা নিথর দেহ ডিভিসি ক্যানেলে ফেলে দিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। ঐ দৃশ্য দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়ে গ্রামবাসীরা।

পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখায় তারা। এরপরই অভিযুক্তদের ঘরে ভাঙচুর চালানো হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে মোতায়েন করা হয় বিশাল পুলিশবাহিনী। মুক্তিপণ চেয়ে যে মোবাইল নম্বর থেকে ফোন করা হয়েছিল, তার সূত্র ধরেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ধৃতদের মধ্যে রয়েছে সুব্রত মাঝি ওরফে বাদশা(২০), জয়ন্ত বাগ(২০), মঙ্গলদীপ দলুই ওরফে বাবু (২০)। এদের প্রত্যেকেরই বাড়ি সাঁকো গ্রাম পঙ্চায়েত এলাকায়। কী কারণে তারা এরকম কাজ করলো এবং এর সঙ্গে অন্যকেউ যুক্ত আছে কিনা , তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x